০৫:৫৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ওয়ার্র্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাঙ্কিং-এ বাংলাদেশে তৃতীয়

###   খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(কুয়েট) যুক্তরাজ্য ভিত্তিক শিক্ষা সাময়িকী ‘টাইমস হায়ার এডুকেশন’ (টিএইচই) প্রকাশিত ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাঙ্কিং-২০২৩ এ বাংলাদেশের মধ্যে তৃতীয় হয়েছে। এই র‌্যাঙ্কিংয়ে কুয়েটসহ দেশের পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম এসেছে।অন্যান্য বিশ^বিদ্যালয়গুলো হলো-ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়। কুয়েট ‘ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাঙ্কিং’ তালিকার ১২০১-১৫০০ ক্রমের মধ্যে রয়েছে। বিশ্বের ১০৪টি দেশের ১হাজার ৭৯৯টি বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম মূল্যায়নের ভিত্তিতে এই র‌্যাঙ্কিং করা হয়েছে। বিভিন্ন মূল্যায়ন সূচকে মান যাচাই-বাছাই করে টাইমস হায়ার এডুকেশন। শিক্ষাদান(টিচিং), গবেষণা(রিসার্চ), গবেষণা-উদ্ধৃতি(সাইটেশন), আন্তর্জাতিক দৃষ্টিভঙ্গি(ইন্টারন্যাশনাল আউটলুক) এবং ইন্ডাস্ট্রি ইনকামের(শিল্পের সঙ্গে জ্ঞানের বিনিময়) ওপর ভিত্তি করে এই তালিকা করা হয়।

টাইমস হায়ার এডুকেশনের ওয়েবসাইটে র‌্যাঙ্কিংয়ে নির্ধারণে বিবেচিত সূচকগুলোর বিশদ ব্যাখ্যাও রয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, শিক্ষাদান সূচকটিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামগ্রিক মান র‌্যাঙ্কিং নির্ধারণের ক্ষেত্রে গুরুত্ব দেওয়া হয়। দ্বিতীয় সূচক গবেষণায় দেখা হয় সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণাকর্মের খ্যাতি-জরিপ, গবেষণা থেকে আয় এবং গবেষণার সংখ্যা ও মান। গুরুত্বপূর্ণ আরেকটি সূচক হলো গবেষণা-উদ্ধৃতি।এ ক্ষেত্রে কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকাশিত কাজ বিশ্বব্যাপী গবেষকেরা কতবার উদ্ধৃত করছেন তা বিবেচনায় নেওয়া হয়। আন্তর্জাতিক দৃষ্টিভঙ্গি সূচকে বিশ্ববিদ্যালয়ের দেশীয় ও আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী ও কর্মী অনুপাত দেখা হয়। ইন্ডাস্ট্রি ইনকামে আবিষ্কার, উদ্ভাবন ও পরামর্শের মাধ্যমে কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিল্পকে সহযোগিতার সক্ষমতা দেখা হয়। ‘ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাঙ্কিং-২০২৩’ এ অবস্থান পাওয়ায় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মিহির রঞ্জন হালদার বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিস্ট সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, “এটি সূচনা মাত্র, আমাদেরকে আরো অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে। এ অর্জন কুয়েটকে উচ্চ শিক্ষায় আরো অগ্রসর হতে সাহায্য করবে”। তিনি আরো বলেন, “আমি বিশ্বাস করি আমাদের সকলের প্রচেষ্টায় কুয়েট তার অবস্থান আরো উঁচুতে নিতে সক্ষম হবে”। ##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik Madhumati

জনপ্রিয়

দেবহাটায় জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন এ্যাডভোকেসি সভা অনুষ্ঠিত 

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ওয়ার্র্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাঙ্কিং-এ বাংলাদেশে তৃতীয়

প্রকাশিত সময় : ০১:৪৮:৩৭ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ অক্টোবর ২০২২

###   খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(কুয়েট) যুক্তরাজ্য ভিত্তিক শিক্ষা সাময়িকী ‘টাইমস হায়ার এডুকেশন’ (টিএইচই) প্রকাশিত ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাঙ্কিং-২০২৩ এ বাংলাদেশের মধ্যে তৃতীয় হয়েছে। এই র‌্যাঙ্কিংয়ে কুয়েটসহ দেশের পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম এসেছে।অন্যান্য বিশ^বিদ্যালয়গুলো হলো-ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়। কুয়েট ‘ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাঙ্কিং’ তালিকার ১২০১-১৫০০ ক্রমের মধ্যে রয়েছে। বিশ্বের ১০৪টি দেশের ১হাজার ৭৯৯টি বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম মূল্যায়নের ভিত্তিতে এই র‌্যাঙ্কিং করা হয়েছে। বিভিন্ন মূল্যায়ন সূচকে মান যাচাই-বাছাই করে টাইমস হায়ার এডুকেশন। শিক্ষাদান(টিচিং), গবেষণা(রিসার্চ), গবেষণা-উদ্ধৃতি(সাইটেশন), আন্তর্জাতিক দৃষ্টিভঙ্গি(ইন্টারন্যাশনাল আউটলুক) এবং ইন্ডাস্ট্রি ইনকামের(শিল্পের সঙ্গে জ্ঞানের বিনিময়) ওপর ভিত্তি করে এই তালিকা করা হয়।

টাইমস হায়ার এডুকেশনের ওয়েবসাইটে র‌্যাঙ্কিংয়ে নির্ধারণে বিবেচিত সূচকগুলোর বিশদ ব্যাখ্যাও রয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, শিক্ষাদান সূচকটিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামগ্রিক মান র‌্যাঙ্কিং নির্ধারণের ক্ষেত্রে গুরুত্ব দেওয়া হয়। দ্বিতীয় সূচক গবেষণায় দেখা হয় সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণাকর্মের খ্যাতি-জরিপ, গবেষণা থেকে আয় এবং গবেষণার সংখ্যা ও মান। গুরুত্বপূর্ণ আরেকটি সূচক হলো গবেষণা-উদ্ধৃতি।এ ক্ষেত্রে কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকাশিত কাজ বিশ্বব্যাপী গবেষকেরা কতবার উদ্ধৃত করছেন তা বিবেচনায় নেওয়া হয়। আন্তর্জাতিক দৃষ্টিভঙ্গি সূচকে বিশ্ববিদ্যালয়ের দেশীয় ও আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী ও কর্মী অনুপাত দেখা হয়। ইন্ডাস্ট্রি ইনকামে আবিষ্কার, উদ্ভাবন ও পরামর্শের মাধ্যমে কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিল্পকে সহযোগিতার সক্ষমতা দেখা হয়। ‘ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাঙ্কিং-২০২৩’ এ অবস্থান পাওয়ায় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মিহির রঞ্জন হালদার বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিস্ট সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, “এটি সূচনা মাত্র, আমাদেরকে আরো অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে। এ অর্জন কুয়েটকে উচ্চ শিক্ষায় আরো অগ্রসর হতে সাহায্য করবে”। তিনি আরো বলেন, “আমি বিশ্বাস করি আমাদের সকলের প্রচেষ্টায় কুয়েট তার অবস্থান আরো উঁচুতে নিতে সক্ষম হবে”। ##