১০:৫৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঝিনাইদহে সোনা চোরাচালান মামলার ২আসামীর দশ বছরের কারাদন্ড

###   ঝিনাইদহে সোনা চোরাচালান মামলায় দুই আসামীর প্রত্যেককে দশ বছর করে সশ্রম কারাদন্ড ও পঞ্চাশ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো এক বছরের কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত। মঙ্গলবার ঝিনাইদহ সিনিয়র স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক মোঃ নাজিমুদ্দৌলা এই রায় ঘোষণা করেন। দন্ডপ্রাপ্ত আসামীরা হলেন, চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার দৌলতগঞ্জ দেয়াড়াপাড়ার শ্রীষষ্টি কর্মকারের ছেলে সুনীল কর্মকার ও একই উপজেলার বাজারপাড়ার মৃত ফয়জুল্লাহ মোল্লার ছেলে ওবাইদুল্লাহ। মামলার বিবরনে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ৪ মার্চ কোটচাঁদপুর থানা পুলিশ জেআর পরিবহনে এক চোরাচালান বিরোধী অভিযান চালিয়ে ১১৫০ গ্রাম ওজনের সোনার গহনা জব্দ করে। এ সময় গ্রেফতার হয় সোনা বহনকারী সুনীল কর্মকার। তিনি জিজ্ঞাসাবাদে জানান, এই সোনার মালিক জীবননগরের ওবাইদুল্লাহ। পুলিশ বাদী হয়ে দুই জনের নামে মামলা করে। তদন্ত শেষে কোটচাঁদপুর থানার তৎকালীন ওসি শহিদুল ইসলাম ও এসআই মঞ্জুরুল ইসলাম ২০১৫ সালের ১১ জুলাই আদালতে চার্জসীট প্রদান করেন। ৭ বছর মামলা চলার পর আদালত সাক্ষ্য প্রমান শেষে মঙ্গলবার এই রায় প্রদান করেন। রাষ্ট্র পক্ষে পিপি এ্যাডভোকেট ইসমাইল হোসেন ও আসামী পক্ষে মোঃ বদিউজ্জামান মামলাটি পরিচালনা করেন। ##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik Madhumati

জনপ্রিয়

ঝিনাইদহে সোনা চোরাচালান মামলার ২আসামীর দশ বছরের কারাদন্ড

প্রকাশিত সময় : ০৭:১৭:০৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৭ অক্টোবর ২০২২

###   ঝিনাইদহে সোনা চোরাচালান মামলায় দুই আসামীর প্রত্যেককে দশ বছর করে সশ্রম কারাদন্ড ও পঞ্চাশ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো এক বছরের কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত। মঙ্গলবার ঝিনাইদহ সিনিয়র স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক মোঃ নাজিমুদ্দৌলা এই রায় ঘোষণা করেন। দন্ডপ্রাপ্ত আসামীরা হলেন, চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার দৌলতগঞ্জ দেয়াড়াপাড়ার শ্রীষষ্টি কর্মকারের ছেলে সুনীল কর্মকার ও একই উপজেলার বাজারপাড়ার মৃত ফয়জুল্লাহ মোল্লার ছেলে ওবাইদুল্লাহ। মামলার বিবরনে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ৪ মার্চ কোটচাঁদপুর থানা পুলিশ জেআর পরিবহনে এক চোরাচালান বিরোধী অভিযান চালিয়ে ১১৫০ গ্রাম ওজনের সোনার গহনা জব্দ করে। এ সময় গ্রেফতার হয় সোনা বহনকারী সুনীল কর্মকার। তিনি জিজ্ঞাসাবাদে জানান, এই সোনার মালিক জীবননগরের ওবাইদুল্লাহ। পুলিশ বাদী হয়ে দুই জনের নামে মামলা করে। তদন্ত শেষে কোটচাঁদপুর থানার তৎকালীন ওসি শহিদুল ইসলাম ও এসআই মঞ্জুরুল ইসলাম ২০১৫ সালের ১১ জুলাই আদালতে চার্জসীট প্রদান করেন। ৭ বছর মামলা চলার পর আদালত সাক্ষ্য প্রমান শেষে মঙ্গলবার এই রায় প্রদান করেন। রাষ্ট্র পক্ষে পিপি এ্যাডভোকেট ইসমাইল হোসেন ও আসামী পক্ষে মোঃ বদিউজ্জামান মামলাটি পরিচালনা করেন। ##