০৭:৩৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কয়রার দক্ষিণ বেদকাশীতে সন্ত্রাসী-দস্যুদের কবল থেকে জমি উদ্ধার ও সন্ত্রাসীদের বিচারের দাবীতে মানববন্ধন, প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

###     খুলনার কয়রার দক্ষিণ বেদকাশী ও উত্তর বেদকাশী ইউনিয়নের ঘেরদস্যুদের হাত থেকে নিজেদের চাষী জমি উদ্ধার ও দখলকারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার এবং শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের চরামুখা মেদের চর এলাকার বালা হরিচরন মেমোরিয়াল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধনে জমি দখলমুক্ত করাসহ ঘের দস্যুদের অবিলম্বে গ্রেফতার পূর্বক তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট সকলের দৃষ্টি আকর্ষন করেন ভুক্তভোগীরা।
মানববন্ধনে বক্ততা করেন সাবেক মেম্বর রনজিত মন্ডল, সুকুমার মন্ডল, প্রশান্ত কুমার মন্ডল, আকবর মুন্সি, কর্ন মন্ডল, সুকুমার মন্ডল, অর্চনা রানী মন্ডলসহ এলাকার জমি মালিকবৃন্দ। মানববন্ধন ও সমাবেশে এলাকার জমির মালিক ও কৃষকরা অভিযোগ করেন, কয়রার দক্ষিণ বেদকাশী ও উত্তর বেদকাশী ইউনিয়নের চরামুখা, মেদের চর, পদ্মপুকুর, বীণাপানি গ্রামসহ ৮টি গ্রামের কৃষক ও নীরিহ সাধারন মানুষের উপর অত্যাচার-র্নিযাতন করে তাদের পৈত্রিক প্রায় ৪৫০ বিঘা ঘেরের জমি জবর দখল করে নিয়েছে স্থানীয় একটি সন্ত্রাসী এবং ভুমি ও ঘেরদস্যু চক্র।এলাকার জাল দলিলচক্র, ভুমিদস্যু ও সন্ত্রাসী মাসুদ রানা, আবুল জাসনাত রিজভী, বাবু, রহমত উল্রাহ উজ্জ্বল, হরিদাস, প্রান গোপাল ও ইব্রাহিমের নেতৃত্বে জমিজমা দখল ও নির্যাতন চালাচ্ছে। ঘেরদস্যু মাসুদ রানাসহ অন্যান্যরা ঘের মালিকদের পৈত্রিক জমি ঘের করার জন্য লিজ নিলেও দীর্ঘদিন ধরে জমি মালিকদের লিজের টাকা দিচ্ছে না। জমি ফেরত চাইলেও মাসুদ রানা ও তার লোকজন ঘেরের কাছে মালিকদের যেতে দিচ্ছে না। মাসুদের লোকজন ঘেরের জমির মালিকদের প্রতিনিয়ত জীবন নাশের হুমকি দিচ্ছে। স্বাধীন দেশে রেকর্ডভুক্ত পৈতৃক সম্পত্তি কতিপয় ঘের দস্যুদের জন্য ভোগ করতে পারছে না তারা। চিহ্নিত ঘের দস্যুরা নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়ে ক্ষতিগ্রস্থ ইউনিয়নবাসীরা জীবন জীবিকার শেষ সম্বল সামান্য জমি তা দখল করে রেখেছে। এমনকি পুলিশকে দিয়েও নানাভাবে হয়রানি করছে বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বর, থানা পুলিশ ও প্রশাসনসহ বিভিন্ন সরকারী দপ্তরে এবং এমনকি রাজনৈতিক নেতাদের নিকট অভিযোগ জানিয়েও কোন সুরাহা পাচ্ছেন না বলেও অভিযোগ করেন ইউনিয়নবাসীরা। এমন কি দখলবাজদের বিরুদ্ধে কোন কথা বলতে গেলে বাড়ী বাড়ী পুলিশ দিয়ে এবং সন্ত্রাসীরা হামলা করে কৃষক ও এলাকার মানুষকে গ্রামছাড়া করছে। তারা ঘেরদস্যু ও সন্ত্রাসীদের দ্রুত গ্রেফতার ও কঠোর শাস্তির দাবী জানান তারা। একই সাথে কৃষক ও মাছ চাষীরা তাদের নিজস্ব জমি ফিরে পেতে এবং ঘের দস্যুদের অবিলম্বে গ্রেফতার পূর্বক তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্র্তপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এলাকাবাসীর অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করে অভিযুক্ত মাসুদ রানা জানান, এলাকার ১৯৬ জন জমির মালিকের নিকট থেকে লিখিতভাবে লিজ নিয়ে ২০১৯ সাল থেকে ঘেরে মাছ চাষ করছেন তিনি। অধিকাংশ জমির মালিকেরা সময়মত এসে তাদের জমির লিজের টাকা নিয়ে যায়। ২-৩ জন জমির মালিক রয়েছে যাদের জমির পরিমান খুবই সামান্য তারা লিজের টাকা নিতে আসে না। তারাই এলাকার কতিপয় দূষ্কৃতিকারীদের সহায়তায় এসব অপপ্রচার ও চক্রান্ত করছে।##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik Madhumati

