০৫:৪১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

তেরখাদায় চেয়ারম্যান মহসীন বাহিনী দখল করলো ভূমিহীন মহিলার দোকান ঘর, অপহরণ ও পাচারের হুমকিতে নাতনীর লেখাপড়া বন্ধ

###    খুলনার তেরখাদার মধুপুর ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মো: মহসীন সহায়তার পরিবর্তে সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে দখল করলো ভূমিহীন অসহায় ফাতেমা বেগমেরে একমাত্র সম্বল দোকান ঘর।এছাড়া মহসীন বাহিনীর দখল, অত্যাচার ও র্নিযাতনের বিরুদ্ধে মামলা করায় বেপরোয়া হামলা ও মারপিট করে ঘরছাড়া করেছে তার পুরো পরিবারকে।তারপরও থেমে নেই মহসীনের সন্ত্রাসী বাহিনীর অত্যাচার-র্নিযাতন।ফাতেমা বেগমের শিশু নাতনীকেও রেহাই দিচ্ছে না মহসীনের বাহিনী। তাকেও অপহরণ করে অত্যাচার ও ভারতে পাচার এবং প্রাননাশের হুমকি-ধামকিদেয়ায় বন্ধ হয়ে গেছে সপ্তম শ্রেনীর শির্ক্ষাথী নাতনীর লেখাপড়া। বৃহষ্পতিবার ইউপি চেয়ারম্যান মহসীন ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীর সদস্যদেরকে গ্রেফতার ও শাস্তি এবং নিজেদের নিরাপত্তার দাবীতে তেরখাদা উপজেলার র্দুজনীমহল গ্রামের মো: ইউনুস শেখের স্ত্রী ফাতেমা বেগম খুলনা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা তুলে ধরেন সাংবাদিকদের কাছে। এ সময় মহসীণ বাহিনীল অত্যাচার-র্নিযাতনের ঘটনার বর্ননা দিয়ে তিনি নিজের জীবন ও পরিবারের সদস্যদের বাচাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপও কামনা করেছেন। খুলনা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে ফাতেমা বেগম জানা, তিনি ২০১৫সালে সাড়ে ১৩শতাংশ জমি ও একটি দোকান ঘর কিনে তার মাধ্যমে পরিবার-পরিজন নিয়ে কোন রকমে জীবন অতিবাহিত করছেন।তার ক্রয়কৃত মল্লিকপুর স্লুইচ গেট সংলগ্ন ওই জমি ও দোকান ঘর দখলের জন্য মধুপুর ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মহসীন বাহিনীর করিম মোল্লা, ইসমাইল বাওয়ালী, মো: সজীভ ও তোববিন শেখসহ সন্ত্রাসীরা অত্যাচার-র্নিযাতন চালাচ্ছে। পরে তার সপ্তম শ্রেনীতে পড়ুয়া নাতনীকে মহসীণ বাহিনীর সন্ত্রাসীরা অপহরন করে র্নিযাতন ও ভারতে পাচারের চেষ্টা করে। এ ঘটনায় আদালতে মামলা করলে মহসীণ বাহিনী আরও ক্ষিপ্ত হয়ে বাড়ীতে হামরা করে সবাইকে মারপিট করে এবং দোকান ঘরটি ভেঙ্গে দিয়ে দখল করে নেয়। এখন সেখানে মহসীন বাহিনীর লোকজন পাকা ঘর র্নিমান করছে।সন্ত্রাসী করিম মোল্লা, ইসমাইল বাওয়ালী, মো: সজীভ ও তোববিন শেখসহ মহসীণ বাহিনীর সন্ত্রাসীদের নামে তেরখাদা থানায় ৮টি ও আদালতে ৩টি এবং রূপসা থানায় মোট ১৪-১৫টি মামলা রয়েছে। কিন্তু সরকারী দলের প্রভাবশালী নেতার শেল্টারে থাকায় পুলিশ ও প্রশাসনও তাদেরকে কিছুই বলছে না।এলাকার মানুষও কিছু বলতে সাহসও পাচ্ছে না।ফলে দিন দিন এলাকার মানুষের উপর মহসীণ বাহিনীর অত্যাচার-র্নিযাতন বেড়েই চলেছে। ফাতেমা আরও অভিযোগ করে বলেন, তেরখাদা থানা তার মামলা নেয়নি। এমনকি তেরখাদার সাংবাদিকরাও মহসীনের সন্স্থাত্য়রাসী বাহিনীর কাছে অসহায় হয়ে পড়েছে। খুলনায় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করতে আনার পথে মহসীনের সন্ত্রাসী বাহিনীল সদস্যরা তাকে আটকে রাখে ও হত্যার হুমকি দেয়। এই অবস্থায় নিজের একমাত্র আয়ের সম্বল দোকান ঘর দখলমুক্ত এবং মহসীন বাহিনীর হাত থেকে কিশোরী নাতনীসহ পরিবারের সদস্যদের বাচাতে প্রধানমন্ত্রী ও উর্ধ্বতন কর্তাদের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে অসহায় নারী ফাতেমার পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। ##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

