০৫:৫২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কেএমপি কমিশনার মোঃ মোজাম্মেল হকের দায়িত্ব গ্রহণ

  • সংবাদদাতা
  • প্রকাশিত সময় : ০৯:৫১:১৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩০ জুলাই ২০২৩
  • ২৩ পড়েছেন

অফিস ডেক্স্। 
খুলনার নবাগত পুলিশ কমিশনার মোঃ মোজাম্মেল হক দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। রবিবার তিনি সাবেক কমিশনার মাসুদুর রহমান ভুঞার কাছ থেকে দায়িত্ব গ্রহন করেন। দায়িত্ব গ্রহনের পর পুলিশ কমিশনার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে অবস্থিত বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এই সময় উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কেএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (এএন্ডও) সরদার রকিবুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম) মোঃ সাজিদ হোসেন; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মোল্লা জাহাঙ্গীর হোসেন; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (সদর) মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন; বিশেষ পুলিশ সুপার (সিটিএসবি) রাশিদা বেগম, ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (প্রসিকিউশন) রিয়াজ উদ্দিন আহম্মেদ, ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (ডিবি) বি.এম নুরুজ্জামান, ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মনিরা সুলতানা; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (এফএন্ডবি) শেখ মনিরুজ্জামান মিঠু; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (ইএন্ডডি) মোঃ কামরুল ইসলাম; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (আরসিডি) শাহরিয়ার মোহাম্মদ মিয়াজী-সহ ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাবৃন্দ।
সংক্ষিপ্ত জীবন বৃত্তান্তঃ
পুলিশ কমিশনার মোঃ মোজাম্মেল হক পাবনা জেলার চাটমোহর থানার শাহাপুর গ্রামের এক সমভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ভেটেনারি সায়েন্সে ডিগ্রী নিয়ে ১৯৯৪ সালে ভেটেনারি সার্জন পদে জয়পুর হাট জেলায় যোগদান করেন। সেখানে চাকুরীকালীন সময়ে তিনি ১৫ তম বিসিএস পুলিশ ক্যাডারে এএসপি পদে নিয়োগের জন্য পিএসসির সুপারিশ প্রাপ্ত হন। অনিবার্য কারনবশতঃ পুলিশে যোগদান না করে তিনি ভেটেনারি সার্জন ইশ্বরদী হিসেবে যোগদান করেন। এসময় তিনি ১৮তম বিসিএস পুলিশ ক্যাডারে এএসপি পদে নিয়োগের জন্য আবারও সুপারিশ লাভ করেন। তিনি ১৯৯৯সালে ২৫ জানুয়ারি সহকারী পুলিশ সুপার পদে নিয়োগ লাভ করেন। মৌলিক প্রশিক্ষণ শেষে ২০০১ সালে তিনি সহকারী পুলিশ সুপার পঞ্চগড় সার্কেল হিসেবে যোগদান করেন। ২০০৩ সালে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার রাজশাহী সদর সার্কেল হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন। ২০০৫ সালে তিনি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি লাভ করেন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে তিনি নাটোর, রাজশাহী, কুমিল্লা এবং ঢাকা জেলায় কর্মরত ছিলেন। কুমিল্লা জেলায় থাকাকালীন সময়ে তিনি ২০০৭ সালের অক্টোবর মাসে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের সদস্য হিসেবে দারফুর, সুদান গমন করেন। ১৩ মাস জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের কর্মের স্বীকৃতি স্বরূপ তিনি UN Peace keeping medal লাভ করেন। ২০১০ সালে ঢাকা জেলায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে কর্মকালীন সময়ে তিনি পুলিশ সুপার (এসপি) হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন এবং জয়পুরহাটে মাদক, সন্ত্রাস