জনপ্রিয়

মোল্লাহাটে কম্বল বিতরণ ও উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত

কয়রার দক্ষিণ বেদকাশীতে সন্ত্রাসী-দস্যুদের কবল থেকে জমি উদ্ধার ও সন্ত্রাসীদের বিচারের দাবীতে মানববন্ধন, প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

প্রকাশিত সময় : ০৮:০২:৩৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

###     খুলনার কয়রার দক্ষিণ বেদকাশী ও উত্তর বেদকাশী ইউনিয়নের ঘেরদস্যুদের হাত থেকে নিজেদের চাষী জমি উদ্ধার ও দখলকারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার এবং শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের চরামুখা মেদের চর এলাকার বালা হরিচরন মেমোরিয়াল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধনে জমি দখলমুক্ত করাসহ ঘের দস্যুদের অবিলম্বে গ্রেফতার পূর্বক তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট সকলের দৃষ্টি আকর্ষন করেন ভুক্তভোগীরা।
মানববন্ধনে বক্ততা করেন সাবেক মেম্বর রনজিত মন্ডল, সুকুমার মন্ডল, প্রশান্ত কুমার মন্ডল, আকবর মুন্সি, কর্ন মন্ডল, সুকুমার মন্ডল, অর্চনা রানী মন্ডলসহ এলাকার জমি মালিকবৃন্দ। মানববন্ধন ও সমাবেশে এলাকার জমির মালিক ও কৃষকরা অভিযোগ করেন, কয়রার দক্ষিণ বেদকাশী ও উত্তর বেদকাশী ইউনিয়নের চরামুখা, মেদের চর, পদ্মপুকুর, বীণাপানি গ্রামসহ ৮টি গ্রামের কৃষক ও নীরিহ সাধারন মানুষের উপর অত্যাচার-র্নিযাতন করে তাদের পৈত্রিক প্রায় ৪৫০ বিঘা ঘেরের জমি জবর দখল করে নিয়েছে স্থানীয় একটি সন্ত্রাসী এবং ভুমি ও ঘেরদস্যু চক্র।এলাকার জাল দলিলচক্র, ভুমিদস্যু ও সন্ত্রাসী মাসুদ রানা, আবুল জাসনাত রিজভী, বাবু, রহমত উল্রাহ উজ্জ্বল, হরিদাস, প্রান গোপাল ও ইব্রাহিমের নেতৃত্বে জমিজমা দখল ও নির্যাতন চালাচ্ছে। ঘেরদস্যু মাসুদ রানাসহ অন্যান্যরা ঘের মালিকদের পৈত্রিক জমি ঘের করার জন্য লিজ নিলেও দীর্ঘদিন ধরে জমি মালিকদের লিজের টাকা দিচ্ছে না। জমি ফেরত চাইলেও মাসুদ রানা ও তার লোকজন ঘেরের কাছে মালিকদের যেতে দিচ্ছে না। মাসুদের লোকজন ঘেরের জমির মালিকদের প্রতিনিয়ত জীবন নাশের হুমকি দিচ্ছে। স্বাধীন দেশে রেকর্ডভুক্ত পৈতৃক সম্পত্তি কতিপয় ঘের দস্যুদের জন্য ভোগ করতে পারছে না তারা। চিহ্নিত ঘের দস্যুরা নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়ে ক্ষতিগ্রস্থ ইউনিয়নবাসীরা জীবন জীবিকার শেষ সম্বল সামান্য জমি তা দখল করে রেখেছে। এমনকি পুলিশকে দিয়েও নানাভাবে হয়রানি করছে বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বর, থানা পুলিশ ও প্রশাসনসহ বিভিন্ন সরকারী দপ্তরে এবং এমনকি রাজনৈতিক নেতাদের নিকট অভিযোগ জানিয়েও কোন সুরাহা পাচ্ছেন না বলেও অভিযোগ করেন ইউনিয়নবাসীরা। এমন কি দখলবাজদের বিরুদ্ধে কোন কথা বলতে গেলে বাড়ী বাড়ী পুলিশ দিয়ে এবং সন্ত্রাসীরা হামলা করে কৃষক ও এলাকার মানুষকে গ্রামছাড়া করছে। তারা ঘেরদস্যু ও সন্ত্রাসীদের দ্রুত গ্রেফতার ও কঠোর শাস্তির দাবী জানান তারা। একই সাথে কৃষক ও মাছ চাষীরা তাদের নিজস্ব জমি ফিরে পেতে এবং ঘের দস্যুদের অবিলম্বে গ্রেফতার পূর্বক তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্র্তপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এলাকাবাসীর অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করে অভিযুক্ত মাসুদ রানা জানান, এলাকার ১৯৬ জন জমির মালিকের নিকট থেকে লিখিতভাবে লিজ নিয়ে ২০১৯ সাল থেকে ঘেরে মাছ চাষ করছেন তিনি। অধিকাংশ জমির মালিকেরা সময়মত এসে তাদের জমির লিজের টাকা নিয়ে যায়। ২-৩ জন জমির মালিক রয়েছে যাদের জমির পরিমান খুবই সামান্য তারা লিজের টাকা নিতে আসে না। তারাই এলাকার কতিপয় দূষ্কৃতিকারীদের সহায়তায় এসব অপপ্রচার ও চক্রান্ত করছে।##