০১:০৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

খুবিতে আইন বিষয়ে দু’দিনব্যাপী জাতীয় সম্মেলন সমাপ্ত

###    খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ডিসিপ্লিন আয়োজিত ‘লিগ্যাল ডায়নামিক্স ইন দ্য কনটেম্পোরারি ওয়ার্ল্ড’ বা সমসাময়িক বিশ্বের আইনি গতিশীলতা শীর্ষক দু’দিনব্যাপী জাতীয় সম্মেলন সমাপ্ত হয়েছে। ১১ মার্চ (শনিবার) সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে দু’টি কি-নোট পেপার উপস্থাপন করা হয়। সকাল ৯টায় ‘ডায়নামিসম ইন সিভিল সুটস্: বাংলাদেশ পার্সপেক্টিভ’ শীর্ষক কি-নোট পেপার উপস্থাপন করেন অ্যাটর্নি জেনারেল আবু মোহাম্মদ আমিন উদ্দিন। এছাড়া দুপুরে ‘রিঅ্যাপ্রাইসাল অব দ্য এভিডেন্স অ্যাক্ট ১৮৭২ ইন দ্য কনটেম্পোরারি কনটেক্সট’ শীর্ষক কি-নোট পেপার উপস্থাপন করেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর ড. বেগম আসমা সিদ্দিকা। এদিকে বিকাল সাড়ে ৫টায় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য জগদীশচন্দ্র বসু একাডেমিক ভবনের সাংবাদিক লিয়াকত আলী মিলনায়তনে সমাপনী অনুষ্ঠান ও সার্টিফিকেট বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়। সমাপনী অনুষ্ঠানে প্যাট্রন হিসেবে বক্তব্য রাখেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মোসাম্মাৎ হোসনে আরা। তিনি বলেন, জাতীয় কিংবা আন্তর্জাতিক সম্মেলন অংশগ্রহণকারীদের বহুমুখী চিন্তার জায়গায় পৌঁছাতে সহায়তা করে। এটি শিক্ষক, গবেষক এবং শিক্ষার্থীদের জন্য নিজেদের সমৃদ্ধ করার সুযোগ। তবে এই গবেষণা নিবন্ধ যেনো শুধু উপস্থাপনেই সীমাবদ্ধ না থাকে, তা যেনো প্রায়োগিক জায়গায় পৌঁছাতে পারে। তাহলে সম্মেলন আয়োজন সার্থক হবে। তিনি আরও বলেন, এই সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীরা নিজেদের মধ্যে নলেজ শেয়ারিং করেছেন, গবেষণা নিবন্ধ উপস্থাপন করেছেন, নিজেদের যে জায়গায় ঘাটতি আছে- সে বিষয়ে জানতে পেরেছেন। এটি ভবিষ্যতে তাদের গবেষণার বিষয়বস্তু নির্বাচন এবং গবেষণার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। তিনি আরও বলেন, আইনের প্রয়োগ সবখানেই আছে। আমাদের ছোটবেলা থেকেই আইন সম্পর্কে ভীতি কাজ করে। এজন্য স্কুল-কলেজ পর্যায়ে পাঠ্যপুস্তকে যদি আইনের ছোট ছোট কিছু বিষয় যুক্ত করা যায়, তাহলে এসব বিষয়ে আলোচনার ফলে ছোটবেলা থেকেই শিক্ষার্থীদের আইন বিষয়ে ভীতি দূর হবে। শিক্ষার্থীরা নিজেদের করণীয় এবং বর্জনীয় সম্পর্কে আরও বেশি জানতে পারবে এবং আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হবে। তিনি এই সম্মেলন সাফল্যের সাথে শেষ করায় আইন ডিসিপ্লিনের প্রধানসহ অংশগ্রহণকারী সকল শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। পরে তিনি টেকনিক্যাল সেশনে পেপার উপস্থাপনকারী শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীদের মাঝে সনদপত্র বিতরণ করেন।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. নাসিম বানু। সভাপতিত্ব করেন আইন ডিসিপ্লিন প্রধান প্রফেসর ড. মো. ওয়ালিউল হাসানাত। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন আইন ডিসিপ্লিনের সহকারী অধ্যাপক তালুকদার রাসেল মাহমুদ। অনুষ্ঠানে টেকনিক্যাল সেশনের চেয়ার হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী শিক্ষক-গবেষকদের সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। দু’দিনব্যাপী এ সম্মেলনে ঢাকা, রাজশাহী, জাহাঙ্গীরনগর, জগন্নাথ, চট্টগ্রাম, খুলনা ও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়সহ ২৪টি বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রতিষ্ঠান থেকে ১২৮ জন শিক্ষক, গবেষক, শিক্ষার্থী আইনপেশা সংশ্লিষ্টরা অংশগ্রহণ করেন। এ সম্মেলনে ৩৭ জন শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থী ৩২টি গবেষণা নিবন্ধ উপস্থাপন করেন। ##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

