০৯:২৩ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খুলনা বিমানবন্দর প্রকল্পের স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার ও কার্যক্রম শুরুর দাবিতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান

  • অফিস ডেক্স।।
  • প্রকাশিত সময় : ০৮:৩৫:২৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মার্চ ২০২৩
  • ৪১ পড়েছেন

###    খুলনার খানজাহান আলী বিমান বন্দর নির্মান প্রকল্পের স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার ও পুনরায় শুরুর দাবীতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির নেতৃবৃন্দ। বৃহষ্পতিবার খুলনা জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াছির আরেফীনের মাধ্যমে নেতৃবৃন্দ এ স্মারকলিপি প্রদান করেন। এ সময় বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির নেতৃবৃন্দ বিস্ময় ও উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, খানজাহান আলী বিমান বন্দর নির্মান প্রকল্পের স্থগিত হওয়ায় খুলনাবাসী হতবাক হয়েছে। খুলনায় বিমান বন্দর নির্মান দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি। এ দাবিতে খুলনাঞ্চলের আপামর জনগন উন্নয়ন কমিটির নেতৃত্বে দীর্ঘদিন আন্দোলন সংগ্রাম করেছেন। কিন্তু হঠ্যাৎ করে খুলনা বিমান বন্দর প্রকল্প স্থগিত করায় এ অঞ্চলের মানুষের জন্য দুঃখজনকও বটে। উন্নয়ন কমিটির নেতৃবৃন্দ বিমান বন্দর নির্মানে পিপিপি সিদ্ধান্ত বাতিল করে সরকারি অর্থায়নে খুলনা বিমান বন্দরের কাজ শুরু করার জোর দাবী জানান। নেতৃবৃন্দ খুলনা বিমান বন্দর নির্মান বাস্তবায়নে আগামী অর্থ বছরের বাজটে পর্যাপ্ত বরাদ্দ রাখারও দাবী জানান।
স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, প্রধানমন্ত্রীর দূরদৃষ্টিসম্পন্ন ও দৃঢ় নেতৃত্বে বৈশ্বিক অর্থনীতি এবং সামাজিক নানা সূচকে বাংলাদেশ এখন উল্লেখযোগ্য নাম। নানা প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও বাংলাদেশের মানুষের অদম্য আকাঙ্খা, প্রাণশক্তি আর ঘাম ঝরানো পরিশ্রমের কারণে বিশ্বে উন্নয়নের বিস্ময় এখন বাংলাদেশ। স্বল্পোন্নত দেশ হতে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ এবং সমৃদ্ধ ও উন্নত দেশের অভিযাত্রায় খুলনাঞ্চল এখন শক্তিশালী অভিযাত্রী। যদি খুলনার সম্ভাবনা গুলোকে যথাযথভাবে কাজে লাগানো যায় তবে খুলনা আগামীতে উন্নত বাংলাদেশ উপহার দিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। খুলনার প্রাকৃতিক এবং ভু-রাজনীতির সুবিধাকে কাজে লাগিয়ে সড়ক, রেল, নৌ এবং সমুদ্রপথে ভারত, নেপাল, ভূটানের সাথে বাণিজ্যিক নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা সম্ভব। আর এ কারণেই খুলনায় বিমান বন্দর নির্মান একান্ত অপরিহার্য। স্মারকলিপি প্রদানকালে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি শেখ আশরাফ-উজ-জামান, মহাসচিব শেখ মোহাম্মদ আলী, সাবেক সভাপতি শেখ মোশাররফ হোসেন, সহ-সভাপতি শাহীন জামাল পন, অধ্যাপক মোঃ আবুল বাসার, মামুনুরা জাকির খুকুমনি, অর্থ সম্পাদক মিনা আজিজুর রহমান, যুগ্ম মহাসচিব মোঃ মনিরুজ্জামান রহিম, এ্যাড. শেখ হাফিজুর রহমান হাফিজ, মিজানুর রহমান জিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক মফিদুল ইসলাম টুটুল, কৃষি সম্পাদক রকিব উদ্দিন ফারাজী, শ্রম সম্পাদক খলিলুর রহমান, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক সরদার রবিউল ইসলাম, সমাজসেবা সম্পাদক মোঃ হায়দার আলী, মোঃ মোরশেদ উদ্দীন, বিশ্বাস জাফর আহমেদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা ইদ্রিস আলী, শেখ আব্দুর রশীদ প্রমূখ। ##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