দমনের পাশাপাশি তিনি শিক্ষা বিস্তারের জন্য জয়পুরহাট পুলিশ লাইন একাডেমী প্রতিষ্ঠা করেন। এছাড়া বাংলাদেশে প্রথমবারের মত তিনি অবৈধ কিডনি কেনা-বেচার সংগে জড়িত একটি বড় চক্রকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হোন। এই কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ ২০১২ সালের পুলিশ উইকে তিনি রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (পিপিএম) লাভ করেন। অতপর তিনি ২০১২ সাল থেকে ২০১৫ সালের জুন পর্যন্ত বগুড়া জেলার পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এসময় সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ দমনের পাশাপাশি সমগ্র বগুড়া জেলা পুলিশেরর কার্যক্রমে তিনি Digitnfited করতে সক্ষম হন। এই কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ ২০১৫ সালের পুলিশ উইকে তিনি আইজিপি ব্যাচ এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তি উপদেষ্টা জনাব সজীব ওয়াজেদ জয় কর্তৃক আইসিটি Digital Award লাভ করেন। ২০১৫ সালের জুন মাসে তিনি পুলিশ সুপার নওগাঁ হিসেবে বদলী হন। নওগাঁ জেলায় কর্মকালীন সময়ে তিনি মাদক, সন্ত্রাস এবং জঙ্গিবাদ দমনের স্বীকৃতি স্বরূপ ২০১৬ সালের পুলিশ উইকে তিনি বাংলাদেশ পুলিশের সর্বোচ্চ পদক বিপিএম লাভ করেন। ২০১৭ সালের আগষ্ট মাসে তিনি ডিসি (ক্রাইম) হিসেবে ঢাকা মেট্রো পলিট্রন পুলিশে যোগদান করেন। একই বছর নভেম্বর মাসে তিনি অতিরিক্ত ডিআইজি হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন। ২০১৮ সালের জানুয়ারি মাসে তিনি র্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র্যাব) এ যোগদান করেন। RAB -13 এ রংপুর বিভাগে দায়িত্ব পালনকালে সন্ত্রাস এবং জঙ্গিবাদ দমনে অসীম সাহসিকতার পরিচয় দেয়ায় তিনি ২০১৯ সালের পুলিশ উইকে বাংলাদেশ পুলিশের সর্বোচ্চ পদক বিপিএম সাহসিকতা লাভ করেন। RAB -13 রংপুর কর্মকালীন সময়ে তিনি জঙ্গিবাদ দমনে সকল র্যাব ব্যাটালিয়নের মধ্যে ১ম স্থান এবং সামগ্রীক মূল্যায়নে তৃতীয় স্থান লাভ করায় RAB এওয়ার্ড লাভ করেন। ২০১৯ থেকে ২০২২ সালের জুলাই পর্যন্ত তিনি RAB-4 মিরপুরের কমান্ডিং অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। করোনাকালীন সময়ে তিনি মানবিক দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি অস্ত্র উদ্ধার, মাদক দমন, সন্ত্রাস দমন, ক্লুলেস মামলা ডিটেক্ট এবং জঙ্গি দমনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। এই কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ তিনি জঙ্গি দমনে ১ম স্থান, ক্লুলেস মামলা ডিটেকশনে ১ম স্থান এবং সামগ্রিক ভাবে ২য় স্থান লাভ করায় সর্বমোটই ৩ ক্যাটাগরিতে তিনি RAB Award লাভ করেন।
RAB-4 এ কর্মকালীন সময়ে ২০২২সালের মে মাসে তিনি ডিআইজি হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন। ১৬/১০/২০২২ তারিখে তিনি হাইওয়ে পুলিশে যোগদান করেন। হাইওয়ে পুলিশে কর্মকালীন সময়ে মহাসড়কে অপরাধ দমন, দুর্ঘটনা হ্রাসকরণ, যানজট নিয়ন্ত্রণসহ ট্রাফিক শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। গত ১৫ জুলাই, ২০২৩ তারিখে তিনি খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার হিসেবে বদলীর আদেশ লাভ করেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি বিনয়ী, সদালপি এবং বন্ধু বৎসল। তিনি তার জন্মস্থান পাবনায় এবং পাবনার বাইরে অসংখ্য সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ধর্মীয় এবং সেবাধর্মী প্রতিষ্ঠানের সংগে জড়িত। ব্যক্তি জীবনে তিনি বিবাহিত এবং ৩ সন্তানের জনক। বড় মেয়ে এমবিবিএস ডাক্তার, ছেলে এলএলবি (অনার্স) সম্পন্ন করে এলএলএম করছে এবং ছোট মেয়ে একাদশ শ্রেনীর ছাত্রী।

 

