০৭:৩০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আজ ‘বিশ্ব হাগ ডে’( বিশ্ব আলিঙ্গন দিবস)

  • সংবাদদাতা
  • প্রকাশিত সময় : ১২:০০:৩১ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
  • ৫৭ পড়েছেন

###    আজবিশ্ব হাগ ডে’( বিশ্ব আলিঙ্গন দিবস) বিশ্ব ভালোবাসা সপ্তাহের বিশেষ দিনগুলির মধ্যে এটি অন্যতম উষ্ণ আলিঙ্গন ভালোবাসারই এক রূপ ফলে প্রেমের সপ্তাহে আলিঙ্গন দিবস নাথাকলে কি আর চলে প্রতি বছর ১৩ ফেব্রুয়ারি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে দিনটিকে আলিঙ্গন দিবস বা  বিশ্ব হাগ ডেহিসেবে উদযাপন করা হয়

একটি উষ্ণ আলিঙ্গন আপনার সঙ্গীকে বুঝিয়ে দেবে আপনি তার পাশে আছেন সবসময় আলিঙ্গনের মধ্যে দিয়ে একে অপরের প্রতি ভালবাসা, আবেগ, তাঁকে আগলে রাখার তাগিদ, সবটাই একসঙ্গে প্রকাশ করে দেওয়া যায় শুধুমাত্র দম্পতিরাই নয়, এই দিনটা পালন করা যায় নিজের বন্ধুবান্ধব, বাবামা অথবা যাঁরা আপনার খুব কাছের, তাঁদের সকলের সঙ্গেইএকটি আলিঙ্গন সঙ্গীকে পাশে পাওয়ার অনুভূতিকে আরও দৃঢ় করে তোলে। প্রিয় মানুষটির বাহুবন্ধনে থাকলে সবাই নিজেকে সুরক্ষিত মনে করে। আসন্ন সব রকম বাধাবিপত্তি থেকে এই মানুষ যে তাঁকে রক্ষা করবে এই ভরসা দিতে পারে আলিঙ্গন বন্ধু হোক বা প্রিয়জন, পরস্পরের প্রতি স্নেহ ভালবাসা প্রকাশের অন্যতম মাধ্যম হল আলিঙ্গন। হালের সমীক্ষা বলছে, এই আলিঙ্গন শুধুমাত্র আবেগ প্রকাশের মাধ্যমই নয়। এর মাধ্যমে মস্তিষ্ক থেকে এক প্রকার হরমোন নিঃসৃত হয়, যা শারীরিক মানসিক বিকাশে নানা ভাবে সাহায্য করে। শুধু তা নয়, মানসিক চাপ কমাতেও নাকি আলিঙ্গনের জুড়ি মেলা ভার! বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গিয়েছে, আলিঙ্গন এক জনের মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটাতে সক্ষম। আলিঙ্গনবদ্ধ অবস্থায় অক্সিটোসিন হরমোন নিঃসৃত হয়, যার ফলে মস্তিষ্ক শান্ত থাকে। সমীক্ষা বলছে ১০ সেকেন্ড বা তার বেশি সময় ধরে আলিঙ্গন করলে মনের উপর ইতিবাচক প্রভাব পড়ে। বিশেষ করে খুব কাছের কোনও বন্ধু বা প্রিয়জন কেউ জড়িয়ে ধরলে মানসিক প্রশান্তি আসে।

আসলে মন খারাপের সময় কিংবা কঠিন পরিস্থিতিতে ভালোবাসার মানুষের থেকে পাওয়া উষ্ণ আলিঙ্গন অনেকটা ম্যাজিকের মতো কাজ করে শুধু তা নয়, আলিঙ্গন আবার অনুভূতি বা প্রেম প্রকাশের একটা মাধ্যমও বটে কিন্তু জনসমক্ষে আলিঙ্গনকে আবার অনেক সময় দৃষ্টিকটু হিসেবেও গণ্য করেন বিষয়টা কি সত্যিই তেমন? আসলে অনেকেই এমন ভাবে বিশেষ মানুষকে আলিঙ্গন করেন, যা ভীষণ রকম চোখে লাগে তাই এক্ষেত্রে মাথায় রাখতে হবে যে, একান্তে করা আলিঙ্গন আর জনসমক্ষে করা আলিঙ্গনের ধরন কিন্তু আলাদা হওয়া উচিত##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

