১০:১৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ছয় ঘণ্টারও কম সময়ে ৪ বার ভূমিকম্পে কাঁপল মিয়ানমার

  • সংবাদদাতা
  • প্রকাশিত সময় : ০৫:৪০:০৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ জুন ২০২৩
  • ৬২ পড়েছেন

প্রতিবেশী দেশ মিয়ানমারে চার দফায় আঘাত হেনেছে ভূমিকম্প। মধ্যরাত থেকে ভোর পর্যন্ত ছয় ঘণ্টারও কম সময়ের ব্যবধানে এসব ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার এই দেশটি। অবশ্য ভূমিকম্পের জেরে তাৎক্ষণিকভাবে কোনও ক্ষয়ক্ষতির তথ্য পাওয়া যায়নি।

ভারতীয় বার্তাসংস্থা এএনআইয়ের বরাত দিয়ে বৃহস্পতিবার (২২ জুন) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকে ভোর পর্যন্ত ছয় ঘণ্টারও কম সময়ে চার দফায় ভূমিকম্পে কেঁপে উঠেছে মিয়ানমার। রাত ১২টার কিছু আগে প্রথম কম্পনের প্রায় তিন ঘণ্টা পর মিয়ানমারে দ্বিতীয় দফায় কম্পন হয়। আর এর প্রায় ৩ ঘণ্টা পর তৃতীয় দফায় ভূমিকম্প প্রত্যক্ষ করে দেশটি।

ভারতের ন্যাশনাল সেন্টার ফর সিসমোলজি এই তিনটি ভূমিকম্পের কথাই নিশ্চিত করেছে। প্রথম ভূমিকম্পটি মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুনে আঘাত হানে ভারতীয় সময় রাত ১১টা ৫৬ মিনিটে। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৪.৪।

ন্যাশনাল সেন্টার ফর সিসমোলজি (এনসিএস) টুইটারে দেওয়া এক বার্তায় জানিয়েছে, ‘ভারতীয় সময় রাত ১১টা ৫৬ মিনিটে (মিয়ানমার সময় রাত ১২টা ৫৬) মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুন শহরের ২২৭ কিলোমিটার দক্ষিণে রিখটার স্কেলে ৪.৪ মাত্রার একটি ভূমিকম্প আঘাত হানে। ভূমিকম্পটির গভীরতা ছিল ভূপৃষ্ঠ থেকে ২৫ কিলোমিটার।’

এর প্রায় তিন ঘণ্টা পর দ্বিতীয় দফায় ভূমিকম্প হয় মিয়ানমারে। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৪.২। এর গভীরতা ১০ কিমি ছিল বলে জানা গেছে। এনসিএস জানিয়েছে, ‘ভারতীয় সময় রাত ২টা ৫৩ মিনিটে ইয়াঙ্গুন শহরের ১৬০ কিলোমিটার দক্ষিণে রিখটার স্কেলে ৪.২ মাত্রার ওই ভূমিকম্পটি আঘাত হানে।’

আর দ্বিতীয় দফার ভূমিকম্পের পর বৃহস্পতিবার ভোরে মিয়ানমারে তৃতীয় দফায় কম্পন অনুভূত হয়। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৪.৫। এনসিএস জানায়, বৃহস্পতিবার মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুনে ৪.৫ মাত্রার ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে।

টুইটারে দেওয়া এক বার্তায় সংস্থাটি জানায়, ‘ভারতীয় সময় বৃহস্পতিবার ভোর ৫টা ৪৩ মিনিটে ইয়াঙ্গুনের ১৭৪ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপূর্বে ৪.৫ মাত্রার ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। এর গভীরতা ৪৮ কিলোমিটার বলে জানা গেছে।’

এদিকে ভূমিকম্পের পর তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতের কোনো খবর এখনও পাওয়া যায়নি।

