১০:৩২ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খুলনায় অসাংবিধানিক ও অসচ্ছ ওয়ার্ড কমিটি দিয়ে থানা সম্মেলন বন্ধে চেয়ারপার্সনের হস্তক্ষেপ দাবী বিএনপি’র নেতৃবৃন্দের

  • অফিস ডেক্স।।
  • প্রকাশিত সময় : ১২:২২:০৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ মে ২০২৩
  • ৩৮ পড়েছেন

###    খুলনায় অসাংবিধানিক, অসচ্ছ ও অসম্পূর্ণ ওয়ার্ড পর্যায়ে গঠিত আহবায়ক কমিটি দিয়ে থানা সম্মেলন সম্পন্ন করার বর্তমান খুলনা মহানগর কমিটির পদক্ষেপ বন্ধ করার জন্য দলের সম্মানিত চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের হস্তক্ষেপ কামনা করছি খুলনার রাজপথের আন্দোলন সংগ্রামের ত্যাগী ও পরিক্ষিত রাজনৈতিকবৃন্দ। ১ মে সকালে অনুষ্ঠিত সভায় দলের মহানগর, থানা ও ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ এই অভিমত ব্যক্ত করেন যে, দলের দু:সময়ে দলের প্রাণশক্তি খুলনার রাজপথের কার্যকর নেতৃবৃন্দকে বাদ দিয়ে গঠিত খুলনা মহানগর আহবায়ক কমিটির মেয়াদ তিনমাস হলেও দেড় বছরে কোন থানা ও ওয়ার্ড কমিটি গঠন করতে পারেনি। এমনকী তারা প্রচলিত নিয়মকানুন রীতি ভঙ্গ করে থানা আহবায়ক কমিটি গঠন না করে সরাসরি ওয়ার্ড আহবায়ক কমিটি গঠন করেছে। ৩১ সদস্য বিশিষ্ট ওয়ার্ড আহবায়ক কমিটির অধিকাংশ ক্ষেত্রেই বিএনপি’র উপযুক্ত লোক না পেয়ে অঙ্গ/সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মি যুক্ত করে কমিটি করা হয়েছে। আবার সেই ওয়ার্ডের সম্মলেন না করে পূর্ণাঙ্গ ওয়ার্ড গঠন না করে কাউন্সিলর/ভোটার নির্ধারণ না করেই থানা সম্মেলনের উদ্যোগ গঠনতন্ত্র পরিপন্থী এবং গোঁজামিলের সামিল। নেতাকর্মিদের আস্থাহীন মেয়াদোর্ত্তীণ ব্যর্থ বর্তমান কমিটির নেতৃত্বে খুলনা বিএনপি আগামী আন্দোলন ও নির্বাচনের জন্য ঐক্যবদ্ধ বিএনপি গঠন সম্ভব নয়। দল গঠনে শুরু থেকে শত পরীক্ষায় উর্ত্তীণ ত্যাগী, সৎ ও সাহসীদের বাদ দিয়ে বিতর্কিত, সমাজে অগ্রহণযোগ্য, অপরাধপ্রবণ, বিগত নির্বাচনগুলিতে সরকারি দলের পক্ষে সরাসরি কাজ করা ব্যক্তি ও ব্যক্তিবিশেষের আজ্ঞাবাহদের দিয়ে কমিটি গঠনের পদক্ষেপ দলের মাঠপর্যায়ের নেতাকর্মিদের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশার সৃষ্টি করায় বর্তমান ধার করা খুলনা বিএনপির উপর কেউ আস্থা রাখতে না পরায় দেড় বছরে কোন কমিটি গঠন করা সম্ভব হয়নি। বরং সৃষ্টি হয়েছে দলের মধ্যে বিশৃঙ্খলা, দলের নেতৃত্ব না মানা, উপদল সৃষ্টি ও কর্মসূচি পালনে কাপুরুষতা ও পলায়নপর মনেবৃত্তি। সভায় দলের প্রতিষ্ঠাকালীন নেতৃবৃন্দ আরও অভিমত ব্যক্ত করেন যে, কেন্দ্রের দায়িত্ব হচ্ছে যে একটি শক্তিশালী ঐক্যবদ্ধ বিএনপি গঠনে প্রয়োজনীয় ও কার্যকর পদক্ষেপ সকল ক্ষেত্রে গ্রহন করা। আমরা আশা করি কেন্দ্রীয় বিএনপি নির্বাচনের স্বার্থে আগামী আন্দোলন ও খুলনায় একটি ঐক্যবদ্ধ বিএনপি গঠন ও ব্যাক্তি স্বার্থেও উর্দ্ধে দলে সৎ ও সাহসী নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করবে। সভা থেকে হাসপাতালে ভর্তি বিএনপি চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় দোয়া করা হয়। এবং তাকে মুক্তি দিয়ে বিদেশে চিকিৎসার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার দাবি জানানো হয়। এছাড়া বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে তার দেশে ফেরার সকল প্রতিবন্ধকতা দুর করার জোর দাবি জানানো হয়। বিএনপি নেতা জাফরউল্লাহ খান সাচ্চু’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় মহানগর, থানা, ওয়ার্ড বিএনপি ও অঙ্গ/সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। সভায় বক্তব্য রাখেন এবং উপস্থিত ছিলেন নজরুল ইসলাম মঞ্জু, খুলনা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মনিরুজ্জামান মনি, মীর কায়সেদ আলী, শেখ মোশাররফ হোসেন, এড. ফজলে হালিম লিটন, শেখ ইকবাল হোসেন, শাহজালাল বাবলু, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, অধ্যাপক আরিফুজ্জামান অপু, সিরাজুল হক নান্নু, আসাদুজ্জামান মুরাদ, এড. গোলাম মাওলা, মেহেদী হাসান দিপু, মহিবুজ্জামান কচি, ইকবাল হোসেন খোকন, আনোয়ার হোসেন, ইস্তিয়াক উদ্দিন লাবলু, নিজামুর রহমান লালু, সাদিকুর রহমান সবুজ, মো. শাহজাহান, ইউসুফ হারুন মজনু, নিয়াজ আহমেদ তুহিন, আবুল কালাম শিকদার, হাসান মেহেদী রিজভী, শরিফুল ইসলাম, তরিকুল্লাহ খান, মীর কবির হোসেন, ইশহাক তালুকদার, ওমর ফারুক, আকরাম হোসেন খোকন, রবিউল ইসলাম রবি, মহিউদ্দিন টারজান, মেজবাহ উদ্দিন মিজু, সরদার রবিউল ইসলাম, শরিফুল ইসলাম বাবু, শামসুজ্জামান চঞ্চল, রফিকুল ইসলাম শুকুর, আব্দুল জলিল, আব্দুল জব্বার, জাহিদ কামাল টিটো, মাহবুব হোসেন, এড. রফিকুল ইসলাম, নুরুল ইসলাম লিটন, আলমগীর হোসেন, রিয়াজুর রহমান, মাজেদা খাতুন, মোহাম্মদ আলী ও শাহনাজ পারভীন। এছাড়াও থানা ও ওয়ার্ড পর্যায়ের বিভিন্ন নেতাকর্মিবৃন্দ। #

