১০:৩৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খুলনায় সিত্রাং-এর প্রভাবে মৎস্য কৃষি ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি, দুর্ভোগে মানুষ

  • সংবাদদাতা
  • প্রকাশিত সময় : ০৯:৪৬:৩২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ অক্টোবর ২০২২
  • ৬৬ পড়েছেন

###   খুলনায় সিত্রাং-এর প্রভাবে ঘর বাড়ি, গাছপালা, ভেড়িবাধ ভেঙ্গে দুর্ভোগে পড়েছে কয়রা,দাকোপ,পাইকগাছা, বটিয়াঘাটার সাধারণ মানুষ। কয়রার হরিণখোলাসহ কয়েকটি স্থানে বেড়িবাঁধে ফাটল দেখা দেয়ায় বেড়িবাধ উন্নয়নে কাজ করছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ স্থানীয়রা। মঙ্গলবার সকাল থেকে রৌদ্রজ্জ্বল আবহাওয়া বিরাজ করছে। সেই সাথে ঘুর্ণিঝড়ের প্রভাবে ক্ষয় ক্ষতির চিত্র ফুটে উঠতে শুরু করেছে। সিত্রাংয়ের প্রচন্ড বাতাসে বিভিন্নস্থানে গাছপালা ভেঙ্গে বসত ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। অনেক স্থানে রাস্তাঘাট ভেঙ্গে বন্ধ রয়েছে সড়ক যোগাযোগ। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন অসংখ্য মানুষ। নদ-নদীর পানি নামতে শুরু করলেও এখানো পনি বন্দি রয়েছে অনেক বাড়ীঘর। বৈদ্যুতিক লাইনের উপর গাছপালা উপড়ে পরে খুটি ভেঙ্গে তার ছিড়ে গত দুই দিন ধরে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে অনেক এলাকায়। সোমবার সকাল থেকে শুরু হওয়া প্রবল বাতাস ও বৃষ্টি বন্যার কারনে ক্ষতিগ্রস্থ রাস্তা ও বাঁধগুলোর ক্ষত আরো সস্প্রসারিত হচ্ছে। এর ফলে নিম্নাঞ্চলের অনেক এলাকার পাকা, আধা-পাকা ও কাঁচা রাস্তা ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে যানবাহন ও লোকজন চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং প্রভাবে অনেক সড়ক ও ব্রীজ-কালভার্ট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যানবাহন ও পথচারীদের দূর্ভোগ লাগবে মানুষ গাছ কেটে সাময়িকভাবে চলাচলের ব্যবস্থা করছে। সিত্রাং-এর প্রভাবে নদনদীতে পানি বেড়ে যাওয়ায় হাজারো মৎস্য ঘের ডুবে গেছে। ধানসহ শীতকালীন ফসলের ব্যপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে । তবে কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো: হাফিজুর রহমান জানিয়েছেন, উপজেলা পর্যায়ের কৃষি বিভাগকে ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে ত্যথ সংগ্রহের জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তারা ঘুর্নিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে কৃষি ফসলের ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নিরুপন করতে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে।##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik Madhumati

জনপ্রিয়

ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে গলাচিপায় বেড়েছে বাতাস ও নদীর পানি

খুলনায় সিত্রাং-এর প্রভাবে মৎস্য কৃষি ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি, দুর্ভোগে মানুষ

প্রকাশিত সময় : ০৯:৪৬:৩২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ অক্টোবর ২০২২

###   খুলনায় সিত্রাং-এর প্রভাবে ঘর বাড়ি, গাছপালা, ভেড়িবাধ ভেঙ্গে দুর্ভোগে পড়েছে কয়রা,দাকোপ,পাইকগাছা, বটিয়াঘাটার সাধারণ মানুষ। কয়রার হরিণখোলাসহ কয়েকটি স্থানে বেড়িবাঁধে ফাটল দেখা দেয়ায় বেড়িবাধ উন্নয়নে কাজ করছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ স্থানীয়রা। মঙ্গলবার সকাল থেকে রৌদ্রজ্জ্বল আবহাওয়া বিরাজ করছে। সেই সাথে ঘুর্ণিঝড়ের প্রভাবে ক্ষয় ক্ষতির চিত্র ফুটে উঠতে শুরু করেছে। সিত্রাংয়ের প্রচন্ড বাতাসে বিভিন্নস্থানে গাছপালা ভেঙ্গে বসত ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। অনেক স্থানে রাস্তাঘাট ভেঙ্গে বন্ধ রয়েছে সড়ক যোগাযোগ। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন অসংখ্য মানুষ। নদ-নদীর পানি নামতে শুরু করলেও এখানো পনি বন্দি রয়েছে অনেক বাড়ীঘর। বৈদ্যুতিক লাইনের উপর গাছপালা উপড়ে পরে খুটি ভেঙ্গে তার ছিড়ে গত দুই দিন ধরে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে অনেক এলাকায়। সোমবার সকাল থেকে শুরু হওয়া প্রবল বাতাস ও বৃষ্টি বন্যার কারনে ক্ষতিগ্রস্থ রাস্তা ও বাঁধগুলোর ক্ষত আরো সস্প্রসারিত হচ্ছে। এর ফলে নিম্নাঞ্চলের অনেক এলাকার পাকা, আধা-পাকা ও কাঁচা রাস্তা ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে যানবাহন ও লোকজন চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং প্রভাবে অনেক সড়ক ও ব্রীজ-কালভার্ট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যানবাহন ও পথচারীদের দূর্ভোগ লাগবে মানুষ গাছ কেটে সাময়িকভাবে চলাচলের ব্যবস্থা করছে। সিত্রাং-এর প্রভাবে নদনদীতে পানি বেড়ে যাওয়ায় হাজারো মৎস্য ঘের ডুবে গেছে। ধানসহ শীতকালীন ফসলের ব্যপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে । তবে কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো: হাফিজুর রহমান জানিয়েছেন, উপজেলা পর্যায়ের কৃষি বিভাগকে ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে ত্যথ সংগ্রহের জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তারা ঘুর্নিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে কৃষি ফসলের ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নিরুপন করতে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে।##