এদিকে ভারতের ন্যাশনাল সেন্টার ফর সিসমোলজি (এনসিএস) বলছে, বৃহস্পতিবার ভোররাতে মিয়ানমারে আরও একটি ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৪.৪। এর গভীরতা ১৫ কিমি ছিল বলে জানা গেছে।

টুইটারে দেওয়া এক বার্তায় সংস্থাটি জানায়, ‘ভারতীয় সময় বৃহস্পতিবার ভোর ৩টা ২৮ মিনিটে ইয়াঙ্গুনের ৩৪২ কিলোমিটার দক্ষিণে ৪.৪ মাত্রার আরেকটি ভূমিকম্প আঘাত হানে। এর গভীরতা ছিল ভূপৃষ্ঠ থেকে ১৫ কিলোমিটার।’

এর আগে গত মে মাসে দুই দফায় ভূমিকম্পে কাঁপে মিয়ানমার। মে মাসের শুরুতে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার এই দেশটিতে হওয়া প্রথম ভূমিকম্পটি ভূপৃষ্ঠ থেকে ১০ কিলোমিটার গভীরে আঘাত হানে এবং রিখটার স্কেলে তার মাত্রা ছিল ৪ দশমিক ২।

এরপর একই মাসের ২২ তারিখ সকালে আঘাত হানা দ্বিতীয় দফার ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল রিখটার স্কেলে ৪ দশমিক ৫। ভূমিকম্পটির গভীরতা ছিল ভূপৃষ্ঠ থেকে ১৪ কিলোমিটার গভীরে।

এর আগে গত ফেব্রুয়ারি মাসের শেষে দিকে মিয়ানমারে মাঝারি মাত্রার জোড়া ভূমিকম্প আঘাত হানে। স্থানীয় সময় বিকেলের দিকে দেশটির আয়াবতী ও রাখাইন রাজ্যে এ দুই ভূমিকম্প আঘাত হানলেও কম্পন অনুভূত হয়েছিল বাংলাদেশের কক্সবাজারেও।

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

dainik madhumati

জনপ্রিয়

ডুমুরিয়ায় মোটরসাইকেল-ইঞ্জিন ভ্যান সংঘর্ষে নিহত-২,আহত-৪

ছয় ঘণ্টারও কম সময়ে ৪ বার ভূমিকম্পে কাঁপল মিয়ানমার

প্রকাশিত সময় : ০৫:৪০:০৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ জুন ২০২৩

প্রতিবেশী দেশ মিয়ানমারে চার দফায় আঘাত হেনেছে ভূমিকম্প। মধ্যরাত থেকে ভোর পর্যন্ত ছয় ঘণ্টারও কম সময়ের ব্যবধানে এসব ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার এই দেশটি। অবশ্য ভূমিকম্পের জেরে তাৎক্ষণিকভাবে কোনও ক্ষয়ক্ষতির তথ্য পাওয়া যায়নি।

ভারতীয় বার্তাসংস্থা এএনআইয়ের বরাত দিয়ে বৃহস্পতিবার (২২ জুন) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকে ভোর পর্যন্ত ছয় ঘণ্টারও কম সময়ে চার দফায় ভূমিকম্পে কেঁপে উঠেছে মিয়ানমার। রাত ১২টার কিছু আগে প্রথম কম্পনের প্রায় তিন ঘণ্টা পর মিয়ানমারে দ্বিতীয় দফায় কম্পন হয়। আর এর প্রায় ৩ ঘণ্টা পর তৃতীয় দফায় ভূমিকম্প প্রত্যক্ষ করে দেশটি।

ভারতের ন্যাশনাল সেন্টার ফর সিসমোলজি এই তিনটি ভূমিকম্পের কথাই নিশ্চিত করেছে। প্রথম ভূমিকম্পটি মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুনে আঘাত হানে ভারতীয় সময় রাত ১১টা ৫৬ মিনিটে। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৪.৪।

