১০:০৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কেসিসিতে কাউন্সিলর পদে আওয়ামীলীগের ৩৯, বিএনপি ১ ও জামায়াত ১জন নির্বাচিত

####

সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনে ৩১টি সাধারন ওয়ার্ড ও ১০টি সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে আওয়ামীলীগের ৩৯জন, বিএনপির ১জন ও জামায়াতের একজন বেরসকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছে।এরমধ্যে সাধারন কাউন্সিলর পদে ১২নং ওয়ার্ডে জামায়াত নেতা মাস্টার শফিকুল ইসলাম ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ০৯নং ওয়ার্ডে বিএনপির  মাজেদা খাতুন বিজয়ী হয়েছেন। ১২জুন অনুষ্ঠিত কেসিসি নির্বাচনে ভোট গণনা শেষে রিটার্নিং অফিসার মো: আলাউদ্দিন বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করেন। আওয়ামীলীগের এ বিপুল বিজয়ের পর এলাকায় এলাকায় আনন্দ উৎসব ও মিষ্টি বিতরন এবং নেতাকর্মীদের মধ্যে আনন্দের জোয়ার বইছে। বিজয়ী সাধারন ওয়ার্ডে নির্বাচিতরা হলো-০১ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের শাহাদাত হোসেন মিনা, ০২ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের এস এম মনিরুজ্জামান মুকুল, ০৩ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের আবদুস সালাম মাস্টার, ০৪ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের গোলাম রব্বানী টিপু, ০৫ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের শেখ মোহাম্মদ আলী, ০৬ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের শেখ শামসুদ্দিন আহম্মেদ প্রিন্স, ০৭ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের শেখ খালিদ আহমেদ, ০৮নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের সাহিদুর রহমান, ০৯নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের এস এম মাহফুজুর রহমান লিটন, ১০ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের শরিফুল ইসলাম প্রিন্স, ১১ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের নাঈমুল ইসলাম প্রিন্স, ১২ নম্বর ওয়ার্ডে জামায়াতের মাস্টার শফিকুল ইসলাম, ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের এস এম খুরশিদ আহমেদ টোনা (বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়), ১৪ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের শেখ মফিজুল ইসলাম পলাশ, ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের আমিনুল ইসলাম মুন্না, ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের হাসান ইফতেখার চালু, ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের হাফিজুর রহমান, ১৮ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের রাজুল হাসান রাজু, ১৯ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের জাকির হোসেন বিপ্লব, ২০ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের গাউসুল আযম, ২১ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের ইমরুল হাসান, ২২ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের আবুল কালাম আজাদ বিকু, ২৩ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের ইমাম হাসান চৌধুরী ময়না, ২৪ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের এ জেড মাহমুদ ডন (বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়), ২৫ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের আলী আকবর টিপু, ২৬ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের গোলাম মাওলা শানু, ২৭ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের এস এম রফিউদ্দিন, ২৮ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের জিয়াউল আহসান টিটু, ২৯ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের ফকির সাইফুল ইসলাম, ৩০ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের এস এম মোজাফফর রশিদী রেজা ও ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের আরিফ হোসেন মিঠু। এছাড়া সংরক্ষিত ০১নং নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের মনিরা আকতার, ০২নং নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের সাহিদা আকতার, ০৩নং নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের রাফিজা আকতার, ০৪নং খাদিজা খানম সোনালী, ০৫নং নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের মেমরী সুফিয়া রহমান শুনু, ০৬নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের রোজি ইসলাম নদী, ০৭নং নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের মাহামুদা বেগম, ০৮নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের কনিকা সাহা, ০৯ নং ওয়ার্ডে বিএনপির মাজেদা খাতুন, ১০ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের এ্যাড. জেসমিন সুলতানা জলি নির্বাচিত হয়েছেন।

