০৯:২৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
২৫ জানুয়ারি জেলা আ’লীগের নির্বাহী কমিটির সভায় ৮টি উপজেলায় সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা

খুলনার নয় উপজেলা আ’লীগের সম্মেলন: শীর্ষ পদে সম্ভাব্য প্রার্থী ৪৭

  • সংবাদদাতা
  • প্রকাশিত সময় : ১১:৪৮:১৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
  • ৪২ পড়েছেন

দীর্ঘ  দিন পর হলেও অবশেষে করোনা পরিস্থিতি কাটিয়ে খুলনার আটটি উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন হতে যাচ্ছে। পাইকগাছা বাদে ৮ উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের তারিখ ইতোমধ্যে নির্ধারণও করা হয়েছে। আটটি উপজেলায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে ৪৭ জন সম্ভাব্য প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে। এর মধ্যে সভাপতি পদে ১৪ ও সাধারণ সম্পাদক পদে ৩৩ জন রয়েছে।

প্রত্যেকটি উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের মেয়াদ অনেক বছর আগেই উত্তীর্ণ হয়ে গেছে। দীর্ঘ বছর পর সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ হওয়ায় শীর্ষ দু’টি পদে পদ প্রত্যাশী ও তাদের অনুসারিদের মধ্যে বিরাজ করছে ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনা। নেতৃত্ব প্রত্যাশীদের আমলনামার উপরে নির্ভর করবে আগামী দিনের নেতৃত্ব। দলের ত্যাগী ও পরীক্ষিত কর্মী তাদেরকে মূল্যয়ন করা হবে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। সম্মেলনকে ঘিরে প্রত্যেকটি উপজেলা এখন সরব। উপজেলার দোকানপাটগুলোতে বসে চলছে প্রার্থীদের বিগত দিনের ভালো-মন্দের হিসাব-নিকাশ।

আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি কয়রা উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ হয়েছে। এতে সভাপতি পদে তিন ও সাধারণ সম্পাদক পদে আট জনের নাম শোনা যাচ্ছে। সভাপতি পদে হলেন বর্তমানে কয়রা উপজেলা আ’লীগের সভাপতি জি এম মহসীন রেজা, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এবং কয়রা উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এস এম শফিকুল ইসলাম ও বাগালি ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি মোঃ সাত্তার পাড়। সাধারণ সম্পাদক পদে যারা বর্তমানে কয়রা উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক নিশিত রঞ্জন মিস্ত্রী, উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান এস এম বাহারুল ইসলাম, মহারাজপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, আ’লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির নেতা সাইফুল্লাহ আল মামুন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি এড. মোশারফ হোসেন, উপজেলা আ’লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বিজয় কুমার সরদার, উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জাফরুল পাড়, প্রভাষক চয়ন কুমার রায় ও অধ্যক্ষ অদৃশ্য আদিত্য মন্ডল। দাকোপ উপজেলা আ’লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারি । এতে সভাপতি পদে দুই ও সাধারণ সম্পাদক পদে দুই জনের নাম শোনা যাচ্ছে।সভাপতি পদপ্রার্থীরা হচ্ছেন উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ আবুল হোসেন, উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শেখ যুবরাজ। সাধারণ সম্পাদক পদে রয়েছেন উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও দাকোপ ইউপি চেয়ারম্যান বিনয় কৃষ্ণ রায়, উপজেলা আ’লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এবং কৈলাশগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান মিহির মন্ডল। ডুমুরিয়া উপজেলা আ’লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন আগামী ১৯ ফেব্রুয়ারি । এ উপজেলায় সভাপতি পদে তিন জন ও সাধারণ সম্পাদক পদে সাত জনের নাম শোনা যাচ্ছে।সভাপতি পদে হলেন খুলনা-৫ আসনের সংসদ সদস্য ও বর্তমানে ডুমুরিয়া উপজেলা আ’লীগের সভাপতি নারায়ণ চন্দ্র চন্দ্র, জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি মোঃ মোস্তফা কামাল খোকন। সাধারণ সম্পাদক পদ প্রাথীর হচ্ছেন উপজেলা আওিয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শাহনেওয়াজ হোসেন জোরদ্দার, জেলা আওিয়ামী লীগের সদস্য ও উপজেলা চেয়ারম্যান গাজী এজাজ আহমেদ। তিনি জেলা আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও ডুমুরিয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যানের ছেলে। এছাড়াও এ পদ প্রত্যাশীরা হলেন- উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা যুবলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম ফারুক হোসেন, উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী আলমগীর হোসেন, উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি শেখ নাজিবুর রহমান, উপজেলা আ’লীগের সদস্য ও আটলিয়া ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান প্রতাপ কুমার রায়, উপজেলা আ’লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক এবং উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহবায়ক সরদার আব্দুল গণি, উপজেলা আ’লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এবং জেলা যুবলীগের সাবেক সদস্য মোল্লা সোহেল রানা । বটিয়াঘাটা উপজেলা আ’লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি । সম্মেলনে সভাপতি পদে একমাত্র প্রার্থী মোঃ আশরাফুল আলম খানের নাম শোনা যাচ্ছে। বর্তমানে বটিয়াঘাটা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান। সাধারণ সম্পাদক পদে হচ্ছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক দিলীপ হালদার। আগামী ২৩ ফেব্রুয়ারি ফুলতলা উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। সম্মেলনে সভাপতি পদে একমাত্র শেখ আকরাম হোসেনের নাম শোনা যাচ্ছে। তিনি বর্তমানে ফুলতলা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য। সাধারণ সম্পাদক পদে পাঁচ জনের নাম শোনা যাচ্ছে। এর মধ্যে ফুলতলা উপজেলা আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এস মৃণাল হাজরা, উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু তাহের রিপন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও জেলা যুবলীগের সাবেক সহ-সভাপতি জিয়া হাসান তুহিন, জেলা আ’লীগের সদস্য বিলকিস আক্তার দারা, উপজেলার ২নং দামোদর ইউপি চেয়ারম্যান শরিফ মোঃ শিপলু ভূঁইয়া। আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি দিঘলিয় উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সভাপতি পদে একজন ও সাধারণ সম্পাদক পদে চার জনের নাম শোনা যাচ্ছে।