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

জনপ্রিয়

কুয়েটে পবিত্র ঈদ-উল-আযহার জামাত সকাল ৭ টায় 

খুলনায় অসাংবিধানিক ও অসচ্ছ ওয়ার্ড কমিটি দিয়ে থানা সম্মেলন বন্ধে চেয়ারপার্সনের হস্তক্ষেপ দাবী বিএনপি’র নেতৃবৃন্দের

প্রকাশিত সময় : ১২:২২:০৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ মে ২০২৩

###    খুলনায় অসাংবিধানিক, অসচ্ছ ও অসম্পূর্ণ ওয়ার্ড পর্যায়ে গঠিত আহবায়ক কমিটি দিয়ে থানা সম্মেলন সম্পন্ন করার বর্তমান খুলনা মহানগর কমিটির পদক্ষেপ বন্ধ করার জন্য দলের সম্মানিত চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের হস্তক্ষেপ কামনা করছি খুলনার রাজপথের আন্দোলন সংগ্রামের ত্যাগী ও পরিক্ষিত রাজনৈতিকবৃন্দ। ১ মে সকালে অনুষ্ঠিত সভায় দলের মহানগর, থানা ও ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ এই অভিমত ব্যক্ত করেন যে, দলের দু:সময়ে দলের প্রাণশক্তি খুলনার রাজপথের কার্যকর নেতৃবৃন্দকে বাদ দিয়ে গঠিত খুলনা মহানগর আহবায়ক কমিটির মেয়াদ তিনমাস হলেও দেড় বছরে কোন থানা ও ওয়ার্ড কমিটি গঠন করতে পারেনি। এমনকী তারা প্রচলিত নিয়মকানুন রীতি ভঙ্গ করে থানা আহবায়ক কমিটি গঠন না করে সরাসরি ওয়ার্ড আহবায়ক কমিটি গঠন করেছে। ৩১ সদস্য বিশিষ্ট ওয়ার্ড আহবায়ক কমিটির অধিকাংশ ক্ষেত্রেই বিএনপি’র উপযুক্ত লোক না পেয়ে অঙ্গ/সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মি যুক্ত করে কমিটি করা হয়েছে। আবার সেই ওয়ার্ডের সম্মলেন না করে পূর্ণাঙ্গ ওয়ার্ড গঠন না করে কাউন্সিলর/ভোটার নির্ধারণ না করেই থানা সম্মেলনের উদ্যোগ গঠনতন্ত্র পরিপন্থী এবং গোঁজামিলের সামিল। নেতাকর্মিদের আস্থাহীন মেয়াদোর্ত্তীণ ব্যর্থ বর্তমান কমিটির নেতৃত্বে খুলনা বিএনপি আগামী আন্দোলন ও নির্বাচনের জন্য ঐক্যবদ্ধ বিএনপি গঠন সম্ভব নয়। দল গঠনে শুরু থেকে শত পরীক্ষায় উর্ত্তীণ ত্যাগী, সৎ ও সাহসীদের বাদ দিয়ে বিতর্কিত, সমাজে অগ্রহণযোগ্য, অপরাধপ্রবণ, বিগত নির্বাচনগুলিতে সরকারি দলের পক্ষে সরাসরি কাজ করা ব্যক্তি ও ব্যক্তিবিশেষের আজ্ঞাবাহদের দিয়ে কমিটি গঠনের পদক্ষেপ দলের মাঠপর্যায়ের নেতাকর্মিদের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশার সৃষ্টি করায় বর্তমান ধার করা খুলনা বিএনপির উপর কেউ আস্থা রাখতে না পরায় দেড় বছরে কোন কমিটি গঠন করা সম্ভব হয়নি। বরং সৃষ্টি হয়েছে দলের মধ্যে বিশৃঙ্খলা, দলের