০৫:২৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খুলনায় বাঁধা ডিঙ্গিয়ে যে কোন মূল্যে গণ সমাবেশ কর্মসূচি সফল করা হবে : এ্যাড. মনা

###   খুলনায় দেশবিরোধী ফ্যাসিস্ট সরকারের পতন নিশ্চিতে রাজপথের আন্দোলন তরান্বিত করতে সর্ববৃহৎ গণসমাবেশের প্রস্ততি নিয়েছে বিএনপি। কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে আগামী ২২অক্টোবর শনিবার খুলনায় এ গণসমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। খুলনা বিভাগের ১০জেলা থেকে লক্ষাধিক নেতাকর্মী জমায়েত হবেন। গণসমাবেশ কর্মসূচির জন্য নগরীর শহিদ হাদিস পার্ককে ভেন্যু নির্ধারণ করে চলছে প্রস্ততি। সকল সমাবেশ সফল করতে নেতাকর্মীদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। প্রয়োজনে বাঁশের লাঠিতে জাতীয় পতাকা বেঁধে কর্মসচিতে যোগ দেবেন তারা। শান্তিপূর্ণভাবে গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনে সহায়তার জন্য প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সকল কর্তৃপক্ষের কাছে বিএনপির পক্ষ থেকে সহায়তা কামনা করা হয়েছে। বিভাগীয় গণসমাবেশ সফল করতে খুলনা মহানগর ও জেলা বিএনপির যৌথ প্রস্ততি সভা থেকে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। বুধবার কে ডি ঘোষ রোডস্থ দলীয় কাযালয়ে অনুষ্ঠিত প্রস্ততি সভায় সভাপতিত্ব করেন মহানগর আহবায়ক শফিকুল আলম মনা। গণবিরোধী কর্তৃত্ববাদী ফ্যাসিস্ট আওয়ামী লীগ সরকার কর্তৃক জ্বালানী তেল, চাল, ডাল তেলসহ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যমূল্য বৃদ্ধি, ভোলায় নুরে আলম, আব্দুর রহিম, নারায়নগঞ্জে শাওন, মুন্সিগঞ্জে শহিদুল ইসলাম শাওনকে গুলি করে, যশোরে আব্দুল আলিমকে আওয়ামী সন্ত্রাসী কর্তৃক নির্মমভাবে হত্যার প্রতিবাদে, বিএনপির চেয়ারপার্সন মাদার অব ডেমোক্রেসি সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং দেশব্যাপী দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর হামলা মামলার প্রতিবাদে আগামী ২২অক্টোবর শনিবার খুলনায় বিভাগীয় গণ সমাবেশ করবে বিএনপি। যৌথ প্রস্ততি সভা থেকে গণ সমাবেশ কর্মসূচি সফল করতে ১৪টি উপ কমিটি গঠন করা হয়। আজিজুল বারী হেলাল  ও রকিবুল ইসলাম বকুলকে উপদেষ্টা এবং শফিকুল আলম মনাকে আহবায়ক, শফিকুল আলম তুহিনকে সদস্য সচিব এবং আমীর এজাজ খান, মনিরুল হাসান বাপ্পী ও তারিকুল ইসলাম জহিরকে সদস্য করে অর্থ উপ কমিটি। মনিরুল হাসান বাপ্পীকে আহবায়ক ও আবু হোসেন বাবুকে সদস্য সচিব করে জেলা এবং শফিকুল আলম তুহিনকে আহবায়ক ও আবুল কালাম জিয়াকে সদস্য সচিব করে মহানগর সাংগঠনিক উপ কমিটি। শামীম কবিরকে আহবায়ক ও আশরাফুল আলম নান্নুকে সদস্য সচিব করে জেলা এবং মাসুদ পারভেজ বাবুকে আহবায়ক ও শেখ সাদীকে সদস্য সচিব করে প্রচার উপ কমিটি। কাজী মাহমুদ আলীকে আহবায়ক ও হ্সাানুর রশিদ মিরাজ ও মোল্লা ফরিদ আহমেদকে যুগ্ম আহবায়ক করে মঞ্চ ব্যবস্থাপনা উপ কমিটি। মুরশিদুর রহমান লিটনকে আহবায়ক ও মোঃ শরিফুল ইসলাম টিপুকে সদস্য সচিব করে দপ্তর উপ কমিটি। স ম আব্দুর রহমানকে আহবায়ক ও মোল্লা খায়রুল ইসলামকে সদস্য সচিব করে পরিবহন ও যোগাযোগ উপ কমিটি। এহতেশামুল হক শাওনকে আহবায়ক, মিজানুর রহামন মিলটনকে সদস্য সচিব, রফিকুল ইসলাম বাবু, তানভিরুল আযম রুম্মান, রকিবুল ইসলাম মতি ও মোঃ আশরাফুল ইসলামকে সদস্য করে মিডিয়া উপকমিটি। ডা. আবু জাফর মোঃ সালেহ পলাশকে আহবায়ক করে চিকিৎসা সেবা উপ কমিটি। মাহবুব হাসান পিয়ারুকে আহবায়ক, শেখ তৈয়েবুর রহমান, ইবাদুল হক রুবায়েদ, আতাউর রহমান রুনুকে যুগ্ম আহবায়ক ও নাজমুল হুদা চৌধুরী সাগরকে সদস্য সচিব করে সাজসজ্জা উপকমিটি। আমীর এজাজ খানকে আহবায়ক এবং শফিকুল আলম তুহিন, মনিরুল হাসান বাপ্পী, তারিকুল ইসলাম জহির, আবু হোসেন বাবু, সৈয়দা রেহানা ঈসা ও এ্যাড. ইুরুল হাসান রুবাকে সদস্য করে অভ্যর্থনা উপকমিটি। আশরাফুল আলম নান্নু, একরামুল হক হেলাল ও কে এম হুমায়ুন কবিরের নেতৃত্বে হোটেল ব্যবস্থাপনা উপকমিটি। বদরুল আনাম খান, একরামুল হক হেলাল ও আলী আক্কাসের সমন্বয়ে আপ্যায়ন উপ কমিটি। খান জুলফিকার আলী জুলুকে আহবায়ক, শের আলম সান্টুকে সদস্য সচিব এবং সকল অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বা আহবায়ক ও সদস্য সচিবের সমন্বয়ে শৃঙ্খলা উপকমিটি। এ্যাড. নুরুল হাসান রুবাকে আহবায়ক, এ্যাড. মাসুম রশিদ, এ্যাড. তৌহিদুর রহমান চৌধুরী তুষার ও এ্যাড. শহিদুল ইসলামকে সদস্য করে আইনী সহায়তা উপকমিটি গঠন করা হয়।

মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব শফিকুল আলম তুহিন ও জেলা সদস্য সচিব মনিরুল হাসান বাপ্পীর সঞ্চালনায় প্রস্ততি সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির আহবায়ক আমীর এজাজ খান, শেখ আবু হোসেন বাবু, কাজী মোঃ রাশেদ, সৈয়দা রেহানা ঈসা, এ্যাড. নুরুল হাসান রুবা, কাজী মাহমুদ আলী, শের আলম সান্টু, মোস্তফা উল বারী লাভলু, আবুল কালাম জিয়া, মোল্লা মোশারফ হোসেন মফিজ, বদরুল আনাম খান, অধ্যাপক মনিরুল হক বাবুল, মাহবুব হাসান পিয়ারু, শেখ তৈয়েবুর রহমান, চৌধুরী শফিকুল ইসলাম হোসেন, শামীম কবির, একরামুল হক হেলাল, আশরাফুল আলম নান্নু, মাসুদ পারভেজ বাবু, শামসুল আলম পিন্টু, শেখ সাদী, হাসানুর রশিদ চৌধুরী মিরাজ, এনামুল হক সজল, চৌধুরী কওসার আলী, আব্দুর রাজ্জাক, হাফিজুর রহমান মনি, খায়রুল ইসলাম খান জনি, শেখ শাহিনুল  ইসলাম পাখী, অসিত কুমার সাহা, মুরশিদ কামাল, আরিফ ইমতিয়াজ খান তুহিন, ইলিয়াস হোসেন মল্লিক, কে এম হুমায়ুন কবির, বিপ্লবুর রহমান কুদ্দুস, সাজ্জাদ হোসেন তোতন, মোঃ হাফিজুর রহমান, কাজী মিজানুর রহমান, সুলতান মাহমুদ, এহতেশামুল হক শাওন, মনিরুজ্জামান লেলিন, একরামুল কবির মিল্টন, জহর মীর, এস এম মুরশিদুর রহমান লিটন, নাজিরউদ্দিন নান্নু, শেখ ইমাম হোসেন, হাসানউল্লাহ বুলবুল, খন্দকার ফারুক হোসেন, এ্যাড. মোহাম্মদ আলী বাবু, সরোয়ার হোসেন, মোঃ জামালউদ্দিন, আবু সাঈদ হাওলাদার আব্বাস, গাজী আফসার উদ্দিন, মোল্লা ফরিদ আহমেদ, সরদার আব্দুল মালেক, আনসার আলী, নাসির খান, আব্দুস সালাম, আলমগীর হোসেন, আব্দুর রহমান ডিনো,  ফারুক হোসেন হিলটন, গাজী আব্দুল হালিম, তরিকুল ইসলাম, দিদারুল হোসেন, মোঃ জাহিদুল হোসেন জাহিদ, জাফরী নেওয়াজ চন্দন, মিজানুর রহমান মিলটন, শফিকুল ইসলাম শফি, আলী আক্কাস, ফারুক হোসেন, মুজিবর রহমান, মহিলা দলের এ্যাড. তছলিমা খাতুন ছন্দা, এ্যাড. কানিজ ফাতেমা আমিন, সেতারা সুলতানা, যুবদলের আব্দুল আজিজ সুমন, ছাত্রদলের আব্দুল মান্নান মিস্ত্রি, গোলাম মোস্তফা তুহিন, মোঃ তাজিম বিশ্বাস, স্বেচ্ছাসেবক দলের আতাউর রহমান রুনু, শফিকুল ইসলাম শাহিন, ওয়াহিদুজ্জামান হাওলাদার, মুনতাসির আল মামুন, কৃষক দলের মোল্লা কবির হোসেন, আক্তারুজ্জামান তালুকদার সজীব, শেখ আদনান ইসলাম দীপ, শ্রমিক দলের খান ইসমাইল হোসেন, তাঁতী দলের আবু সাঈদ শেখ, ম শা আলম, মৎস্যজীবী দলের আজিজুল ইসলাম, জাসাসের শহিদুল ইসলাম, মোঃ আশরাফুল ইসলাম প্রমুখ। #