সভাপতি পদে হলেন উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান খান নজরুল ইসলাম। এছাড়া সাধারণ সম্পাদক পদে বর্তমান উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মোল­া আকরাম হোসেন, দুইবার সেনহাটী ইউপি চেয়ারম্যান গাজী জিয়াউর রহমান, উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আলী রেজা বাছা, উপজেলা আ’লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক সেলিম মলি­ক। তিনি নগরীর হাজী মোহাম্মদ মহসীন কলেজের ভিপি ছিলেন। আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি রূপসা উপজেলা আ’লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সভাপতি পদে পাঁচজনের নাম শোনা যাচ্ছে। এরা হলেন মোঃ কামাল উদ্দিন বাদশা, আইয়ুব মলি­ক বাবু, মোর্শেদুল আলম বাবু, আজিজুল হক কাজল, সোহেল জুনায়েদ। সাধারণ সম্পাদক পদে নয়জনের নাম শোনা যাচ্ছে। এরা হলেন সরদার আবুল কাশেম ডাবলু, অধ্যাপক শ্যামল কুমার দাস, মোঃ ইমদাদুল ইসলাম, এস এম হাবিব, সরদার ফেরদৌস আহমেদ, চঞ্চল মিত্র, শ ম জাহাঙ্গীর, মোঃ জাহাঙ্গীর শেখ, মোল­া ওয়াহিদুজ্জামান মিজান। সভাপতি পদে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ কামাল উদ্দিন বাদশা, উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আইয়ুব মলি­ক বাবু, উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি মোর্শেদুল আলম বাবু, জেলা যুবলীগের সাবেক সহ-সভাপতি আজিজুল হক কাজল। এছাড়া সাধারণ সম্পাদক পদে উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক সরদার আবুল কাশেম ডাবলু। তিনি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ট্রেজারার ও খুলনা জেলা আ’লীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সরদার আব্দুর রাজ্জাকের ভাইপো, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক অধ্যাপক ডাঃ শ্যামল কুমার দাস প্রয়াত সুবোধ কুমার দাসের ছেলে। আরেক প্রার্থী উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইমদাদুল ইসলাম, উপজেলা সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক (১ম) এস এম হাবিব। তিনি আলাইপুর ডিগ্রী কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।  উপজেলা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি অধ্যাপক সরদার ফেরদৌস আহমেদ। তিনি দীর্ঘদিন রূপসার আইচগাতী ইউনিয়নের মানচিত্রে সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজের অফিসার ইনচার্জ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন।  সাধারণ সম্পাদক পদে আরেকজন হলেন চঞ্চল মিত্র। তিনি বর্তমানে উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্বে আছেন। উপজেলা আ’লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক শ ম জাহাঙ্গীর, উপজেলা আ’লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক সোহেল জুনায়েদ, টিএসবি ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি ও টিএসবি ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ জাহাঙ্গীর শেখ, ঘাটভোগ ইউনিয়ন আ’লীগের সাবেক সভাপতি মোল­া ওয়াহিদুজ্জামান মিজান। বর্তমানে তিনি ঘাটভোগ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।এছাড়া,আগামী ২৮ ফেব্র“য়ারি তেরখাদা উপজেলা আ’লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। সম্মেলনে সভাপতি পদে দুই জন ও সাধারণ সম্পাদক পদে তিন জনের নাম শোনা যাচ্ছে। সভাপতি পদে হলেন বর্তমানে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান এফ এম ওয়াহিদুজ্জামান, উপজলো পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুল  ইসলাম। সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থীরা হলেন বর্তমানে উপজলো আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বারাসাত ইউপি চেয়ারম্যান কে এম আলমগীর হোসনে, উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য এফ এম মফজিুর রহমান, উপজলো আ’লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বাছিতুল হাবিব প্রিন্স।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, এসব উপজেলার সম্মেলনে আ’লীগের খুলনা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক উপস্থিত থাকবেন।
উলে­খ্য, গত ২৫ জানুয়ারি জেলা আ’লীগের নির্বাহী কমিটির সভায় ৮টি উপজেলায় সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করা হয়। উপজেলাগুলো যথাক্রমে কয়রা ১৫ ফেব্রুয়ারি, দাকোপ ১৬ ফেব্রুয়ারি, ডুমুরিয়া ১৯ ফেব্রুয়ারি, বটিয়াঘাটা ২০ ফেব্রুয়ারি, ফুলতলা ২৩ ফেব্রুয়ারি, দিঘলিয়া ২৬ ফেব্রুয়ারি, রূপসা ২৭ ফেব্রুয়ারি এবং তেরখাদা ২৮ ফেব্রুয়ারি। তবে পাইকগাছা উপজেলা আ’লীগের মেয়াদ শেষ না হওয়ায় সেখানে আপাতত সম্মেলন হবে না।
এসব উপজেলায় বসবাসরত জেলার নেতৃবৃন্দ ও স্থানীয় সংসদ সদস্য, উপজেলা আ’লীগ নেতৃবৃন্দ এবং জেলা আ’লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের সাথে সমন্বয় রেখে বর্ধিত সভা করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। অনুরূপভাবে ইউনিয়ন ও উপজেলা আ’লীগের সাথে সমন্বয় রেখে বর্ধিত সভা করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সভায় সম্মেলনের পূর্বে উপজেলা আ’লীগের (উপজেলার আওতাধীন, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড কমিটিতে) কোন সদস্যকে সংযোজন ও বিয়োজন করা যাবে না বলে নির্দেশনা দেয়া হয়। এছাড়া এককভাবে কোন নেতা ব্যক্তিগত উদ্যোগে যে কোন প্রকার সভা-সমাবেশ করে দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ না করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন খুলনা জেলা আ’লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ হারুনুর রশীদ ও সাধারণ সম্পাদক এড. সুজিত অধিকারী।

