০৬:২৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
পানির অভাবে দিশেহারা হয়ে পড়েছে তরমুজ চাষীরা

কলাপাড়ায় বাধ দিয়ে মাছ চাষে নষ্ট হচ্ছে কৃষি ফসল

  • নিউজ ডেক্স।।
  • প্রকাশিত সময় : ১২:২৮:২৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
  • ৪০ পড়েছেন

###     পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় খালে বাধ দিয়ে করা হচ্ছে মাছ চাষ। ফলে দেখা দিয়েছে তিব্র পানির সংকট। চেখের সামনেই নষ্ট হয়ে কুষি ফসল। পানির অভাবে দিশেহারা হয়ে পড়েছে তরমুজ চাষীরা। এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে উপজেলার বালিয়াতলী ইউনিয়নের বড় বালিয়াতলীর গ্রামে। কৃষক হাাবিবুল্লাহ প্যাদা প্রায় ৪০ একর জমিতে তরমুজ চাষ করছেন। তিন বলেন, পানির অভাবে জমি সেচ দিতে না পারায় তরমুজের লতা ক্রমশই শুকিয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। একই কথা বলেছেন কৃষক আনোয়ার, জলিল মাতুব্বর,খলিল হাওলাদারসহ আরো অনেকে। কৃষকরা জানায়, উপজেলার বালিয়াতলী ইউনিয়নের বড় বালিয়াতলী গ্রামের হাক্কার খাল থেকে পানি সংগ্রহ করে যুগ যুগ ধরে শুকনো মৌসুমে বিভিন্ন কৃষি পন্য উৎপাদন করে আসছি। কিন্তু ওই খালটি স্থানীয় প্রভাবশালী মহল বন্দোবস্ত নিয়ে বাধ দিয়ে মাছ চাষ করছেন। তাই ওই খাল থেকে পানি সংগ্রহ করতে গেলে বাধা দিচ্ছেন তারা। এ বিষয়ে উপজেলা প্রশাসনকে জাননো হলেও খাল থেকে পানি সংগ্রহ করতে পারছি না বলে ওইসব কৃষকরা জানিয়েছেন। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এআরএম সাইফুল্লাহ বলেন, কৃষকদের পানির অভাবের বিষয়টি শুনেছি। তারা যাতে পানি ব্যবহার করতে পারেন সে জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শংকর চন্দ্র বৈদ্য বলেন, এ বিষয়ে কৃষকরা তার কাছে এসেছিল। ইতোমধ্যে তহসিলদারে মাধ্যমে বলা হয়েছে- পানি সেচের জন্য কোন ধরনের বাধা সৃষ্টি যেন না হয়।##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

জনপ্রিয়

দেবহাটায় জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন এ্যাডভোকেসি সভা অনুষ্ঠিত 

পানির অভাবে দিশেহারা হয়ে পড়েছে তরমুজ চাষীরা

কলাপাড়ায় বাধ দিয়ে মাছ চাষে নষ্ট হচ্ছে কৃষি ফসল

প্রকাশিত সময় : ১২:২৮:২৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

###     পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় খালে বাধ দিয়ে করা হচ্ছে মাছ চাষ। ফলে দেখা দিয়েছে তিব্র পানির সংকট। চেখের সামনেই নষ্ট হয়ে কুষি ফসল। পানির অভাবে দিশেহারা হয়ে পড়েছে তরমুজ চাষীরা। এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে উপজেলার বালিয়াতলী ইউনিয়নের বড় বালিয়াতলীর গ্রামে। কৃষক হাাবিবুল্লাহ প্যাদা প্রায় ৪০ একর জমিতে তরমুজ চাষ করছেন। তিন বলেন, পানির অভাবে জমি সেচ দিতে না পারায় তরমুজের লতা ক্রমশই শুকিয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। একই কথা বলেছেন কৃষক আনোয়ার, জলিল মাতুব্বর,খলিল হাওলাদারসহ আরো অনেকে। কৃষকরা জানায়, উপজেলার বালিয়াতলী ইউনিয়নের বড় বালিয়াতলী গ্রামের হাক্কার খাল থেকে পানি সংগ্রহ করে যুগ যুগ ধরে শুকনো মৌসুমে বিভিন্ন কৃষি পন্য উৎপাদন করে আসছি। কিন্তু ওই খালটি স্থানীয় প্রভাবশালী মহল বন্দোবস্ত নিয়ে বাধ দিয়ে মাছ চাষ করছেন। তাই ওই খাল থেকে পানি সংগ্রহ করতে গেলে বাধা দিচ্ছেন তারা। এ বিষয়ে উপজেলা প্রশাসনকে জাননো হলেও খাল থেকে পানি সংগ্রহ করতে পারছি না বলে ওইসব কৃষকরা জানিয়েছেন। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এআরএম সাইফুল্লাহ বলেন, কৃষকদের পানির অভাবের বিষয়টি শুনেছি। তারা যাতে পানি ব্যবহার করতে পারেন সে জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শংকর চন্দ্র বৈদ্য বলেন, এ বিষয়ে কৃষকরা তার কাছে এসেছিল। ইতোমধ্যে তহসিলদারে মাধ্যমে বলা হয়েছে- পানি সেচের জন্য কোন ধরনের বাধা সৃষ্টি যেন না হয়।##