তবে সাধারন কাউন্সিলর পদে বিএনপির ৬জন ও জামায়াতের ৫জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও তারা সফলতা পায়নি। বিগত ২০১৮ সালের কেসিসি নির্বাচনে ৪১জন কাউন্সিলরে মধ্যে বিএনপির ১৮জন বিজয়ী হয়েছিল। তবে পরে ১২জন কাউন্সিলর আওয়ামীলীগের যোগদান করেন। এবারের নির্বাচনে বিএনপির সাবেক ও বর্তমান কাউন্সিলরদের মধ্যে ৭ জন প্রার্থী হয়েছেন। এরমধ্যে ৯নং ওয়ার্ডে স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা কাজী ফজলুল কবির টিটো, ৫নং ওয়ার্ডে মহানগর বিএনপির সদস্য সাজ্জাদ আহসান তোতন, সংরক্ষিত ৯নং ওয়ার্ডের মাজেদা বেগম, ২২নং ওয়ার্ডে মাহাবুব কায়সার, ১৯নং ওয়ার্ড বিএনপির আহ্বায়ক আশফাকুর রহমান কাকন, ২৪নং ওয়ার্ডে বিএনপির সাবেক সভাপতি  শমসের আলী মিন্টু, ৩০নং ওয়ার্ডে সাবেক কাউন্সিলর আমান উল্লাহ আমান। এছাড়া কাউন্সিলর পদে জামায়াতেরও ৫জন নেতা অংশ নেয়। তারমধ্যে নগরীর ০১ নম্বর ওয়ার্ডে দৌলতপুর থানা জামায়াতের নায়েবে আমির আজিজুর রহমান স্বপন, ১৮ নম্বরে ওয়ার্ডের আমির মশিউর রহমান রমজান, ১২নম্বর ওয়ার্ডে মহানগর জামায়াতের সাবেক নায়েবে আমির মাস্টার শফিকুল আলম, ১৯নম্বর ওয়ার্ডে সোনাডাঙ্গা থানা জামায়াতের সাবেক সেক্রেটারি অ্যাডভোকেট মনিরুল ইসলাম পান্না ও ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে মহানগর জামায়াতের সেক্রেটারি অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসাইন হেলাল প্রার্থী হন। ##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik Madhumati

কেসিসিতে কাউন্সিলর পদে আওয়ামীলীগের ৩৯, বিএনপি ১ ও জামায়াত ১জন নির্বাচিত

প্রকাশিত সময় : ০৮:৪৩:৫১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৫ জুন ২০২৩

