১১:২৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খুলনায় মে দিবসে বিএনপির কর্মসুচিতে পুলিশের লাঠিচার্জ ও টিয়ারসেল নিক্ষেপ

  • অফিস ডেক্স।।
  • প্রকাশিত সময় : ০১:১৩:০৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ মে ২০২৩
  • ২৭ পড়েছেন

###    খুলনায় শ্রমজীবী মানুষের অধিকার আদায়ের দিন মহান মে দিবসে শ্রমিকদলের কর্মসুচিতে
সরকারের পুলিশ বাহিনী লাঠিচার্জ, টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করেছে। এ সময় পুলিশ মহানগর শ্রমিকদলের সদস্য সচিবসহ দুইজনকে গ্রেফতার ও পুলিশের লাঠিপেটায় ১৫জনকে আহত হয়েছে। খুলনা মহানগর বিএনপির আহবায়ক এড. শফিকুল আলম মনা বলেছেন, আর্ন্তজাতিক মে দিবসে শ্রমিকরা তাদের ন্যায্য অধিকার আদায়ের জন্য রাজপথে নেমেছিলো। এ দিবসে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও শ্রমিক সংগঠনগুলো নানান কর্মসুচি পালন করেন। মে দিবসে কর্মসুচি পালন করাই শ্রমিকদের ঐতিহ্য। খুলনার মানুষ হতবাক হয়েছেন, সকাল থেকে মে দিবসের কর্মসুচিতে বাধাদানের জন্য শত শত পুলিশ বিএনপি অফিস ঘিরে রাখার দৃশ্য দেখে। অবৈধ হাসিনা সরকারের পতনের ঘন্টা বেজে গেছে। সোমবার (০১ মে) দুপুর সাড়ে ১২টায় কেডি ঘোষ রোডস্থ বিএনপি কার্যালয়ে শ্রমিকদলের র‌্যালীতে পুলিশের নির্মম লাঠিচার্জ, টিয়ারসেল নিক্ষেপ, এবং শ্রমিকদলের সদস্য সচিব শফিকুল ইসলাম শফিসহ দুইজনকে গ্রেফতারের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার প্রতিবাদে প্রেসব্রিফিং এ তিনি এসব কথা বলেন। এড. মনা বলেন, খুলনার একশ্রেনীর অতিউৎসাহী পুলিশ সদস্যরা বারবার বিএনপির গনতান্ত্রিক আন্দোলনে বাধা দিয়ে আসছে। প্রতিটি কর্মসুচি পুলিশকে অবহিত করার পরেও তারা বাধা দিচ্ছে-এভাবে আর চলতে দেয়া যায় না। তিনি বলেন পুলিশের বাধামুখে পুর্বনির্ধারিত দলীয় কার্যালয়ে শ্রমিকদলের কর্মসুচি কারার কথা থাকলেও পুলিশের বাধায় তারা বড়বাজার শ্রমিক ইউনিয়ন (১২১২) এর সামনে থেকে সকাল সাড়ে ১০টায় শ্রমিকদলের শান্তিপূর্ণ র‌্যালীতে পুলিশের তান্ডব দেখে খুলনাবাসি ক্ষুব্ধ হয়েছে। প্রেসব্রিফিং থেকে অবিলম্বে শ্রমিকনেতা শফিকুল ইসলাম শফি ও ইসলাম খলিফার নিঃশর্ত মুক্তি ও দোষি পুলিশ সদস্যদের শাস্তির দাবি জানান। প্রেসব্রিফিং এ উপস্থিত ছিলেন, মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব শফিকুল আলম তুহিন, স ম আব্দুর রহমান, কাজী মাহমুদ আলী, শের আলী সান্টু, আবুল কালাম জিয়া, বদরুল আলম খান, চৌধুরী শফিকুল ইসলাম হোসেন, শেখ সাদী, আব্দুর রাজ্জাক, কে এম হুমায়ুন কবির, বিপ্লবুর রহমান কুদ্দুস, সাজ্জাদ হোসেন পরাগ, আবু সাঈদ হাওলাদার আব্বাস, মোল্লা ফরিদ আহমেদ, জাহিদুল হোসেন জাহিদ, মিজানুর রহমান মিলটন, ফারুক হোসেন, মজিবর রহমান, এমদাদ হোসেন, আসাদুজ্জামান আসাদ, স্বেচ্ছাসেবক দলে শফিকুল ইসলাম শাহিন, মুনতাসির আল মামুন, মহিলাদলের এড. তসলিমা খাতুন ছন্দা, শ্রমিকদল নেতা উজ্জল কুমার সাহা প্রমূখ। ##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