জনপ্রিয়

মোল্লাহাটে বিয়ের জন্য মেয়েকে পছন্দ না করায় ছেলের ভগ্নিপতিকে হত্যা, আহত ১০

আজ ‘বিশ্ব হাগ ডে’( বিশ্ব আলিঙ্গন দিবস)

প্রকাশিত সময় : ১২:০০:৩১ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

###    আজবিশ্ব হাগ ডে’( বিশ্ব আলিঙ্গন দিবস) বিশ্ব ভালোবাসা সপ্তাহের বিশেষ দিনগুলির মধ্যে এটি অন্যতম উষ্ণ আলিঙ্গন ভালোবাসারই এক রূপ ফলে প্রেমের সপ্তাহে আলিঙ্গন দিবস নাথাকলে কি আর চলে প্রতি বছর ১৩ ফেব্রুয়ারি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে দিনটিকে আলিঙ্গন দিবস বা  বিশ্ব হাগ ডেহিসেবে উদযাপন করা হয়

একটি উষ্ণ আলিঙ্গন আপনার সঙ্গীকে বুঝিয়ে দেবে আপনি তার পাশে আছেন সবসময় আলিঙ্গনের মধ্যে দিয়ে একে অপরের প্রতি ভালবাসা, আবেগ, তাঁকে আগলে রাখার তাগিদ, সবটাই একসঙ্গে প্রকাশ করে দেওয়া যায় শুধুমাত্র দম্পতিরাই নয়, এই দিনটা পালন করা যায় নিজের বন্ধুবান্ধব, বাবামা অথবা যাঁরা আপনার খুব কাছের, তাঁদের সকলের সঙ্গেইএকটি আলিঙ্গন সঙ্গীকে পাশে পাওয়ার অনুভূতিকে আরও দৃঢ় করে তোলে। প্রিয় মানুষটির বাহুবন্ধনে থাকলে সবাই নিজেকে সুরক্ষিত মনে করে। আসন্ন সব রকম বাধাবিপত্তি থেকে এই মানুষ যে তাঁকে রক্ষা করবে এই ভরসা দিতে পারে আলিঙ্গন বন্ধু হোক বা প্রিয়জন, পরস্পরের প্রতি স্নেহ ভালবাসা প্রকাশের অন্যতম মাধ্যম হল আলিঙ্গন। হালের সমীক্ষা বলছে, এই আলিঙ্গন শুধুমাত্র আবেগ প্রকাশের মাধ্যমই নয়। এর মাধ্যমে মস্তিষ্ক থেকে এক প্রকার হরমোন নিঃসৃত হয়, যা শারীরিক মানসিক বিকাশে নানা ভাবে সাহায্য করে। শুধু তা নয়, মানসিক চাপ কমাতেও নাকি আলিঙ্গনের জুড়ি মেলা ভার! বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গিয়েছে, আলিঙ্গন এক জনের মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটাতে সক্ষম। আলিঙ্গনবদ্ধ অবস্থায় অক্সিটোসিন হরমোন নিঃসৃত হয়, যার ফলে মস্তিষ্ক শান্ত থাকে। সমীক্ষা বলছে ১০ সেকেন্ড বা তার বেশি সময় ধরে আলিঙ্গন করলে মনের উপর ইতিবাচক প্রভাব পড়ে। বিশেষ করে খুব কাছের কোনও বন্ধু বা প্রিয়জন কেউ জড়িয়ে ধরলে মানসিক প্রশান্তি আসে।

আসলে মন খারাপের সময় কিংবা কঠিন পরিস্থিতিতে ভালোবাসার মানুষের থেকে পাওয়া উষ্ণ আলিঙ্গন অনেকটা ম্যাজিকের মতো কাজ করে শুধু তা নয়, আলিঙ্গন আবার অনুভূতি বা প্রেম প্রকাশের একটা মাধ্যমও বটে কিন্তু জনসমক্ষে আলিঙ্গনকে আবার অনেক সময় দৃষ্টিকটু হিসেবেও গণ্য করেন বিষয়টা কি সত্যিই তেমন? আসলে অনেকেই এমন ভাবে বিশেষ মানুষকে আলিঙ্গন করেন, যা ভীষণ রকম চোখে লাগে তাই এক্ষেত্রে মাথায় রাখতে হবে যে, একান্তে করা আলিঙ্গন আর জনসমক্ষে করা আলিঙ্গনের ধরন কিন্তু আলাদা হওয়া উচিত##