নেতৃত্ব না মানা, উপদল সৃষ্টি ও কর্মসূচি পালনে কাপুরুষতা ও পলায়নপর মনেবৃত্তি। সভায় দলের প্রতিষ্ঠাকালীন নেতৃবৃন্দ আরও অভিমত ব্যক্ত করেন যে, কেন্দ্রের দায়িত্ব হচ্ছে যে একটি শক্তিশালী ঐক্যবদ্ধ বিএনপি গঠনে প্রয়োজনীয় ও কার্যকর পদক্ষেপ সকল ক্ষেত্রে গ্রহন করা। আমরা আশা করি কেন্দ্রীয় বিএনপি নির্বাচনের স্বার্থে আগামী আন্দোলন ও খুলনায় একটি ঐক্যবদ্ধ বিএনপি গঠন ও ব্যাক্তি স্বার্থেও উর্দ্ধে দলে সৎ ও সাহসী নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করবে। সভা থেকে হাসপাতালে ভর্তি বিএনপি চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় দোয়া করা হয়। এবং তাকে মুক্তি দিয়ে বিদেশে চিকিৎসার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার দাবি জানানো হয়। এছাড়া বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে তার দেশে ফেরার সকল প্রতিবন্ধকতা দুর করার জোর দাবি জানানো হয়। বিএনপি নেতা জাফরউল্লাহ খান সাচ্চু’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় মহানগর, থানা, ওয়ার্ড বিএনপি ও অঙ্গ/সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। সভায় বক্তব্য রাখেন এবং উপস্থিত ছিলেন নজরুল ইসলাম মঞ্জু, খুলনা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মনিরুজ্জামান মনি, মীর কায়সেদ আলী, শেখ মোশাররফ হোসেন, এড. ফজলে হালিম লিটন, শেখ ইকবাল হোসেন, শাহজালাল বাবলু, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, অধ্যাপক আরিফুজ্জামান অপু, সিরাজুল হক নান্নু, আসাদুজ্জামান মুরাদ, এড. গোলাম মাওলা, মেহেদী হাসান দিপু, মহিবুজ্জামান কচি, ইকবাল হোসেন খোকন, আনোয়ার হোসেন, ইস্তিয়াক উদ্দিন লাবলু, নিজামুর রহমান লালু, সাদিকুর রহমান সবুজ, মো. শাহজাহান, ইউসুফ হারুন মজনু, নিয়াজ আহমেদ তুহিন, আবুল কালাম শিকদার, হাসান মেহেদী রিজভী, শরিফুল ইসলাম, তরিকুল্লাহ খান, মীর কবির হোসেন, ইশহাক তালুকদার, ওমর ফারুক, আকরাম হোসেন খোকন, রবিউল ইসলাম রবি, মহিউদ্দিন টারজান, মেজবাহ উদ্দিন মিজু, সরদার রবিউল ইসলাম, শরিফুল ইসলাম বাবু, শামসুজ্জামান চঞ্চল, রফিকুল ইসলাম শুকুর, আব্দুল জলিল, আব্দুল জব্বার, জাহিদ কামাল টিটো, মাহবুব হোসেন, এড. রফিকুল ইসলাম, নুরুল ইসলাম লিটন, আলমগীর হোসেন, রিয়াজুর রহমান, মাজেদা খাতুন, মোহাম্মদ আলী ও শাহনাজ পারভীন। এছাড়াও থানা ও ওয়ার্ড পর্যায়ের বিভিন্ন নেতাকর্মিবৃন্দ। #