ন্যাশনাল সেন্টার ফর সিসমোলজি (এনসিএস) টুইটারে দেওয়া এক বার্তায় জানিয়েছে, ‘ভারতীয় সময় রাত ১১টা ৫৬ মিনিটে (মিয়ানমার সময় রাত ১২টা ৫৬) মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুন শহরের ২২৭ কিলোমিটার দক্ষিণে রিখটার স্কেলে ৪.৪ মাত্রার একটি ভূমিকম্প আঘাত হানে। ভূমিকম্পটির গভীরতা ছিল ভূপৃষ্ঠ থেকে ২৫ কিলোমিটার।’

এর প্রায় তিন ঘণ্টা পর দ্বিতীয় দফায় ভূমিকম্প হয় মিয়ানমারে। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৪.২। এর গভীরতা ১০ কিমি ছিল বলে জানা গেছে। এনসিএস জানিয়েছে, ‘ভারতীয় সময় রাত ২টা ৫৩ মিনিটে ইয়াঙ্গুন শহরের ১৬০ কিলোমিটার দক্ষিণে রিখটার স্কেলে ৪.২ মাত্রার ওই ভূমিকম্পটি আঘাত হানে।’

আর দ্বিতীয় দফার ভূমিকম্পের পর বৃহস্পতিবার ভোরে মিয়ানমারে তৃতীয় দফায় কম্পন অনুভূত হয়। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৪.৫। এনসিএস জানায়, বৃহস্পতিবার মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুনে ৪.৫ মাত্রার ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে।

টুইটারে দেওয়া এক বার্তায় সংস্থাটি জানায়, ‘ভারতীয় সময় বৃহস্পতিবার ভোর ৫টা ৪৩ মিনিটে ইয়াঙ্গুনের ১৭৪ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপূর্বে ৪.৫ মাত্রার ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। এর গভীরতা ৪৮ কিলোমিটার বলে জানা গেছে।’

এদিকে ভূমিকম্পের পর তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতের কোনো খবর এখনও পাওয়া যায়নি।

এদিকে ভারতের ন্যাশনাল সেন্টার ফর সিসমোলজি (এনসিএস) বলছে, বৃহস্পতিবার ভোররাতে মিয়ানমারে আরও একটি ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৪.৪। এর গভীরতা ১৫ কিমি ছিল বলে জানা গেছে।

টুইটারে দেওয়া এক বার্তায় সংস্থাটি জানায়, ‘ভারতীয় সময় বৃহস্পতিবার ভোর ৩টা ২৮ মিনিটে ইয়াঙ্গুনের ৩৪২ কিলোমিটার দক্ষিণে ৪.৪ মাত্রার আরেকটি ভূমিকম্প আঘাত হানে। এর গভীরতা ছিল ভূপৃষ্ঠ থেকে ১৫ কিলোমিটার।’

এর আগে গত মে মাসে দুই দফায় ভূমিকম্পে কাঁপে মিয়ানমার। মে মাসের শুরুতে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার এই দেশটিতে হওয়া প্রথম ভূমিকম্পটি ভূপৃষ্ঠ থেকে ১০ কিলোমিটার গভীরে আঘাত হানে এবং রিখটার স্কেলে তার মাত্রা ছিল ৪ দশমিক ২।

এরপর একই মাসের ২২ তারিখ সকালে আঘাত হানা দ্বিতীয় দফার ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল রিখটার স্কেলে ৪ দশমিক ৫। ভূমিকম্পটির গভীরতা ছিল ভূপৃষ্ঠ থেকে ১৪ কিলোমিটার গভীরে।

এর আগে গত ফেব্রুয়ারি মাসের শেষে দিকে মিয়ানমারে মাঝারি মাত্রার জোড়া ভূমিকম্প আঘাত হানে। স্থানীয় সময় বিকেলের দিকে দেশটির আয়াবতী ও রাখাইন রাজ্যে এ দুই ভূমিকম্প আঘাত হানলেও কম্পন অনুভূত হয়েছিল বাংলাদেশের কক্সবাজারেও।