জনপ্রিয়

খুবিতে আইন বিষয়ে দু’দিনব্যাপী জাতীয় সম্মেলন সমাপ্ত

প্রকাশিত সময় : ০৮:৫৫:২৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ মার্চ ২০২৩

###    খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ডিসিপ্লিন আয়োজিত ‘লিগ্যাল ডায়নামিক্স ইন দ্য কনটেম্পোরারি ওয়ার্ল্ড’ বা সমসাময়িক বিশ্বের আইনি গতিশীলতা শীর্ষক দু’দিনব্যাপী জাতীয় সম্মেলন সমাপ্ত হয়েছে। ১১ মার্চ (শনিবার) সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে দু’টি কি-নোট পেপার উপস্থাপন করা হয়। সকাল ৯টায় ‘ডায়নামিসম ইন সিভিল সুটস্: বাংলাদেশ পার্সপেক্টিভ’ শীর্ষক কি-নোট পেপার উপস্থাপন করেন অ্যাটর্নি জেনারেল আবু মোহাম্মদ আমিন উদ্দিন। এছাড়া দুপুরে ‘রিঅ্যাপ্রাইসাল অব দ্য এভিডেন্স অ্যাক্ট ১৮৭২ ইন দ্য কনটেম্পোরারি কনটেক্সট’ শীর্ষক কি-নোট পেপার উপস্থাপন করেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর ড. বেগম আসমা সিদ্দিকা। এদিকে বিকাল সাড়ে ৫টায় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য জগদীশচন্দ্র বসু একাডেমিক ভবনের সাংবাদিক লিয়াকত আলী মিলনায়তনে সমাপনী অনুষ্ঠান ও সার্টিফিকেট বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়। সমাপনী অনুষ্ঠানে প্যাট্রন হিসেবে বক্তব্য রাখেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মোসাম্মাৎ হোসনে আরা। তিনি বলেন, জাতীয় কিংবা আন্তর্জাতিক সম্মেলন অংশগ্রহণকারীদের বহুমুখী চিন্তার জায়গায় পৌঁছাতে সহায়তা করে। এটি শিক্ষক, গবেষক এবং শিক্ষার্থীদের জন্য নিজেদের সমৃদ্ধ করার সুযোগ। তবে এই গবেষণা নিবন্ধ যেনো শুধু উপস্থাপনেই সীমাবদ্ধ না থাকে, তা যেনো প্রায়োগিক জায়গায় পৌঁছাতে পারে। তাহলে সম্মেলন আয়োজন সার্থক হবে। তিনি আরও বলেন, এই সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীরা নিজেদের মধ্যে নলেজ শেয়ারিং করেছেন, গবেষণা নিবন্ধ উপস্থাপন করেছেন, নিজেদের যে জায়গায় ঘাটতি আছে- সে বিষয়ে জানতে পেরেছেন। এটি ভবিষ্যতে তাদের গবেষণার বিষয়বস্তু নির্বাচন এবং গবেষণার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। তিনি আরও বলেন, আইনের প্রয়োগ সবখানেই আছে। আমাদের ছোটবেলা থেকেই আইন সম্পর্কে ভীতি কাজ করে। এজন্য স্কুল-কলেজ পর্যায়ে পাঠ্যপুস্তকে যদি আইনের ছোট ছোট কিছু বিষয় যুক্ত করা যায়, তাহলে এসব বিষয়ে আলোচনার ফলে ছোটবেলা থেকেই শিক্ষার্থীদের আইন বিষয়ে ভীতি দূর হবে। শিক্ষার্থীরা নিজেদের করণীয় এবং বর্জনীয় সম্পর্কে আরও বেশি জানতে পারবে এবং আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হবে। তিনি এই সম্মেলন সাফল্যের সাথে শেষ করায় আইন ডিসিপ্লিনের প্রধানসহ অংশগ্রহণকারী সকল শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। পরে তিনি টেকনিক্যাল সেশনে পেপার উপস্থাপনকারী শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীদের মাঝে সনদপত্র বিতরণ করেন।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. নাসিম বানু। সভাপতিত্ব করেন আইন ডিসিপ্লিন প্রধান প্রফেসর ড. মো. ওয়ালিউল হাসানাত। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন আইন ডিসিপ্লিনের সহকারী অধ্যাপক তালুকদার রাসেল মাহমুদ। অনুষ্ঠানে টেকনিক্যাল সেশনের চেয়ার হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী শিক্ষক-গবেষকদের সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। দু’দিনব্যাপী এ সম্মেলনে ঢাকা, রাজশাহী, জাহাঙ্গীরনগর, জগন্নাথ, চট্টগ্রাম, খুলনা ও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়সহ ২৪টি বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রতিষ্ঠান থেকে ১২৮ জন শিক্ষক, গবেষক, শিক্ষার্থী আইনপেশা সংশ্লিষ্টরা অংশগ্রহণ করেন। এ সম্মেলনে ৩৭ জন শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থী ৩২টি গবেষণা নিবন্ধ উপস্থাপন করেন। ##