জনপ্রিয়

ডুমুরিয়ার সাহস ও ভান্ডারপাডা ইউনিয়নে শিশু খাদ্য ও ঢেউটিন বিতরন

খুলনা বিমানবন্দর প্রকল্পের স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার ও কার্যক্রম শুরুর দাবিতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান

প্রকাশিত সময় : ০৮:৩৫:২৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মার্চ ২০২৩

###    খুলনার খানজাহান আলী বিমান বন্দর নির্মান প্রকল্পের স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার ও পুনরায় শুরুর দাবীতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির নেতৃবৃন্দ। বৃহষ্পতিবার খুলনা জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াছির আরেফীনের মাধ্যমে নেতৃবৃন্দ এ স্মারকলিপি প্রদান করেন। এ সময় বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির নেতৃবৃন্দ বিস্ময় ও উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, খানজাহান আলী বিমান বন্দর নির্মান প্রকল্পের স্থগিত হওয়ায় খুলনাবাসী হতবাক হয়েছে। খুলনায় বিমান বন্দর নির্মান দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি। এ দাবিতে খুলনাঞ্চলের আপামর জনগন উন্নয়ন কমিটির নেতৃত্বে দীর্ঘদিন আন্দোলন সংগ্রাম করেছেন। কিন্তু হঠ্যাৎ করে খুলনা বিমান বন্দর প্রকল্প স্থগিত করায় এ অঞ্চলের মানুষের জন্য দুঃখজনকও বটে। উন্নয়ন কমিটির নেতৃবৃন্দ বিমান বন্দর নির্মানে পিপিপি সিদ্ধান্ত বাতিল করে সরকারি অর্থায়নে খুলনা বিমান বন্দরের কাজ শুরু করার জোর দাবী জানান। নেতৃবৃন্দ খুলনা বিমান বন্দর নির্মান বাস্তবায়নে আগামী অর্থ বছরের বাজটে পর্যাপ্ত বরাদ্দ রাখারও দাবী জানান।
স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, প্রধানমন্ত্রীর দূরদৃষ্টিসম্পন্ন ও দৃঢ় নেতৃত্বে বৈশ্বিক অর্থনীতি এবং সামাজিক নানা সূচকে বাংলাদেশ এখন উল্লেখযোগ্য নাম। নানা প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও বাংলাদেশের মানুষের অদম্য আকাঙ্খা, প্রাণশক্তি আর ঘাম ঝরানো পরিশ্রমের কারণে বিশ্বে উন্নয়নের বিস্ময় এখন বাংলাদেশ। স্বল্পোন্নত দেশ হতে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ এবং সমৃদ্ধ ও উন্নত দেশের অভিযাত্রায় খুলনাঞ্চল এখন শক্তিশালী অভিযাত্রী। যদি খুলনার সম্ভাবনা গুলোকে যথাযথভাবে কাজে লাগানো যায় তবে খুলনা আগামীতে উন্নত বাংলাদেশ উপহার দিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। খুলনার প্রাকৃতিক এবং ভু-রাজনীতির সুবিধাকে কাজে লাগিয়ে সড়ক, রেল, নৌ এবং সমুদ্রপথে ভারত, নেপাল, ভূটানের সাথে বাণিজ্যিক নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা সম্ভব। আর এ কারণেই খুলনায় বিমান বন্দর নির্মান একান্ত অপরিহার্য। স্মারকলিপি প্রদানকালে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি শেখ আশরাফ-উজ-জামান, মহাসচিব শেখ মোহাম্মদ আলী, সাবেক সভাপতি শেখ মোশাররফ হোসেন, সহ-সভাপতি শাহীন জামাল পন, অধ্যাপক মোঃ আবুল বাসার, মামুনুরা জাকির খুকুমনি, অর্থ সম্পাদক মিনা আজিজুর রহমান, যুগ্ম মহাসচিব মোঃ মনিরুজ্জামান রহিম, এ্যাড. শেখ হাফিজুর রহমান হাফিজ, মিজানুর রহমান জিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক মফিদুল ইসলাম টুটুল, কৃষি সম্পাদক রকিব উদ্দিন ফারাজী, শ্রম সম্পাদক খলিলুর রহমান, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক সরদার রবিউল ইসলাম, সমাজসেবা সম্পাদক মোঃ হায়দার আলী, মোঃ মোরশেদ উদ্দীন, বিশ্বাস জাফর আহমেদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা ইদ্রিস আলী, শেখ আব্দুর রশীদ প্রমূখ। ##