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

dainik madhumati

জনপ্রিয়

রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক একীভূতকরণের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন, ষড়যন্ত্রমূলক অপতৎপরতা রুখে দাড়ানোর আহবান

কেএমপি কমিশনার মোঃ মোজাম্মেল হকের দায়িত্ব গ্রহণ

প্রকাশিত সময় : ০৯:৫১:১৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩০ জুলাই ২০২৩

অফিস ডেক্স্। 
খুলনার নবাগত পুলিশ কমিশনার মোঃ মোজাম্মেল হক দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। রবিবার তিনি সাবেক কমিশনার মাসুদুর রহমান ভুঞার কাছ থেকে দায়িত্ব গ্রহন করেন। দায়িত্ব গ্রহনের পর পুলিশ কমিশনার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে অবস্থিত বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এই সময় উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কেএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (এএন্ডও) সরদার রকিবুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম) মোঃ সাজিদ হোসেন; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মোল্লা জাহাঙ্গীর হোসেন; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (সদর) মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন; বিশেষ পুলিশ সুপার (সিটিএসবি) রাশিদা বেগম, ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (প্রসিকিউশন) রিয়াজ উদ্দিন আহম্মেদ, ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (ডিবি) বি.এম নুরুজ্জামান, ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মনিরা সুলতানা; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (এফএন্ডবি) শেখ মনিরুজ্জামান মিঠু; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (ইএন্ডডি) মোঃ কামরুল ইসলাম; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (আরসিডি) শাহরিয়ার মোহাম্মদ মিয়াজী-সহ ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাবৃন্দ।
সংক্ষিপ্ত জীবন বৃত্তান্তঃ
পুলিশ কমিশনার মোঃ মোজাম্মেল হক পাবনা জেলার চাটমোহর থানার শাহাপুর গ্রামের এক সমভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ভেটেনারি সায়েন্সে ডিগ্রী নিয়ে ১৯৯৪ সালে ভেটেনারি সার্জন পদে জয়পুর হাট জেলায় যোগদান করেন। সেখানে চাকুরীকালীন সময়ে তিনি ১৫ তম বিসিএস পুলিশ ক্যাডারে এএসপি পদে নিয়োগের জন্য পিএসসির সুপারিশ প্রাপ্ত হন। অনিবার্য কারনবশতঃ পুলিশে যোগদান না করে তিনি ভেটেনারি সার্জন ইশ্বরদী হিসেবে যোগদান করেন। এসময় তিনি ১৮তম বিসিএস পুলিশ ক্যাডারে এএসপি পদে নিয়োগের জন্য আবারও সুপারিশ লাভ করেন। তিনি ১৯৯৯সালে ২৫ জানুয়ারি সহকারী পুলিশ সুপার পদে নিয়োগ লাভ করেন। মৌলিক প্রশিক্ষণ শেষে ২০০১ সালে তিনি সহকারী পুলিশ সুপার পঞ্চগড় সার্কেল হিসেবে যোগদান করেন। ২০০৩ সালে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার রাজশাহী সদর সার্কেল হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন। ২০০৫ সালে তিনি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি লাভ করেন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে তিনি নাটোর, রাজশাহী, কুমিল্লা এবং ঢাকা জেলায় কর্মরত ছিলেন। কুমিল্লা জেলায় থাকাকালীন সময়ে তিনি ২০০৭ সালের অক্টোবর মাসে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের সদস্য হিসেবে দারফুর, সুদান গমন করেন। ১৩ মাস জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের কর্মের স্বীকৃতি স্বরূপ তিনি UN Peace keeping medal লাভ করেন। ২০১০ সালে ঢাকা জেলায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে কর্মকালীন সময়ে তিনি পুলিশ সুপার (এসপি) হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন এবং জয়পুরহাটে মাদক, সন্ত্রাস দমনের পাশাপাশি তিনি শিক্ষা বিস্তারের জন্য জয়পুরহাট পুলিশ লাইন একাডেমী প্রতিষ্ঠা করেন। এছাড়া বাংলাদেশে প্রথমবারের মত তিনি অবৈধ কিডনি কেনা-বেচার সংগে জড়িত একটি বড় চক্রকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হোন। এই কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ ২০১২ সালের পুলিশ উইকে তিনি রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (পিপিএম) লাভ করেন। অতপর তিনি ২০১২ সাল থেকে ২০১৫ সালের জুন পর্যন্ত বগুড়া জেলার পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এসময় সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ দমনের পাশাপাশি সমগ্র বগুড়া জেলা পুলিশেরর কার্যক্রমে তিনি Digitnfited করতে সক্ষম হন। এই কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ ২০১৫ সালের পুলিশ উইকে তিনি আইজিপি ব্যাচ এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তি উপদেষ্টা জনাব সজীব ওয়াজেদ জয় কর্তৃক আইসিটি Digital Award লাভ করেন। ২০১৫ সালের জুন মাসে তিনি পুলিশ সুপার নওগাঁ হিসেবে বদলী হন। নওগাঁ জেলায় কর্মকালীন সময়ে তিনি মাদক, সন্ত্রাস এবং জঙ্গিবাদ দমনের স্বীকৃতি স্বরূপ ২০১৬ সালের পুলিশ উইকে তিনি বাংলাদেশ পুলিশের সর্বোচ্চ পদক বিপিএম লাভ করেন। ২০১৭ সালের আগষ্ট মাসে তিনি ডিসি (ক্রাইম) হিসেবে ঢাকা মেট্রো পলিট্রন পুলিশে যোগদান করেন। একই বছর নভেম্বর মাসে তিনি অতিরিক্ত ডিআইজি হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন। ২০১৮ সালের জানুয়ারি মাসে তিনি র্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র্যাব) এ যোগদান করেন। RAB -13 এ রংপুর বিভাগে দায়িত্ব পালনকালে সন্ত্রাস এবং জঙ্গিবাদ দমনে অসীম সাহসিকতার পরিচয় দেয়ায় তিনি ২০১৯ সালের পুলিশ উইকে বাংলাদেশ পুলিশের সর্বোচ্চ পদক বিপিএম সাহসিকতা লাভ করেন। RAB -13 রংপুর কর্মকালীন সময়ে তিনি জঙ্গিবাদ দমনে সকল র্যাব ব্যাটালিয়নের মধ্যে ১ম স্থান এবং সামগ্রীক মূল্যায়নে তৃতীয় স্থান লাভ করায় RAB এওয়ার্ড লাভ করেন। ২০১৯ থেকে ২০২২ সালের জুলাই পর্যন্ত তিনি RAB-4 মিরপুরের কমান্ডিং অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। করোনাকালীন সময়ে তিনি মানবিক দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি অস্ত্র উদ্ধার, মাদক দমন, সন্ত্রাস দমন, ক্লুলেস মামলা ডিটেক্ট এবং জঙ্গি দমনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। এই কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ তিনি জঙ্গি দমনে ১ম স্থান, ক্লুলেস মামলা ডিটেকশনে ১ম স্থান এবং সামগ্রিক ভাবে ২য় স্থান লাভ করায় সর্বমোটই ৩ ক্যাটাগরিতে তিনি RAB Award লাভ করেন।
RAB-4 এ কর্মকালীন সময়ে ২০২২সালের মে মাসে তিনি ডিআইজি হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন। ১৬/১০/২০২২ তারিখে তিনি হাইওয়ে পুলিশে যোগদান করেন। হাইওয়ে পুলিশে কর্মকালীন সময়ে মহাসড়কে অপরাধ দমন, দুর্ঘটনা হ্রাসকরণ, যানজট নিয়ন্ত্রণসহ ট্রাফিক শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। গত ১৫ জুলাই, ২০২৩ তারিখে তিনি খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার হিসেবে বদলীর আদেশ লাভ করেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি বিনয়ী, সদালপি এবং বন্ধু বৎসল। তিনি তার জন্মস্থান পাবনায় এবং পাবনার বাইরে অসংখ্য সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ধর্মীয় এবং সেবাধর্মী প্রতিষ্ঠানের সংগে জড়িত। ব্যক্তি জীবনে তিনি বিবাহিত এবং ৩ সন্তানের জনক। বড় মেয়ে এমবিবিএস ডাক্তার, ছেলে এলএলবি (অনার্স) সম্পন্ন করে এলএলএম করছে এবং ছোট মেয়ে একাদশ শ্রেনীর ছাত্রী।