০৬:৩৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে সাংবাদিকের মোবাইল ভাংচুর

###     গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে স্থির ও ভিডিও চিত্র ধারণ করা মোবাইল ভাংচুর করে ২ ঘন্টা অবরোধের পর তাঁকে উদ্ধার করেছেন থানা পুলিশ। জানা যায় বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার ছাপড়হাটী ইউনিয়নের পশ্চিম ছাপড়হাটী গ্রামের কুশটারী (হাজী পাড়া) নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে। এসময় উক্ত ইউনিয়নের ছমিরের বাজার থেকে ধোপাডাঙ্গা চৌমহনী গামী পাকা রাস্তা থেকে জনৈক আঃ মজিদের দোকানের সামনে দু’টি পাকা রাস্তার ত্রি-সীমানার মাঝে গাছের খুঁটি ও সদ্য নির্র্মীত রাস্তার ভাঙ্গা দৃশ্য মোবাইল ফোনে ছবি ও ভিডিও ধারণ করেন ঢাকা প্রেস ক্লাব’র স্থায়ী সদস্য ও প্রেসক্লাব সুন্দরগঞ্জের সভাপতি সাংবাদিক আবু বক্কর সিদ্দিক। ভোগান্তির শিকার ব্যক্তিবর্গের সাক্ষাৎকার উক্ত মোবাইলে ধারণ করেন। এরপর জনৈক আঃ মজিদের মাধ্যমে ঐ গ্রামের মৃত আছর উদ্দিনের পুত্র শফিউল (৬২) কে ডেকে নিয়ে কিছু জিজ্ঞাসাবাদ করতে না করতেই তার ছেলে মুক্তা মিয়া, মুকুল মিয়া, মোশারফ হোসেন ও জাহিদুল ইসলাম, মৃত রবিউল ইসলামের ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান মুকুলসহ ২৫-৩০ জন মিলে সাংবাদিকের প্রতি চড়াও হয়। অকথ্য ভাষায় গালমন্দ, হুকমী-ধাকমী প্রদর্শণ করে। এক পর্যায়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করার সময় পাকা রাস্তার উপরে সবাই মিলে সাংবাদিক আবু বক্কর সিদ্দিককে অবরুদ্ধ করে ধারনকৃত স্থির ও ভিডিও চিত্র সম্বলিত মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল রাস্তায় ফেলে দিয়ে ভাংচুর করে। মোটরসাইকেলের চাবি টানা-হেছড়া করা ছাড়াও সবাই মিলে সাংবাদিককে অবরুদ্ধ করে রাখে। এসময় অবরোধকারীরা প্রসাশন ও বর্তমান সরকারের প্রতি অশ্লিল ভাষায় গালমন্দ করে থাকে। এর দুই ঘন্টা পর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি-তদন্ত) সেরাজুল ইসলাম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন পূর্বক সাংবাদিক ও ভাংচুরকৃত মোবাইল ফোন উদ্ধার করেন। তবে,  মোবাইলে থাকা দু’টি সিম ও মেমরীকার্ডসহ অসংখ্য গুরুত্বপূর্ণ তথ্যচিত্র দৃর্বৃত্তদের হাতেই রয়েছে। এছাড়াও তারা ঘটনাটি ভিন্নখাতে প্রবাহের অপচেষ্টার পায়তারা করছে।

উল্লেখ্য, বস্তুনিষ্ঠ ও নির্ভিক সাংবাদিকতায় অভ্যস্ত সাংবাদিক আবু বক্কর সিদ্দিক মাদক, জুয়া, মানবাধিকার লঙ্ঘন তথা সামাজিক অবক্ষয়, বিভিন্ন স্তরের অনিয়ম-দূর্নীতি, অন্যায়সহ নানাবিধ অপরাধ প্রবণতা প্রতিরোধমূলক ও জনদূর্ভোগ বিষয়ে অনুসন্ধানী সংবাদ পরিবেশনে ইত:পূর্বে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্টতায় সেরা সাংবাদিকতায় এ্যওয়ার্ডে ভূষিত হয়েছেন বলে জানা যায়। থানা অফিসার ইনচার্জ কেএম আজমিরুজ্জামান এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেক গ্রহণের আশ্বাস প্রদান করেছেন।##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

ফুলেল ভালোবাসায় সিক্ত হলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবু জাফর