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik Madhumati

জনপ্রিয়

দেবহাটা রিপোর্টার্স ক্লাবের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত 

খুলনায় বাঁধা ডিঙ্গিয়ে যে কোন মূল্যে গণ সমাবেশ কর্মসূচি সফল করা হবে : এ্যাড. মনা

প্রকাশিত সময় : ০১:৩৪:৩০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ অক্টোবর ২০২২

###   খুলনায় দেশবিরোধী ফ্যাসিস্ট সরকারের পতন নিশ্চিতে রাজপথের আন্দোলন তরান্বিত করতে সর্ববৃহৎ গণসমাবেশের প্রস্ততি নিয়েছে বিএনপি। কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে আগামী ২২অক্টোবর শনিবার খুলনায় এ গণসমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। খুলনা বিভাগের ১০জেলা থেকে লক্ষাধিক নেতাকর্মী জমায়েত হবেন। গণসমাবেশ কর্মসূচির জন্য নগরীর শহিদ হাদিস পার্ককে ভেন্যু নির্ধারণ করে চলছে প্রস্ততি। সকল সমাবেশ সফল করতে নেতাকর্মীদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। প্রয়োজনে বাঁশের লাঠিতে জাতীয় পতাকা বেঁধে কর্মসচিতে যোগ দেবেন তারা। শান্তিপূর্ণভাবে গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনে সহায়তার জন্য প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সকল কর্তৃপক্ষের কাছে বিএনপির পক্ষ থেকে সহায়তা কামনা করা হয়েছে। বিভাগীয় গণসমাবেশ সফল করতে খুলনা মহানগর ও জেলা বিএনপির যৌথ প্রস্ততি সভা থেকে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। বুধবার কে ডি ঘোষ রোডস্থ দলীয় কাযালয়ে অনুষ্ঠিত প্রস্ততি সভায় সভাপতিত্ব করেন মহানগর আহবায়ক শফিকুল আলম মনা। গণবিরোধী কর্তৃত্ববাদী ফ্যাসিস্ট আওয়ামী লীগ সরকার কর্তৃক জ্বালানী তেল, চাল, ডাল তেলসহ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যমূল্য বৃদ্ধি, ভোলায় নুরে আলম, আব্দুর রহিম, নারায়নগঞ্জে শাওন, মুন্সিগঞ্জে শহিদুল ইসলাম শাওনকে গুলি করে, যশোরে আব্দুল আলিমকে আওয়ামী সন্ত্রাসী কর্তৃক নির্মমভাবে হত্যার প্রতিবাদে, বিএনপির চেয়ারপার্সন মাদার অব ডেমোক্রেসি সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং দেশব্যাপী দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর হামলা মামলার প্রতিবাদে আগামী ২২অক্টোবর শনিবার খুলনায় বিভাগীয় গণ সমাবেশ করবে বিএনপি। যৌথ প্রস্ততি সভা