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

জনপ্রিয়

চিতলমারীতে উপজেলা চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আলমগীর সিদ্দিকীর সংবাদ সম্মেলন

২৫ জানুয়ারি জেলা আ’লীগের নির্বাহী কমিটির সভায় ৮টি উপজেলায় সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা

খুলনার নয় উপজেলা আ’লীগের সম্মেলন: শীর্ষ পদে সম্ভাব্য প্রার্থী ৪৭

প্রকাশিত সময় : ১১:৪৮:১৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

দীর্ঘ  দিন পর হলেও অবশেষে করোনা পরিস্থিতি কাটিয়ে খুলনার আটটি উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন হতে যাচ্ছে। পাইকগাছা বাদে ৮ উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের তারিখ ইতোমধ্যে নির্ধারণও করা হয়েছে। আটটি উপজেলায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে ৪৭ জন সম্ভাব্য প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে। এর মধ্যে সভাপতি পদে ১৪ ও সাধারণ সম্পাদক পদে ৩৩ জন রয়েছে।

প্রত্যেকটি উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের মেয়াদ অনেক বছর আগেই উত্তীর্ণ হয়ে গেছে। দীর্ঘ বছর পর সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ হওয়ায় শীর্ষ দু’টি পদে পদ প্রত্যাশী ও তাদের অনুসারিদের মধ্যে বিরাজ করছে ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনা। নেতৃত্ব প্রত্যাশীদের আমলনামার উপরে নির্ভর করবে আগামী দিনের নেতৃত্ব। দলের ত্যাগী ও পরীক্ষিত কর্মী তাদেরকে মূল্যয়ন করা হবে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। সম্মেলনকে ঘিরে প্রত্যেকটি উপজেলা এখন সরব। উপজেলার দোকানপাটগুলোতে বসে চলছে প্রার্থীদের বিগত দিনের ভালো-মন্দের হিসাব-নিকাশ।

আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি কয়রা উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ হয়েছে। এতে সভাপতি পদে তিন ও সাধারণ সম্পাদক পদে আট জনের নাম শোনা যাচ্ছে। সভাপতি পদে হলেন বর্তমানে কয়রা উপজেলা আ’লীগের সভাপতি জি এম মহসীন রেজা, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এবং কয়রা উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এস এম শফিকুল ইসলাম ও বাগালি ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি মোঃ সাত্তার পাড়। সাধারণ সম্পাদক পদে যারা বর্তমানে কয়রা উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক নিশিত রঞ্জন মিস্ত্রী, উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান এস এম বাহারুল ইসলাম, মহারাজপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, আ’লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির নেতা সাইফুল্লাহ আল মামুন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি এড. মোশারফ হোসেন, উপজেলা আ’লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বিজয় কুমার সরদার, উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জাফরুল পাড়, প্রভাষক চয়ন কুমার রায় ও অধ্যক্ষ অদৃশ্য আদিত্য মন্ডল। দাকোপ উপজেলা আ’লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারি । এতে সভাপতি পদে দুই ও সাধারণ সম্পাদক পদে দুই জনের নাম শোনা যাচ্ছে।সভাপতি পদপ্রার্থীরা হচ্ছেন উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ আবুল হোসেন, উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শেখ যুবরাজ। সাধারণ সম্পাদক পদে রয়েছেন উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও দাকোপ ইউপি চেয়ারম্যান বিনয় কৃষ্ণ রায়, উপজেলা আ’লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এবং কৈলাশগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান মিহির মন্ডল। ডুমুরিয়া উপজেলা আ’লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন আগামী ১৯ ফেব্রুয়ারি । এ উপজেলায় সভাপতি পদে তিন জন ও সাধারণ সম্পাদক পদে সাত জনের নাম শোনা যাচ্ছে।সভাপতি পদে হলেন খুলনা-৫ আসনের সংসদ সদস্য ও বর্তমানে ডুমুরিয়া উপজেলা আ’লীগের সভাপতি নারায়ণ চন্দ্র চন্দ্র, জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি মোঃ মোস্তফা কামাল খোকন। সাধারণ সম্পাদক পদ প্রাথীর হচ্ছেন উপজেলা আওিয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শাহনেওয়াজ হোসেন জোরদ্দার, জেলা আওিয়ামী লীগের সদস্য ও উপজেলা চেয়ারম্যান গাজী এজাজ আহমেদ। তিনি জেলা আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও ডুমুরিয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যানের ছেলে। এছাড়াও এ পদ প্রত্যাশীরা হলেন- উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা যুবলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম ফারুক হোসেন, উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী আলমগীর হোসেন, উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি শেখ নাজিবুর রহমান, উপজেলা আ’লীগের সদস্য ও আটলিয়া ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান প্রতাপ কুমার রায়, উপজেলা আ’লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক এবং উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহবায়ক সরদার আব্দুল গণি, উপজেলা আ’লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এবং জেলা যুবলীগের সাবেক সদস্য মোল্লা সোহেল রানা । বটিয়াঘাটা উপজেলা আ’লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি । সম্মেলনে সভাপতি পদে একমাত্র প্রার্থী মোঃ আশরাফুল আলম খানের নাম শোনা যাচ্ছে। বর্তমানে বটিয়াঘাটা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান। সাধারণ সম্পাদক পদে হচ্ছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক দিলীপ হালদার। আগামী ২৩ ফেব্রুয়ারি ফুলতলা উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। সম্মেলনে সভাপতি পদে একমাত্র শেখ আকরাম হোসেনের নাম শোনা যাচ্ছে। তিনি বর্তমানে ফুলতলা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য। সাধারণ সম্পাদক পদে পাঁচ জনের নাম শোনা যাচ্ছে। এর মধ্যে ফুলতলা উপজেলা আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এস মৃণাল হাজরা, উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু তাহের রিপন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও জেলা যুবলীগের সাবেক সহ-সভাপতি জিয়া হাসান তুহিন, জেলা আ’লীগের সদস্য বিলকিস আক্তার দারা, উপজেলার ২নং দামোদর ইউপি চেয়ারম্যান শরিফ মোঃ শিপলু ভূঁইয়া। আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি দিঘলিয় উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সভাপতি পদে একজন ও সাধারণ সম্পাদক পদে চার জনের নাম শোনা যাচ্ছে।