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে সাংবাদিকের মোবাইল ভাংচুর

প্রকাশিত সময় : ০৭:২৬:৫৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২২ এপ্রিল ২০২৩

###     গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে স্থির ও ভিডিও চিত্র ধারণ করা মোবাইল ভাংচুর করে ২ ঘন্টা অবরোধের পর তাঁকে উদ্ধার করেছেন থানা পুলিশ। জানা যায় বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার ছাপড়হাটী ইউনিয়নের পশ্চিম ছাপড়হাটী গ্রামের কুশটারী (হাজী পাড়া) নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে। এসময় উক্ত ইউনিয়নের ছমিরের বাজার থেকে ধোপাডাঙ্গা চৌমহনী গামী পাকা রাস্তা থেকে জনৈক আঃ মজিদের দোকানের সামনে দু’টি পাকা রাস্তার ত্রি-সীমানার মাঝে গাছের খুঁটি ও সদ্য নির্র্মীত রাস্তার ভাঙ্গা দৃশ্য মোবাইল ফোনে ছবি ও ভিডিও ধারণ করেন ঢাকা প্রেস ক্লাব’র স্থায়ী সদস্য ও প্রেসক্লাব সুন্দরগঞ্জের সভাপতি সাংবাদিক আবু বক্কর সিদ্দিক। ভোগান্তির শিকার ব্যক্তিবর্গের সাক্ষাৎকার উক্ত মোবাইলে ধারণ করেন। এরপর জনৈক আঃ মজিদের মাধ্যমে ঐ গ্রামের মৃত আছর উদ্দিনের পুত্র শফিউল (৬২) কে ডেকে নিয়ে কিছু জিজ্ঞাসাবাদ করতে না করতেই তার ছেলে মুক্তা মিয়া, মুকুল মিয়া, মোশারফ হোসেন ও জাহিদুল ইসলাম, মৃত রবিউল ইসলামের ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান মুকুলসহ ২৫-৩০ জন মিলে সাংবাদিকের প্রতি চড়াও হয়। অকথ্য ভাষায় গালমন্দ, হুকমী-ধাকমী প্রদর্শণ করে। এক পর্যায়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করার সময় পাকা রাস্তার উপরে সবাই মিলে সাংবাদিক আবু বক্কর সিদ্দিককে অবরুদ্ধ করে ধারনকৃত স্থির ও ভিডিও চিত্র সম্বলিত মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল রাস্তায় ফেলে দিয়ে ভাংচুর করে। মোটরসাইকেলের চাবি টানা-হেছড়া করা ছাড়াও সবাই মিলে সাংবাদিককে অবরুদ্ধ করে রাখে। এসময় অবরোধকারীরা প্রসাশন ও বর্তমান সরকারের প্রতি অশ্লিল ভাষায় গালমন্দ করে থাকে। এর দুই ঘন্টা পর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি-তদন্ত) সেরাজুল ইসলাম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন পূর্বক সাংবাদিক ও ভাংচুরকৃত মোবাইল ফোন উদ্ধার করেন। তবে,  মোবাইলে থাকা দু’টি সিম ও মেমরীকার্ডসহ অসংখ্য গুরুত্বপূর্ণ তথ্যচিত্র দৃর্বৃত্তদের হাতেই রয়েছে। এছাড়াও তারা ঘটনাটি ভিন্নখাতে প্রবাহের অপচেষ্টার পায়তারা করছে।

উল্লেখ্য, বস্তুনিষ্ঠ ও নির্ভিক সাংবাদিকতায় অভ্যস্ত সাংবাদিক আবু বক্কর সিদ্দিক মাদক, জুয়া, মানবাধিকার লঙ্ঘন তথা সামাজিক অবক্ষয়, বিভিন্ন স্তরের অনিয়ম-দূর্নীতি, অন্যায়সহ নানাবিধ অপরাধ প্রবণতা প্রতিরোধমূলক ও জনদূর্ভোগ বিষয়ে অনুসন্ধানী সংবাদ পরিবেশনে ইত:পূর্বে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্টতায় সেরা সাংবাদিকতায় এ্যওয়ার্ডে ভূষিত হয়েছেন বলে জানা যায়। থানা অফিসার ইনচার্জ কেএম আজমিরুজ্জামান এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেক গ্রহণের আশ্বাস প্রদান করেছেন।##