থেকে গণ সমাবেশ কর্মসূচি সফল করতে ১৪টি উপ কমিটি গঠন করা হয়। আজিজুল বারী হেলাল  ও রকিবুল ইসলাম বকুলকে উপদেষ্টা এবং শফিকুল আলম মনাকে আহবায়ক, শফিকুল আলম তুহিনকে সদস্য সচিব এবং আমীর এজাজ খান, মনিরুল হাসান বাপ্পী ও তারিকুল ইসলাম জহিরকে সদস্য করে অর্থ উপ কমিটি। মনিরুল হাসান বাপ্পীকে আহবায়ক ও আবু হোসেন বাবুকে সদস্য সচিব করে জেলা এবং শফিকুল আলম তুহিনকে আহবায়ক ও আবুল কালাম জিয়াকে সদস্য সচিব করে মহানগর সাংগঠনিক উপ কমিটি। শামীম কবিরকে আহবায়ক ও আশরাফুল আলম নান্নুকে সদস্য সচিব করে জেলা এবং মাসুদ পারভেজ বাবুকে আহবায়ক ও শেখ সাদীকে সদস্য সচিব করে প্রচার উপ কমিটি। কাজী মাহমুদ আলীকে আহবায়ক ও হ্সাানুর রশিদ মিরাজ ও মোল্লা ফরিদ আহমেদকে যুগ্ম আহবায়ক করে মঞ্চ ব্যবস্থাপনা উপ কমিটি। মুরশিদুর রহমান লিটনকে আহবায়ক ও মোঃ শরিফুল ইসলাম টিপুকে সদস্য সচিব করে দপ্তর উপ কমিটি। স ম আব্দুর রহমানকে আহবায়ক ও মোল্লা খায়রুল ইসলামকে সদস্য সচিব করে পরিবহন ও যোগাযোগ উপ কমিটি। এহতেশামুল হক শাওনকে আহবায়ক, মিজানুর রহামন মিলটনকে সদস্য সচিব, রফিকুল ইসলাম বাবু, তানভিরুল আযম রুম্মান, রকিবুল ইসলাম মতি ও মোঃ আশরাফুল ইসলামকে সদস্য করে মিডিয়া উপকমিটি। ডা. আবু জাফর মোঃ সালেহ পলাশকে আহবায়ক করে চিকিৎসা সেবা উপ কমিটি। মাহবুব হাসান পিয়ারুকে আহবায়ক, শেখ তৈয়েবুর রহমান, ইবাদুল হক রুবায়েদ, আতাউর রহমান রুনুকে যুগ্ম আহবায়ক ও নাজমুল হুদা চৌধুরী সাগরকে সদস্য সচিব করে সাজসজ্জা উপকমিটি। আমীর এজাজ খানকে আহবায়ক এবং শফিকুল আলম তুহিন, মনিরুল হাসান বাপ্পী, তারিকুল ইসলাম জহির, আবু হোসেন বাবু, সৈয়দা রেহানা ঈসা ও এ্যাড. ইুরুল হাসান রুবাকে সদস্য করে অভ্যর্থনা উপকমিটি। আশরাফুল আলম নান্নু, একরামুল হক হেলাল ও কে এম হুমায়ুন কবিরের নেতৃত্বে হোটেল ব্যবস্থাপনা উপকমিটি। বদরুল আনাম খান, একরামুল হক হেলাল ও আলী আক্কাসের সমন্বয়ে আপ্যায়ন উপ কমিটি। খান জুলফিকার আলী জুলুকে আহবায়ক, শের আলম সান্টুকে সদস্য সচিব এবং সকল অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বা আহবায়ক ও সদস্য সচিবের সমন্বয়ে শৃঙ্খলা উপকমিটি। এ্যাড. নুরুল হাসান রুবাকে আহবায়ক, এ্যাড. মাসুম রশিদ, এ্যাড. তৌহিদুর রহমান চৌধুরী তুষার ও এ্যাড. শহিদুল ইসলামকে সদস্য করে আইনী সহায়তা উপকমিটি গঠন করা হয়।

মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব শফিকুল আলম তুহিন ও জেলা সদস্য সচিব মনিরুল হাসান বাপ্পীর সঞ্চালনায় প্রস্ততি সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির আহবায়ক আমীর এজাজ খান, শেখ আবু হোসেন বাবু, কাজী মোঃ রাশেদ, সৈয়দা রেহানা ঈসা, এ্যাড. নুরুল হাসান রুবা, কাজী মাহমুদ আলী, শের আলম সান্টু, মোস্তফা উল বারী লাভলু, আবুল কালাম জিয়া, মোল্লা মোশারফ হোসেন মফিজ, বদরুল আনাম খান, অধ্যাপক মনিরুল হক বাবুল, মাহবুব হাসান পিয়ারু, শেখ তৈয়েবুর রহমান, চৌধুরী শফিকুল ইসলাম হোসেন, শামীম কবির, একরামুল হক হেলাল, আশরাফুল আলম নান্নু, মাসুদ পারভেজ বাবু, শামসুল আলম পিন্টু, শেখ সাদী, হাসানুর রশিদ চৌধুরী মিরাজ, এনামুল হক সজল, চৌধুরী কওসার আলী, আব্দুর রাজ্জাক, হাফিজুর রহমান মনি, খায়রুল ইসলাম খান জনি, শেখ শাহিনুল  ইসলাম পাখী, অসিত কুমার সাহা, মুরশিদ কামাল, আরিফ ইমতিয়াজ খান তুহিন, ইলিয়াস হোসেন মল্লিক, কে এম হুমায়ুন কবির, বিপ্লবুর রহমান কুদ্দুস, সাজ্জাদ হোসেন তোতন, মোঃ হাফিজুর রহমান, কাজী মিজানুর রহমান, সুলতান মাহমুদ, এহতেশামুল হক শাওন, মনিরুজ্জামান লেলিন, একরামুল কবির মিল্টন, জহর মীর, এস এম মুরশিদুর রহমান লিটন, নাজিরউদ্দিন নান্নু, শেখ ইমাম হোসেন, হাসানউল্লাহ বুলবুল, খন্দকার ফারুক হোসেন, এ্যাড. মোহাম্মদ আলী বাবু, সরোয়ার হোসেন, মোঃ জামালউদ্দিন, আবু সাঈদ হাওলাদার আব্বাস, গাজী আফসার উদ্দিন, মোল্লা ফরিদ আহমেদ, সরদার আব্দুল মালেক, আনসার আলী, নাসির খান, আব্দুস সালাম, আলমগীর হোসেন, আব্দুর রহমান ডিনো,  ফারুক হোসেন হিলটন, গাজী আব্দুল হালিম, তরিকুল ইসলাম, দিদারুল হোসেন, মোঃ জাহিদুল হোসেন জাহিদ, জাফরী নেওয়াজ চন্দন, মিজানুর রহমান মিলটন, শফিকুল ইসলাম শফি, আলী আক্কাস, ফারুক হোসেন, মুজিবর রহমান, মহিলা দলের এ্যাড. তছলিমা খাতুন ছন্দা, এ্যাড. কানিজ ফাতেমা আমিন, সেতারা সুলতানা, যুবদলের আব্দুল আজিজ সুমন, ছাত্রদলের আব্দুল মান্নান মিস্ত্রি, গোলাম মোস্তফা তুহিন, মোঃ তাজিম বিশ্বাস, স্বেচ্ছাসেবক দলের আতাউর রহমান রুনু, শফিকুল ইসলাম শাহিন, ওয়াহিদুজ্জামান হাওলাদার, মুনতাসির আল মামুন, কৃষক দলের মোল্লা কবির হোসেন, আক্তারুজ্জামান তালুকদার সজীব, শেখ আদনান ইসলাম দীপ, শ্রমিক দলের খান ইসমাইল হোসেন, তাঁতী দলের আবু সাঈদ শেখ, ম শা আলম, মৎস্যজীবী দলের আজিজুল ইসলাম, জাসাসের শহিদুল ইসলাম, মোঃ আশরাফুল ইসলাম প্রমুখ। #