১০:২৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ডুমুরিয়ায় ভদ্রা নদীর চর দখলের মহা উৎসব চলছে

  • সংবাদদাতা
  • প্রকাশিত সময় : ১১:৩০:৪০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৭ মার্চ ২০২৩
  • ২১ পড়েছেন

সাব্বির খান ডালিম ডুমুরিয়া :

খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলায় ভদ্রা নদীর চর দখলের মহা উৎসব চলছে। এই নদী খেকোরা চর দখল করেই ক্ষান্ত হচ্ছে বর্তমানে মূল নদীতে মাটি ফেলে তা ভরাট করে জমি তৈরি করছে। সোমবার দুপুরে সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, কেশবপুর উপজেলার পাথরা গ্রামের মৃত ফয়েজ আলী মোড়লের ছেলে নাজের আলী মোড়ল সদ্য খনন করা নদী জুড়ে মাটি ভরাট করে ফসলি জমি তৈরি করছে। এতে জোয়ার ভাটার সময় পানি সরবরাহে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হবে এমন ধারনা করছে এলাকাবাসী। এছাড়া এই নদীর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ কেটে সেই মাটি নদীর জুড়ে ফেলে ফসলি জমি তৈরি করা হচ্ছে। এতে বর্ষার মৌসুমে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে বিন্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হওয়ার সম্ভাবনার আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী। সঙ্গত কারণে ভদ্রা নদীটির এপারে খুলনা জেলা ডুমুরিয়া উপজেলার মানুষের বসবাস ও ওপারে যশোর জেলার কেশবপুর উপজেলার মানুষের বসবাস। দেখা গেছে নদীটির ডুমুরিয়া উপজেলা এলাকাবাসী দখল না করলেও কেশবপুর উপজেলার মানুষ নদীটির চরসহ নদী দখলেন মহা উৎসবে মেতেছে। এ ব্যাপারে কেশবপুর উপজেলার এসডি মুন্সি আসাদুল্লাহ ও এসও ফিরোজ আহম্মেদ বলেন, বিষয়টি আমরা জানি। অল্পদিনের মধ্যে ইউএনও স্যারের সাথে কথা বলে ওখানে একটি অভিযান পরিচালনা করা হবে।

 

 

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

dainik madhumati

জনপ্রিয়

বাকেরগঞ্জে কৃষি ব্যাংকের গ্রাহকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা

ডুমুরিয়ায় ভদ্রা নদীর চর দখলের মহা উৎসব চলছে

প্রকাশিত সময় : ১১:৩০:৪০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৭ মার্চ ২০২৩

সাব্বির খান ডালিম ডুমুরিয়া :

খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলায় ভদ্রা নদীর চর দখলের মহা উৎসব চলছে। এই নদী খেকোরা চর দখল করেই ক্ষান্ত হচ্ছে বর্তমানে মূল নদীতে মাটি ফেলে তা ভরাট করে জমি তৈরি করছে। সোমবার দুপুরে সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, কেশবপুর উপজেলার পাথরা গ্রামের মৃত ফয়েজ আলী মোড়লের ছেলে নাজের আলী মোড়ল সদ্য খনন করা নদী জুড়ে মাটি ভরাট করে ফসলি জমি তৈরি করছে। এতে জোয়ার ভাটার সময় পানি সরবরাহে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হবে এমন ধারনা করছে এলাকাবাসী। এছাড়া এই নদীর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ কেটে সেই মাটি নদীর জুড়ে ফেলে ফসলি জমি তৈরি করা হচ্ছে। এতে বর্ষার মৌসুমে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে বিন্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হওয়ার সম্ভাবনার আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী। সঙ্গত কারণে ভদ্রা নদীটির এপারে খুলনা জেলা ডুমুরিয়া উপজেলার মানুষের বসবাস ও ওপারে যশোর জেলার কেশবপুর উপজেলার মানুষের বসবাস। দেখা গেছে নদীটির ডুমুরিয়া উপজেলা এলাকাবাসী দখল না করলেও কেশবপুর উপজেলার মানুষ নদীটির চরসহ নদী দখলেন মহা উৎসবে মেতেছে। এ ব্যাপারে কেশবপুর উপজেলার এসডি মুন্সি আসাদুল্লাহ ও এসও ফিরোজ আহম্মেদ বলেন, বিষয়টি আমরা জানি। অল্পদিনের মধ্যে ইউএনও স্যারের সাথে কথা বলে ওখানে একটি অভিযান পরিচালনা করা হবে।