####

সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনে ৩১টি সাধারন ওয়ার্ড ও ১০টি সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে আওয়ামীলীগের ৩৯জন, বিএনপির ১জন ও জামায়াতের একজন বেরসকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছে।এরমধ্যে সাধারন কাউন্সিলর পদে ১২নং ওয়ার্ডে জামায়াত নেতা মাস্টার শফিকুল ইসলাম ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ০৯নং ওয়ার্ডে বিএনপির  মাজেদা খাতুন বিজয়ী হয়েছেন। ১২জুন অনুষ্ঠিত কেসিসি নির্বাচনে ভোট গণনা শেষে রিটার্নিং অফিসার মো: আলাউদ্দিন বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করেন। আওয়ামীলীগের এ বিপুল বিজয়ের পর এলাকায় এলাকায় আনন্দ উৎসব ও মিষ্টি বিতরন এবং নেতাকর্মীদের মধ্যে আনন্দের জোয়ার বইছে। বিজয়ী সাধারন ওয়ার্ডে নির্বাচিতরা হলো-০১ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের শাহাদাত হোসেন মিনা, ০২ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের এস এম মনিরুজ্জামান মুকুল, ০৩ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের আবদুস সালাম মাস্টার, ০৪ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের গোলাম রব্বানী টিপু, ০৫ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের শেখ মোহাম্মদ আলী, ০৬ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের শেখ শামসুদ্দিন আহম্মেদ প্রিন্স, ০৭ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের শেখ খালিদ আহমেদ, ০৮নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের সাহিদুর রহমান, ০৯নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের এস এম মাহফুজুর রহমান লিটন, ১০ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের শরিফুল ইসলাম প্রিন্স, ১১ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের নাঈমুল ইসলাম প্রিন্স, ১২ নম্বর ওয়ার্ডে জামায়াতের মাস্টার শফিকুল ইসলাম, ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের এস এম খুরশিদ আহমেদ টোনা (বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়), ১৪ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের শেখ মফিজুল ইসলাম পলাশ, ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের আমিনুল ইসলাম মুন্না, ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের হাসান ইফতেখার চালু, ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের হাফিজুর রহমান, ১৮ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের রাজুল হাসান রাজু, ১৯ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের জাকির হোসেন বিপ্লব, ২০ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের গাউসুল আযম, ২১ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের ইমরুল হাসান, ২২ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের আবুল কালাম আজাদ বিকু, ২৩ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের ইমাম হাসান চৌধুরী ময়না, ২৪ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের এ জেড মাহমুদ ডন (বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়), ২৫ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের আলী আকবর টিপু, ২৬ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের গোলাম মাওলা শানু, ২৭ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের এস এম রফিউদ্দিন, ২৮ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের জিয়াউল আহসান টিটু, ২৯ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের ফকির সাইফুল ইসলাম, ৩০ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের এস এম মোজাফফর রশিদী রেজা ও ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের আরিফ হোসেন মিঠু। এছাড়া সংরক্ষিত ০১নং নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের মনিরা আকতার, ০২নং নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের সাহিদা আকতার, ০৩নং নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের রাফিজা আকতার, ০৪নং খাদিজা খানম সোনালী, ০৫নং নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের মেমরী সুফিয়া রহমান শুনু, ০৬নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের রোজি ইসলাম নদী, ০৭নং নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের মাহামুদা বেগম, ০৮নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের কনিকা সাহা, ০৯ নং ওয়ার্ডে বিএনপির মাজেদা খাতুন, ১০ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের এ্যাড. জেসমিন সুলতানা জলি নির্বাচিত হয়েছেন।

তবে সাধারন কাউন্সিলর পদে বিএনপির ৬জন ও জামায়াতের ৫জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও তারা সফলতা পায়নি। বিগত ২০১৮ সালের কেসিসি নির্বাচনে ৪১জন কাউন্সিলরে মধ্যে বিএনপির ১৮জন বিজয়ী হয়েছিল। তবে পরে ১২জন কাউন্সিলর আওয়ামীলীগের যোগদান করেন। এবারের নির্বাচনে বিএনপির সাবেক ও বর্তমান কাউন্সিলরদের মধ্যে ৭ জন প্রার্থী হয়েছেন। এরমধ্যে ৯নং ওয়ার্ডে স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা কাজী ফজলুল কবির টিটো, ৫নং ওয়ার্ডে মহানগর বিএনপির সদস্য সাজ্জাদ আহসান তোতন, সংরক্ষিত ৯নং ওয়ার্ডের মাজেদা বেগম, ২২নং ওয়ার্ডে মাহাবুব কায়সার, ১৯নং ওয়ার্ড বিএনপির আহ্বায়ক আশফাকুর রহমান কাকন, ২৪নং ওয়ার্ডে বিএনপির সাবেক সভাপতি  শমসের আলী মিন্টু, ৩০নং ওয়ার্ডে সাবেক কাউন্সিলর আমান উল্লাহ আমান। এছাড়া কাউন্সিলর পদে জামায়াতেরও ৫জন নেতা অংশ নেয়। তারমধ্যে নগরীর ০১ নম্বর ওয়ার্ডে দৌলতপুর থানা জামায়াতের নায়েবে আমির আজিজুর রহমান স্বপন, ১৮ নম্বরে ওয়ার্ডের আমির মশিউর রহমান রমজান, ১২নম্বর ওয়ার্ডে মহানগর জামায়াতের সাবেক নায়েবে আমির মাস্টার শফিকুল আলম, ১৯নম্বর ওয়ার্ডে সোনাডাঙ্গা থানা জামায়াতের সাবেক সেক্রেটারি অ্যাডভোকেট মনিরুল ইসলাম পান্না ও ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে মহানগর জামায়াতের সেক্রেটারি অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসাইন হেলাল প্রার্থী হন। ##