সভাপতি পদে হলেন উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান খান নজরুল ইসলাম। এছাড়া সাধারণ সম্পাদক পদে বর্তমান উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মোল­া আকরাম হোসেন, দুইবার সেনহাটী ইউপি চেয়ারম্যান গাজী জিয়াউর রহমান, উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আলী রেজা বাছা, উপজেলা আ’লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক সেলিম মলি­ক। তিনি নগরীর হাজী মোহাম্মদ মহসীন কলেজের ভিপি ছিলেন। আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি রূপসা উপজেলা আ’লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সভাপতি পদে পাঁচজনের নাম শোনা যাচ্ছে। এরা হলেন মোঃ কামাল উদ্দিন বাদশা, আইয়ুব মলি­ক বাবু, মোর্শেদুল আলম বাবু, আজিজুল হক কাজল, সোহেল জুনায়েদ। সাধারণ সম্পাদক পদে নয়জনের নাম শোনা যাচ্ছে। এরা হলেন সরদার আবুল কাশেম ডাবলু, অধ্যাপক শ্যামল কুমার দাস, মোঃ ইমদাদুল ইসলাম, এস এম হাবিব, সরদার ফেরদৌস আহমেদ, চঞ্চল মিত্র, শ ম জাহাঙ্গীর, মোঃ জাহাঙ্গীর শেখ, মোল­া ওয়াহিদুজ্জামান মিজান। সভাপতি পদে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ কামাল উদ্দিন বাদশা, উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আইয়ুব মলি­ক বাবু, উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি মোর্শেদুল আলম বাবু, জেলা যুবলীগের সাবেক সহ-সভাপতি আজিজুল হক কাজল। এছাড়া সাধারণ সম্পাদক পদে উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক সরদার আবুল কাশেম ডাবলু। তিনি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ট্রেজারার ও খুলনা জেলা আ’লীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সরদার আব্দুর রাজ্জাকের ভাইপো, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক অধ্যাপক ডাঃ শ্যামল কুমার দাস প্রয়াত সুবোধ কুমার দাসের ছেলে। আরেক প্রার্থী উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইমদাদুল ইসলাম, উপজেলা সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক (১ম) এস এম হাবিব। তিনি আলাইপুর ডিগ্রী কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।  উপজেলা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি অধ্যাপক সরদার ফেরদৌস আহমেদ। তিনি দীর্ঘদিন রূপসার আইচগাতী ইউনিয়নের মানচিত্রে সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজের অফিসার ইনচার্জ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন।  সাধারণ সম্পাদক পদে আরেকজন হলেন চঞ্চল মিত্র। তিনি বর্তমানে উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্বে আছেন। উপজেলা আ’লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক শ ম জাহাঙ্গীর, উপজেলা আ’লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক সোহেল জুনায়েদ, টিএসবি ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি ও টিএসবি ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ জাহাঙ্গীর শেখ, ঘাটভোগ ইউনিয়ন আ’লীগের সাবেক সভাপতি মোল­া ওয়াহিদুজ্জামান মিজান। বর্তমানে তিনি ঘাটভোগ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।এছাড়া,আগামী ২৮ ফেব্র“য়ারি তেরখাদা উপজেলা আ’লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। সম্মেলনে সভাপতি পদে দুই জন ও সাধারণ সম্পাদক পদে তিন জনের নাম শোনা যাচ্ছে। সভাপতি পদে হলেন বর্তমানে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান এফ এম ওয়াহিদুজ্জামান, উপজলো পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুল  ইসলাম। সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থীরা হলেন বর্তমানে উপজলো আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বারাসাত ইউপি চেয়ারম্যান কে এম আলমগীর হোসনে, উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য এফ এম মফজিুর রহমান, উপজলো আ’লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বাছিতুল হাবিব প্রিন্স।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, এসব উপজেলার সম্মেলনে আ’লীগের খুলনা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক উপস্থিত থাকবেন।
উলে­খ্য, গত ২৫ জানুয়ারি জেলা আ’লীগের নির্বাহী কমিটির সভায় ৮টি উপজেলায় সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করা হয়। উপজেলাগুলো যথাক্রমে কয়রা ১৫ ফেব্রুয়ারি, দাকোপ ১৬ ফেব্রুয়ারি, ডুমুরিয়া ১৯ ফেব্রুয়ারি, বটিয়াঘাটা ২০ ফেব্রুয়ারি, ফুলতলা ২৩ ফেব্রুয়ারি, দিঘলিয়া ২৬ ফেব্রুয়ারি, রূপসা ২৭ ফেব্রুয়ারি এবং তেরখাদা ২৮ ফেব্রুয়ারি। তবে পাইকগাছা উপজেলা আ’লীগের মেয়াদ শেষ না হওয়ায় সেখানে আপাতত সম্মেলন হবে না।
এসব উপজেলায় বসবাসরত জেলার নেতৃবৃন্দ ও স্থানীয় সংসদ সদস্য, উপজেলা আ’লীগ নেতৃবৃন্দ এবং জেলা আ’লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের সাথে সমন্বয় রেখে বর্ধিত সভা করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। অনুরূপভাবে ইউনিয়ন ও উপজেলা আ’লীগের সাথে সমন্বয় রেখে বর্ধিত সভা করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সভায় সম্মেলনের পূর্বে উপজেলা আ’লীগের (উপজেলার আওতাধীন, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড কমিটিতে) কোন সদস্যকে সংযোজন ও বিয়োজন করা যাবে না বলে নির্দেশনা দেয়া হয়। এছাড়া এককভাবে কোন নেতা ব্যক্তিগত উদ্যোগে যে কোন প্রকার সভা-সমাবেশ করে দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ না করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন খুলনা জেলা আ’লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ হারুনুর রশীদ ও সাধারণ সম্পাদক এড. সুজিত অধিকারী।