০৪:৫৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ধর্ষণ মামলায় কারাগারে

###   খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য (ভিসি) প্রফেসর শহীদুর রহমান খানকে ধর্ষণ মামলায় জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। সোমবার বিকেলে খুলনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৩ এর বিচারক আবদুস সালাম খান এ নির্দেশ দেন। নারী ও শিশু আদালতের স্পেশাল পিপি ফরিদ আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। গত ১৩ মার্চ ভুক্তভোগী নারী আদালতে অভিযোগ দায়ের করলে খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য (ভিসি) ড. শহীদুর রহমান খান ও রেজিস্ট্রার খন্দকার মাজহারুল আনোয়ারের বিরুদ্ধে সোনাডাঙ্গা থানায় ধর্ষণ মামালার এজাহার গ্রহণের আদেশ দেয় আদালত। নারী ও শিশু আদালতের স্পেশাল পিপি ফরিদ আহমেদ জানান, খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর শহীদুর রহমান খান উচ্চ আদালত থেকে ৬ সপ্তাহের আগাম জামিনে ছিলেন। সোমবার উচ্চ আদালতের জামিনের শেষ দিনে তিনি খুলনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে আদালত তা নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। তার বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে নারী কর্মচারীকে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগে মামলা হয়েছে। আদালত সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী নারী অভিযোগ করেন খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী অফিসে আবাসিকভাবে থাকতেন সাবেক ভিসি ড. শহীদুর রহমান খান। সেখানে ভিসির জন্য খাবারের ব্যবস্থা করার দায়িত্ব ওই নারীকে দেন রেজিস্ট্রার। ২০২১ সালের ১৬ ডিসেম্বর খাবার পৌঁছে দিতে গেলে রেজিস্ট্রারের সহযোগিতায় ওই নারীকে ধর্ষণ করেন শহীদুর রহমান খান। এ সময় কাউকে জানালে চাকরি চলে যাওয়ার ভয় দেখানো হয় বলে অভিযোগ করেন ওই নারী। অভিযোগে তিনি আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরি হারানো এবং সামাজিক সম্মানের ভয়ে বিষয়টি এতদিন জানাতে পারেননি তিনি। ##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

জনপ্রিয়

গলাচিপায় অবৈধ দোকান উচ্ছেদের মাধ্যমে রাস্তা উন্মুক্ত করায় প্রসংশিত মেয়র

খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ধর্ষণ মামলায় কারাগারে

প্রকাশিত সময় : ০৮:৩৯:৩৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ৮ মে ২০২৩

###   খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য (ভিসি) প্রফেসর শহীদুর রহমান খানকে ধর্ষণ মামলায় জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। সোমবার বিকেলে খুলনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৩ এর বিচারক আবদুস সালাম খান এ নির্দেশ দেন। নারী ও শিশু আদালতের স্পেশাল পিপি ফরিদ আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। গত ১৩ মার্চ ভুক্তভোগী নারী আদালতে অভিযোগ দায়ের করলে খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য (ভিসি) ড. শহীদুর রহমান খান ও রেজিস্ট্রার খন্দকার মাজহারুল আনোয়ারের বিরুদ্ধে সোনাডাঙ্গা থানায় ধর্ষণ মামালার এজাহার গ্রহণের আদেশ দেয় আদালত। নারী ও শিশু আদালতের স্পেশাল পিপি ফরিদ আহমেদ জানান, খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর শহীদুর রহমান খান উচ্চ আদালত থেকে ৬ সপ্তাহের আগাম জামিনে ছিলেন। সোমবার উচ্চ আদালতের জামিনের শেষ দিনে তিনি খুলনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে আদালত তা নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। তার বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে নারী কর্মচারীকে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগে মামলা হয়েছে। আদালত সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী নারী অভিযোগ করেন খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী অফিসে আবাসিকভাবে থাকতেন সাবেক ভিসি ড. শহীদুর রহমান খান। সেখানে ভিসির জন্য খাবারের ব্যবস্থা করার দায়িত্ব ওই নারীকে দেন রেজিস্ট্রার। ২০২১ সালের ১৬ ডিসেম্বর খাবার পৌঁছে দিতে গেলে রেজিস্ট্রারের সহযোগিতায় ওই নারীকে ধর্ষণ করেন শহীদুর রহমান খান। এ সময় কাউকে জানালে চাকরি চলে যাওয়ার ভয় দেখানো হয় বলে অভিযোগ করেন ওই নারী। অভিযোগে তিনি আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরি হারানো এবং সামাজিক সম্মানের ভয়ে বিষয়টি এতদিন জানাতে পারেননি তিনি। ##