০৯:৪৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে সরকার কারসাজি শুরু করেছে: হেলাল

###       বিএনপির তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল বলেছেন, উপ নির্বাচনে মানুষ সরকারকে লাল কার্ড দেখিয়েছে। একজন ইউটিউবার হিরো আলমকে পরাজিত করতেও এই সরকারকে কারচুপির আশ্রয় নিতে হয়েছে। আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়েও সরকারের কারসাজি শুরু হয়েছে। বিক্ষুব্ধ নেতাদেরকে যেনতেন মার্কা ধরিয়ে নিজ দলের প্রার্থীদের সরিয়ে দিয়ে প্রহসনের সংসদ গঠন করবে তারা। বিএনপি এ ধরনের কোন নির্বাচন মানে না। জনগনও চায় তাদের ভোটাধিকার ফিরে পেতে। এজন্য আগামীতে তত্ত¡বধায়ক সরকার ছাড়া দেশে কোন নির্বাচন হবে না। ফ্যাসিবাদী শাসনের অবসান ও জনগনের অধিকার ফিরে না আসা পর্যন্ত বিএনপি রাজপথের আন্দোলন তীব্র থেকে তীব্রতর করে তুলবে। বৃহস্পতিবার খুলনায় বিএনপি আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে আজিজুল বারী হেলাল এসব কথা বলেন। দুপুরে নগরীর কে ডি ঘোষ রোডস্থ দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত ব্রিফিংয়ে আগামী ৪ ফেব্রুয়ারী খুলনায় অনুষ্ঠিতব্য বিএনপির খুলনা বিভাগীয় সমাবেশ সম্পর্কে মিডিয়া কর্মীদের অবহিত করা হয়। আশা করছি অন্যান্য বিভাগের মতো খুলনার সমাবেশ সফল করার মধ্য দিয়ে সরকারকে আমরা বার্তা দিতে পারবো, অবিলম্বে নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি মেনে নিন। তা না হলে দুর্বার আন্দোলনে এ সরকারের পতন হবে।

প্রেস ব্রিফিংয়ে বক্তব্য রাখেন মহানগর বিএনপির আহবায়ক শফিকুল আলম মনা, বিএনপি খুলনা বিভাগীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদক জয়ন্ত কুমার কুন্ডু, জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য সাবেক এমপি মোঃ মুজিবর রহমান, জেলা আহবায়ক আমীর এজাজ খান, মহানগর সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মোঃ তারিকুল ইসলাম জহির, জেলার আবু হোসেন বাবু, সাবেক এমপি অধ্যাপক ডাঃ গাজী আব্দুল হক, খান জুলফিকার আলী জুলু, স ম আব্দুর রহমান, মোল্লা খায়রুল ইসলাম, কাজী মাহমুদ আলী, শের আলম সান্টু, বদরুল আনাম খান, শেখ তৈয়েবুর রহমান, চৌধুরী শফিকুল ইসলাম হোসেন, একরামুল হক হেলাল, আশরাফুল আলম খান নান্নু, শেখ সাদী, কে এম হুমায়ূন কবির, এহতেশামুল হক শাওন, মনিরুজ্জামান লেলিন, এস এম মুর্শিদুর রহমান লিটন, নাজিরউদ্দিন আহমেদ নান্নু, নাজমুস সাকির পিন্টু, আরিফুর রহমান, সরোয়ার হোসেন, রফিকুল ইসলাম বাবু, রাহাত আলী লাচ্চু, তারিকুল ইসলাম, খন্দকার হাসিনুল ইসলাম নিক, মিজানুর রহমান মিলটন, শামসুল বারিক পান্না, মুজিবর রহমান, আতাউর রহমান রুনু, মোঃ জাবির আলী, আব্দুল মান্নান মিস্ত্রি, গোলাম মোস্তফা তুহিন, খায়রুজ্জামান তালুকদার সজীব, শহিদুল ইসলাম, আজাদ আমিন প্রমুখ।

উল্লেখ্য, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনসহ ১০ দফা দাবিতে গত বছরের ১০ ডিসেম্বর ঢাকার গণসমাবেশ থেকে যুগপৎ আন্দোলনের ঘোষণা দেয় বিএনপি। এই পর্যন্ত চলমান যুগপৎ আন্দোলনের চার দফা কর্মসূচি পালিত হয়েছে।আগামী ৪ ফেব্রুয়ারী সারা দেশের বিভাগীয় সদরে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এজন্য খুলনাতে একটি বিভাগীয় প্রস্ততি সভা সহ বেশ কয়েকটি সভা হয়েছে। বিএনপি ছাড়াও ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, মহিলা দল, শ্রমিক দল সহ সকল অঙ্গ সহযোগী সংগঠন দফায় দফায় প্রস্ততি সভা করে কর্মকৌশল নির্ধারণ করছে। #

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik Madhumati

জনপ্রিয়

মোল্লাহাটে কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছে গেছে নির্বাচনী সরঞ্জাম

আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে সরকার কারসাজি শুরু করেছে: হেলাল

প্রকাশিত সময় : ০১:৪৬:৩৯ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

###       বিএনপির তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল বলেছেন, উপ নির্বাচনে মানুষ সরকারকে লাল কার্ড দেখিয়েছে। একজন ইউটিউবার হিরো আলমকে পরাজিত করতেও এই সরকারকে কারচুপির আশ্রয় নিতে হয়েছে। আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়েও সরকারের কারসাজি শুরু হয়েছে। বিক্ষুব্ধ নেতাদেরকে যেনতেন মার্কা ধরিয়ে নিজ দলের প্রার্থীদের সরিয়ে দিয়ে প্রহসনের সংসদ গঠন করবে তারা। বিএনপি এ ধরনের কোন নির্বাচন মানে না। জনগনও চায় তাদের ভোটাধিকার ফিরে পেতে। এজন্য আগামীতে তত্ত¡বধায়ক সরকার ছাড়া দেশে কোন নির্বাচন হবে না। ফ্যাসিবাদী শাসনের অবসান ও জনগনের অধিকার ফিরে না আসা পর্যন্ত বিএনপি রাজপথের আন্দোলন তীব্র থেকে তীব্রতর করে তুলবে। বৃহস্পতিবার খুলনায় বিএনপি আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে আজিজুল বারী হেলাল এসব কথা বলেন। দুপুরে নগরীর কে ডি ঘোষ রোডস্থ দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত ব্রিফিংয়ে আগামী ৪ ফেব্রুয়ারী খুলনায় অনুষ্ঠিতব্য বিএনপির খুলনা বিভাগীয় সমাবেশ সম্পর্কে মিডিয়া কর্মীদের অবহিত করা হয়। আশা করছি অন্যান্য বিভাগের মতো খুলনার সমাবেশ সফল করার মধ্য দিয়ে সরকারকে আমরা বার্তা দিতে পারবো, অবিলম্বে নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি মেনে নিন। তা না হলে দুর্বার আন্দোলনে এ সরকারের পতন হবে।

প্রেস ব্রিফিংয়ে বক্তব্য রাখেন মহানগর বিএনপির আহবায়ক শফিকুল আলম মনা, বিএনপি খুলনা বিভাগীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদক জয়ন্ত কুমার কুন্ডু, জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য সাবেক এমপি মোঃ মুজিবর রহমান, জেলা আহবায়ক আমীর এজাজ খান, মহানগর সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মোঃ তারিকুল ইসলাম জহির, জেলার আবু হোসেন বাবু, সাবেক এমপি অধ্যাপক ডাঃ গাজী আব্দুল হক, খান জুলফিকার আলী জুলু, স ম আব্দুর রহমান, মোল্লা খায়রুল ইসলাম, কাজী মাহমুদ আলী, শের আলম সান্টু, বদরুল আনাম খান, শেখ তৈয়েবুর রহমান, চৌধুরী শফিকুল ইসলাম হোসেন, একরামুল হক হেলাল, আশরাফুল আলম খান নান্নু, শেখ সাদী, কে এম হুমায়ূন কবির, এহতেশামুল হক শাওন, মনিরুজ্জামান লেলিন, এস এম মুর্শিদুর রহমান লিটন, নাজিরউদ্দিন আহমেদ নান্নু, নাজমুস সাকির পিন্টু, আরিফুর রহমান, সরোয়ার হোসেন, রফিকুল ইসলাম বাবু, রাহাত আলী লাচ্চু, তারিকুল ইসলাম, খন্দকার হাসিনুল ইসলাম নিক, মিজানুর রহমান মিলটন, শামসুল বারিক পান্না, মুজিবর রহমান, আতাউর রহমান রুনু, মোঃ জাবির আলী, আব্দুল মান্নান মিস্ত্রি, গোলাম মোস্তফা তুহিন, খায়রুজ্জামান তালুকদার সজীব, শহিদুল ইসলাম, আজাদ আমিন প্রমুখ।

উল্লেখ্য, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনসহ ১০ দফা দাবিতে গত বছরের ১০ ডিসেম্বর ঢাকার গণসমাবেশ থেকে যুগপৎ আন্দোলনের ঘোষণা দেয় বিএনপি। এই পর্যন্ত চলমান যুগপৎ আন্দোলনের চার দফা কর্মসূচি পালিত হয়েছে।আগামী ৪ ফেব্রুয়ারী সারা দেশের বিভাগীয় সদরে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এজন্য খুলনাতে একটি বিভাগীয় প্রস্ততি সভা সহ বেশ কয়েকটি সভা হয়েছে। বিএনপি ছাড়াও ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, মহিলা দল, শ্রমিক দল সহ সকল অঙ্গ সহযোগী সংগঠন দফায় দফায় প্রস্ততি সভা করে কর্মকৌশল নির্ধারণ করছে। #