জনপ্রিয়

কুয়েটে পবিত্র ঈদ-উল-আযহার জামাত সকাল ৭ টায় 

খুলনায় মে দিবসে বিএনপির কর্মসুচিতে পুলিশের লাঠিচার্জ ও টিয়ারসেল নিক্ষেপ

প্রকাশিত সময় : ০১:১৩:০৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ মে ২০২৩

###    খুলনায় শ্রমজীবী মানুষের অধিকার আদায়ের দিন মহান মে দিবসে শ্রমিকদলের কর্মসুচিতে
সরকারের পুলিশ বাহিনী লাঠিচার্জ, টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করেছে। এ সময় পুলিশ মহানগর শ্রমিকদলের সদস্য সচিবসহ দুইজনকে গ্রেফতার ও পুলিশের লাঠিপেটায় ১৫জনকে আহত হয়েছে। খুলনা মহানগর বিএনপির আহবায়ক এড. শফিকুল আলম মনা বলেছেন, আর্ন্তজাতিক মে দিবসে শ্রমিকরা তাদের ন্যায্য অধিকার আদায়ের জন্য রাজপথে নেমেছিলো। এ দিবসে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও শ্রমিক সংগঠনগুলো নানান কর্মসুচি পালন করেন। মে দিবসে কর্মসুচি পালন করাই শ্রমিকদের ঐতিহ্য। খুলনার মানুষ হতবাক হয়েছেন, সকাল থেকে মে দিবসের কর্মসুচিতে বাধাদানের জন্য শত শত পুলিশ বিএনপি অফিস ঘিরে রাখার দৃশ্য দেখে। অবৈধ হাসিনা সরকারের পতনের ঘন্টা বেজে গেছে। সোমবার (০১ মে) দুপুর সাড়ে ১২টায় কেডি ঘোষ রোডস্থ বিএনপি কার্যালয়ে শ্রমিকদলের র‌্যালীতে পুলিশের নির্মম লাঠিচার্জ, টিয়ারসেল নিক্ষেপ, এবং শ্রমিকদলের সদস্য সচিব শফিকুল ইসলাম শফিসহ দুইজনকে গ্রেফতারের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার প্রতিবাদে প্রেসব্রিফিং এ তিনি এসব কথা বলেন। এড. মনা বলেন, খুলনার একশ্রেনীর অতিউৎসাহী পুলিশ সদস্যরা বারবার বিএনপির গনতান্ত্রিক আন্দোলনে বাধা দিয়ে আসছে। প্রতিটি কর্মসুচি পুলিশকে অবহিত করার পরেও তারা বাধা দিচ্ছে-এভাবে আর চলতে দেয়া যায় না। তিনি বলেন পুলিশের বাধামুখে পুর্বনির্ধারিত দলীয় কার্যালয়ে শ্রমিকদলের কর্মসুচি কারার কথা থাকলেও পুলিশের বাধায় তারা বড়বাজার শ্রমিক ইউনিয়ন (১২১২) এর সামনে থেকে সকাল সাড়ে ১০টায় শ্রমিকদলের শান্তিপূর্ণ র‌্যালীতে পুলিশের তান্ডব দেখে খুলনাবাসি ক্ষুব্ধ হয়েছে। প্রেসব্রিফিং থেকে অবিলম্বে শ্রমিকনেতা শফিকুল ইসলাম শফি ও ইসলাম খলিফার নিঃশর্ত মুক্তি ও দোষি পুলিশ সদস্যদের শাস্তির দাবি জানান। প্রেসব্রিফিং এ উপস্থিত ছিলেন, মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব শফিকুল আলম তুহিন, স ম আব্দুর রহমান, কাজী মাহমুদ আলী, শের আলী সান্টু, আবুল কালাম জিয়া, বদরুল আলম খান, চৌধুরী শফিকুল ইসলাম হোসেন, শেখ সাদী, আব্দুর রাজ্জাক, কে এম হুমায়ুন কবির, বিপ্লবুর রহমান কুদ্দুস, সাজ্জাদ হোসেন পরাগ, আবু সাঈদ হাওলাদার আব্বাস, মোল্লা ফরিদ আহমেদ, জাহিদুল হোসেন জাহিদ, মিজানুর রহমান মিলটন, ফারুক হোসেন, মজিবর রহমান, এমদাদ হোসেন, আসাদুজ্জামান আসাদ, স্বেচ্ছাসেবক দলে শফিকুল ইসলাম শাহিন, মুনতাসির আল মামুন, মহিলাদলের এড. তসলিমা খাতুন ছন্দা, শ্রমিকদল নেতা উজ্জল কুমার সাহা প্রমূখ। ##