০৪:৩২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
পুণর্বাসনের উদ্যোগ ছাড়া উচ্ছেদের হুমকিতে ঐক্য পরিষদ উদ্বেগজনক

ঢাকার যাত্রাবাড়ির তেলেগু এলাকার বাসিন্দাদের উচ্ছেদের হুমকি মেয়র তাপসের

  • অফিস ডেক্স।।
  • প্রকাশিত সময় : ০১:৫৬:১৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
  • ৫৭ পড়েছেন

###    ঢাকা মহানগরের যাত্রাবাড়ি এলাকার ধলপুরের তেলেগু সম্প্রদায়ের বাসিন্দাদের শনিবারের মধ্যে তাদের বাড়িঘর থেকে বেড়িয়ে যাবার মৌখিক নির্দেশ দিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস। গতকাল ০৯ ফেব্রুয়ারি সংশ্লিষ্ট এলাকার মাতব্বরদের নিজ অফিসে ডেকে নিয়ে মেয়র এ নির্দেশনা দেয়ার পর থেকে এলাকার প্রায় ১২/১৩ শত বাসিন্দা দারুণ উদ্বেগ ও উৎকন্ঠায় তাদের জীবন প্রতিপালন করছে। এ ঘটনার পর থেকে অনেক বাড়িতে রান্নবান্না বন্ধ হয়ে গেছে। উল্লেখ্য এই কলোনীর সবাই তেলেগু সম্প্রদায়ের। মেয়রের এ নির্দেশনার আগের দিন বুধবার স্থানীয় যাত্রাবাড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বাসিন্দাদের মাতব্বরদর থানায় ডেকে নিয়ে এ মর্মে হুমকি দেন যে, সিটি কর্পোরেশন যে নির্দেশনা দেবেন তা তাদের অক্ষরে অক্ষরে মানতে হবে। তিনি আরও বলেন, এর বিরুদ্ধে কোন ধরণের প্রতিবাদ, মানববন্ধন চলবে না বা কাউকেও এ বিষয়ে কোন কিছু বলা যাবেনা। এহেন অবস্থায় এলাকার তেলেগু সম্প্রদায়ের নারী-পুরুষ নির্বিশেষে বাসিন্দারা আজ সকাল ১০টায় জাতীয় প্রেসক্লাব চত্বরে জমায়েত হয়ে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করে। মানববন্ধনে তারা বলেন, বৃটিশ আমলে বৃটিশ সরকার ভারতের তেলেঙ্গানা রাজ্য থেকে তাদের পূর্ব পুরুষদের এ অঞ্চলে নিয়ে এসেছিল ‘জাত মেথর’ হিসেবে কাজ করানোর জন্যে এবং সারাদেশে ‘মেথর পট্টি’ গড়ে তুলে তাদের বাসস্থানের ব্যবস্থা করেছিল। কালের পরিক্রমায় জাত মেথরদের সুপরিকল্পিতভাবে তাদের পুরুষানুক্রমিক পেশা থেকে উৎখাত করে তাদের স্থলে বাঙ্গালীদের নিয়োগের জন্যে পরবর্তীতে স্বাধীন বাংলাদেশে মেথরদের ‘পরিচ্ছন্নতা কর্মী’ হিসেবে অ্যাখ্যা দেয় হয়। এর মাধ্যমে জাত মেথরদের বেশিরভাগকে তাদের জাত পেশা থেকে সুকৌশলে বঞ্চিত করা হয় এবং অন্যকোন পেশায় তাদের নিয়োগের কোন সরকারি বা স্বায়ত্বশাসিত সংস্থার পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। এমনতরো পরিস্থিতিতে সুদীর্ঘকাল ধরে তেলেগুভাষী মেথর সম্প্রদায়ের একটি অংশ ঢাকার যাত্রাবাড়ি থানার ধলপুরে বসবাস করে আসছে। মানববন্ধনে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতিমন্ডলীর অন্যতম সদস্য কাজল দেবনাথ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনীন্দ্র কুমার নাথ, সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. কিশোর রঞ্জন মন্ডল, দপ্তর সম্পাদক মিহির রঞ্জন হাওলাদার, বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের সভাপতি ড. প্রভাষ কুমার রায়, নির্বাহী সম্পাদক পলাশ দে প্রমুখ তেলেগু সম্প্রদায়ের মাববন্ধনের সাথে সংহতি প্রকাশ করেন।
মানববন্ধন সমাপ্তির পর বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য কাজল দেবনাথ ও সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট রাণা দাশগুপ্ত ১৪ নং আউটফল, ধলপুর, যাত্রাবাড়ির তেলেগু কলোনীতে যান এবং সেখানকার বাসিন্দাদের সাথে কথা বলে সার্বিক বিষয়ে অবহিত হন। তারা কলোনীর বাসিন্দাদের উদ্দেশ্যে বলেন, পুণর্বাসনের ব্যবস্থা ছাড়া বিনা নোটিশে এদের উৎখাতের যেকোন অপপ্রয়াস বেআইনী, অগণতান্ত্রিক ও স্বেচ্ছাচারমূলক। তারা আশা করেন, একজন আইনজীবী হিসেবে কর্পোরেশনের মেয়র আইনের আইনী বাধ্যবাধকতার কারণে এহেন বেআইনী কাজ থেকে বিরত থাকবেন। উল্লেখ্য, ঐ মেথর কলোনীতে একটি প্রাচীন মন্দির, দুটি গীর্জা ও একটি স্কুল রয়েছে। ##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

