১১:২৩ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গলাচিপায় উদ্বোধন না হওয়ায় মা ও শিশু হাসপাতালে মিলছে না কোন চিকিৎসা, বঞ্চিত দুই উপজেলাবাসী

####

গলাচিপায় ১০ শয্যা বিশিষ্ট মা ও শিশু রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতে তৈরি হয় হাসপাতাল। যদিও সেই হাসপাতাল এক বছর পূর্বে নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার পরে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে দেওয়া সত্ত্বেও উদ্বোধন না হওয়ার কারণে চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে দুই উপজেলার রোগীরা। এর ফলে প্রসূতী মায়েদের জরুরী চিকিৎসা সেবা নিতে এ্যাম্বুলেন্সে ঝুঁকি নিয়ে পটুয়াখালী ও বরিশাল হাসপাতালে যেতে হচ্ছে। দূরত্ব বেশী হওয়ার কারণে পথিমধ্যে অনেক প্রসূতী মা মারা যায় এবং অনেক সময় সন্তান প্রসব হয়ে যায়। এই হাসপাতালের উপর নির্ভরশীল গলাচিপা ও রাঙ্গাবালীর এ দুটি উপজেলার প্রায় আট লক্ষাধীক বাসিন্দা। পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলা প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পরে উপজেলাবাসীর প্রাণের দাবি ছিল প্রসূতী মায়েদের চিকিৎসা সেবার জন্য একটি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার।

শেষ পর্যন্ত গলাচিপা পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডে শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম সংলগ্ন ৫২ শতক জায়গার উপরে ৪ কোটি ৯৩ লাখ ৫২ হাজার ৮১২ টাকায় জিওবি উন্নয়ন বাজেটে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কে কে এন্টারপ্রাইজ এর মাধ্যমে গত ১৬ই মার্চ ২০২০ইং সালে ১০ শয্যা বিশিষ্ট মা ও শিশু হাসপাতালের কাজ শুরু হয়। কাজটি বাস্তবায়নের দায়িত্বে ছিলেন স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর (এইচইডি) স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান মন্ত্রনালয়। কাজ শুরুর ১৫ মাসের মধ্যে কাজ শেষ করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে দেন।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায় এবং সরেজমিনে গিয়ে নির্মিত ভবনটির চারপাশ ঘুরে দেখা গেছে পানি ও বিদ্যুত সংযোগ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় পরে আছে। তাই এলাকাবাসীর দাবি অতি দ্রুত উদ্বোধন হওয়ার মাধ্যমে রোগীরা চিকিৎসা সেবা পেয়ে উপকৃত হতে পারে। তার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেন।

এ বিষয়ে উপ-পরিচালক পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা পটুয়াখালী আ ফ ম আরাফাত হোসেন বলেন, উক্ত হাসপাতালটিতে স্বাস্থ্য মন্ত্রানালয় কর্তৃক লোকবল নিয়োগ না হওয়ায় চিকিৎসা সেবা দেয়ার জন্য প্রাথমিকভাবে উপজেলার স্থানীয় পর্যায়ে লোকবলের মাধ্যমে চলতি মাসের ৩০ নভেম্বর এর ভিতরে চালু হবে বলে জানান। উক্ত বিষয়ে পটুয়াখালী-৩ (গলাচিপা-দশমিনা) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য এস এম শাহজাদা বলেন, ১৪ নভেম্বর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কতৃক উদ্বোধনের জন্য তালিকা প্রেরণ করা হয়েছিল। যেহেতু সেটা হয়নি তাই আমি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলেছি এবং আশা করছি চলতি মাসেই সাধারণ রোগীদের সেবা নিশ্চিত করতে হাসপাতালটি চালু করা হবে।#

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik Madhumati

জনপ্রিয়

বাকেরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দুটি এ্যাম্বুলেন্স অকেজো, চরম দূর্ভোগে রোগীরা

গলাচিপায় উদ্বোধন না হওয়ায় মা ও শিশু হাসপাতালে মিলছে না কোন চিকিৎসা, বঞ্চিত দুই উপজেলাবাসী

প্রকাশিত সময় : ০৭:৩৯:৩০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ নভেম্বর ২০২৩

####

গলাচিপায় ১০ শয্যা বিশিষ্ট মা ও শিশু রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতে তৈরি হয় হাসপাতাল। যদিও সেই হাসপাতাল এক বছর পূর্বে নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার পরে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে দেওয়া সত্ত্বেও উদ্বোধন না হওয়ার কারণে চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে দুই উপজেলার রোগীরা। এর ফলে প্রসূতী মায়েদের জরুরী চিকিৎসা সেবা নিতে এ্যাম্বুলেন্সে ঝুঁকি নিয়ে পটুয়াখালী ও বরিশাল হাসপাতালে যেতে হচ্ছে। দূরত্ব বেশী হওয়ার কারণে পথিমধ্যে অনেক প্রসূতী মা মারা যায় এবং অনেক সময় সন্তান প্রসব হয়ে যায়। এই হাসপাতালের উপর নির্ভরশীল গলাচিপা ও রাঙ্গাবালীর এ দুটি উপজেলার প্রায় আট লক্ষাধীক বাসিন্দা। পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলা প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পরে উপজেলাবাসীর প্রাণের দাবি ছিল প্রসূতী মায়েদের চিকিৎসা সেবার জন্য একটি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার।

শেষ পর্যন্ত গলাচিপা পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডে শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম সংলগ্ন ৫২ শতক জায়গার উপরে ৪ কোটি ৯৩ লাখ ৫২ হাজার ৮১২ টাকায় জিওবি উন্নয়ন বাজেটে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কে কে এন্টারপ্রাইজ এর মাধ্যমে গত ১৬ই মার্চ ২০২০ইং সালে ১০ শয্যা বিশিষ্ট মা ও শিশু হাসপাতালের কাজ শুরু হয়। কাজটি বাস্তবায়নের দায়িত্বে ছিলেন স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর (এইচইডি) স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান মন্ত্রনালয়। কাজ শুরুর ১৫ মাসের মধ্যে কাজ শেষ করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে দেন।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায় এবং সরেজমিনে গিয়ে নির্মিত ভবনটির চারপাশ ঘুরে দেখা গেছে পানি ও বিদ্যুত সংযোগ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় পরে আছে। তাই এলাকাবাসীর দাবি অতি দ্রুত উদ্বোধন হওয়ার মাধ্যমে রোগীরা চিকিৎসা সেবা পেয়ে উপকৃত হতে পারে। তার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেন।

এ বিষয়ে উপ-পরিচালক পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা পটুয়াখালী আ ফ ম আরাফাত হোসেন বলেন, উক্ত হাসপাতালটিতে স্বাস্থ্য মন্ত্রানালয় কর্তৃক লোকবল নিয়োগ না হওয়ায় চিকিৎসা সেবা দেয়ার জন্য প্রাথমিকভাবে উপজেলার স্থানীয় পর্যায়ে লোকবলের মাধ্যমে চলতি মাসের ৩০ নভেম্বর এর ভিতরে চালু হবে বলে জানান। উক্ত বিষয়ে পটুয়াখালী-৩ (গলাচিপা-দশমিনা) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য এস এম শাহজাদা বলেন, ১৪ নভেম্বর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কতৃক উদ্বোধনের জন্য তালিকা প্রেরণ করা হয়েছিল। যেহেতু সেটা হয়নি তাই আমি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলেছি এবং আশা করছি চলতি মাসেই সাধারণ রোগীদের সেবা নিশ্চিত করতে হাসপাতালটি চালু করা হবে।#