দশমিনায় অসহায় ও দরিদ্রদের মাঝে চেক বিতরণ

পুণর্বাসনের উদ্যোগ ছাড়া উচ্ছেদের হুমকিতে ঐক্য পরিষদ উদ্বেগজনক

ঢাকার যাত্রাবাড়ির তেলেগু এলাকার বাসিন্দাদের উচ্ছেদের হুমকি মেয়র তাপসের

প্রকাশিত সময় : ০১:৫৬:১৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

###    ঢাকা মহানগরের যাত্রাবাড়ি এলাকার ধলপুরের তেলেগু সম্প্রদায়ের বাসিন্দাদের শনিবারের মধ্যে তাদের বাড়িঘর থেকে বেড়িয়ে যাবার মৌখিক নির্দেশ দিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস। গতকাল ০৯ ফেব্রুয়ারি সংশ্লিষ্ট এলাকার মাতব্বরদের নিজ অফিসে ডেকে নিয়ে মেয়র এ নির্দেশনা দেয়ার পর থেকে এলাকার প্রায় ১২/১৩ শত বাসিন্দা দারুণ উদ্বেগ ও উৎকন্ঠায় তাদের জীবন প্রতিপালন করছে। এ ঘটনার পর থেকে অনেক বাড়িতে রান্নবান্না বন্ধ হয়ে গেছে। উল্লেখ্য এই কলোনীর সবাই তেলেগু সম্প্রদায়ের। মেয়রের এ নির্দেশনার আগের দিন বুধবার স্থানীয় যাত্রাবাড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বাসিন্দাদের মাতব্বরদর থানায় ডেকে নিয়ে এ মর্মে হুমকি দেন যে, সিটি কর্পোরেশন যে নির্দেশনা দেবেন তা তাদের অক্ষরে অক্ষরে মানতে হবে। তিনি আরও বলেন, এর বিরুদ্ধে কোন ধরণের প্রতিবাদ, মানববন্ধন চলবে না বা কাউকেও এ বিষয়ে কোন কিছু বলা যাবেনা। এহেন অবস্থায় এলাকার তেলেগু সম্প্রদায়ের নারী-পুরুষ নির্বিশেষে বাসিন্দারা আজ সকাল ১০টায় জাতীয় প্রেসক্লাব চত্বরে জমায়েত হয়ে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করে। মানববন্ধনে তারা বলেন, বৃটিশ আমলে বৃটিশ সরকার ভারতের তেলেঙ্গানা রাজ্য থেকে তাদের পূর্ব পুরুষদের এ অঞ্চলে নিয়ে এসেছিল ‘জাত মেথর’ হিসেবে কাজ করানোর জন্যে এবং সারাদেশে ‘মেথর পট্টি’ গড়ে তুলে তাদের বাসস্থানের ব্যবস্থা করেছিল। কালের পরিক্রমায় জাত মেথরদের সুপরিকল্পিতভাবে তাদের পুরুষানুক্রমিক পেশা থেকে উৎখাত করে তাদের স্থলে বাঙ্গালীদের নিয়োগের জন্যে পরবর্তীতে স্বাধীন বাংলাদেশে মেথরদের ‘পরিচ্ছন্নতা কর্মী’ হিসেবে অ্যাখ্যা দেয় হয়। এর মাধ্যমে জাত মেথরদের বেশিরভাগকে তাদের জাত পেশা থেকে সুকৌশলে বঞ্চিত করা হয় এবং অন্যকোন পেশায় তাদের নিয়োগের কোন সরকারি বা স্বায়ত্বশাসিত সংস্থার পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। এমনতরো পরিস্থিতিতে সুদীর্ঘকাল ধরে তেলেগুভাষী মেথর সম্প্রদায়ের একটি অংশ ঢাকার যাত্রাবাড়ি থানার ধলপুরে বসবাস করে আসছে। মানববন্ধনে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতিমন্ডলীর অন্যতম সদস্য কাজল দেবনাথ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনীন্দ্র কুমার নাথ, সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. কিশোর রঞ্জন মন্ডল, দপ্তর সম্পাদক মিহির রঞ্জন হাওলাদার, বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের সভাপতি ড. প্রভাষ কুমার রায়, নির্বাহী সম্পাদক পলাশ দে প্রমুখ তেলেগু সম্প্রদায়ের মাববন্ধনের সাথে সংহতি প্রকাশ করেন।
মানববন্ধন সমাপ্তির পর বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য কাজল দেবনাথ ও সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট রাণা দাশগুপ্ত ১৪ নং আউটফল, ধলপুর, যাত্রাবাড়ির তেলেগু কলোনীতে যান এবং সেখানকার বাসিন্দাদের সাথে কথা বলে সার্বিক বিষয়ে অবহিত হন। তারা কলোনীর বাসিন্দাদের উদ্দেশ্যে বলেন, পুণর্বাসনের ব্যবস্থা ছাড়া বিনা নোটিশে এদের উৎখাতের যেকোন অপপ্রয়াস বেআইনী, অগণতান্ত্রিক ও স্বেচ্ছাচারমূলক। তারা আশা করেন, একজন আইনজীবী হিসেবে কর্পোরেশনের মেয়র আইনের আইনী বাধ্যবাধকতার কারণে এহেন বেআইনী কাজ থেকে বিরত থাকবেন। উল্লেখ্য, ঐ মেথর কলোনীতে একটি প্রাচীন মন্দির, দুটি গীর্জা ও একটি স্কুল রয়েছে। ##