জনপ্রিয়

দশমিনায় পরীক্ষায় অসৎ উপায় অবলম্বন করায় দুই শিক্ষার্থী বহিস্কার

তেরখাদায় চেয়ারম্যান মহসীন বাহিনী দখল করলো ভূমিহীন মহিলার দোকান ঘর, অপহরণ ও পাচারের হুমকিতে নাতনীর লেখাপড়া বন্ধ

প্রকাশিত সময় : ০৯:০৬:১৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

###    খুলনার তেরখাদার মধুপুর ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মো: মহসীন সহায়তার পরিবর্তে সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে দখল করলো ভূমিহীন অসহায় ফাতেমা বেগমেরে একমাত্র সম্বল দোকান ঘর।এছাড়া মহসীন বাহিনীর দখল, অত্যাচার ও র্নিযাতনের বিরুদ্ধে মামলা করায় বেপরোয়া হামলা ও মারপিট করে ঘরছাড়া করেছে তার পুরো পরিবারকে।তারপরও থেমে নেই মহসীনের সন্ত্রাসী বাহিনীর অত্যাচার-র্নিযাতন।ফাতেমা বেগমের শিশু নাতনীকেও রেহাই দিচ্ছে না মহসীনের বাহিনী। তাকেও অপহরণ করে অত্যাচার ও ভারতে পাচার এবং প্রাননাশের হুমকি-ধামকিদেয়ায় বন্ধ হয়ে গেছে সপ্তম শ্রেনীর শির্ক্ষাথী নাতনীর লেখাপড়া। বৃহষ্পতিবার ইউপি চেয়ারম্যান মহসীন ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীর সদস্যদেরকে গ্রেফতার ও শাস্তি এবং নিজেদের নিরাপত্তার দাবীতে তেরখাদা উপজেলার র্দুজনীমহল গ্রামের মো: ইউনুস শেখের স্ত্রী ফাতেমা বেগম খুলনা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা তুলে ধরেন সাংবাদিকদের কাছে। এ সময় মহসীণ বাহিনীল অত্যাচার-র্নিযাতনের ঘটনার বর্ননা দিয়ে তিনি নিজের জীবন ও পরিবারের সদস্যদের বাচাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপও কামনা করেছেন। খুলনা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে ফাতেমা বেগম জানা, তিনি ২০১৫সালে সাড়ে ১৩শতাংশ জমি ও একটি দোকান ঘর কিনে তার মাধ্যমে পরিবার-পরিজন নিয়ে কোন রকমে জীবন অতিবাহিত করছেন।তার ক্রয়কৃত মল্লিকপুর স্লুইচ গেট সংলগ্ন ওই জমি ও দোকান ঘর দখলের জন্য মধুপুর ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মহসীন বাহিনীর করিম মোল্লা, ইসমাইল বাওয়ালী, মো: সজীভ ও তোববিন শেখসহ সন্ত্রাসীরা অত্যাচার-র্নিযাতন চালাচ্ছে। পরে তার সপ্তম শ্রেনীতে পড়ুয়া নাতনীকে মহসীণ বাহিনীর সন্ত্রাসীরা অপহরন করে র্নিযাতন ও ভারতে পাচারের চেষ্টা করে। এ ঘটনায় আদালতে মামলা করলে মহসীণ বাহিনী আরও ক্ষিপ্ত হয়ে বাড়ীতে হামরা করে সবাইকে মারপিট করে এবং দোকান ঘরটি ভেঙ্গে দিয়ে দখল করে নেয়। এখন সেখানে মহসীন বাহিনীর লোকজন পাকা ঘর র্নিমান করছে।সন্ত্রাসী করিম মোল্লা, ইসমাইল বাওয়ালী, মো: সজীভ ও তোববিন শেখসহ মহসীণ বাহিনীর সন্ত্রাসীদের নামে তেরখাদা থানায় ৮টি ও আদালতে ৩টি এবং রূপসা থানায় মোট ১৪-১৫টি মামলা রয়েছে। কিন্তু সরকারী দলের প্রভাবশালী নেতার শেল্টারে থাকায় পুলিশ ও প্রশাসনও তাদেরকে কিছুই বলছে না।এলাকার মানুষও কিছু বলতে সাহসও পাচ্ছে না।ফলে দিন দিন এলাকার মানুষের উপর মহসীণ বাহিনীর অত্যাচার-র্নিযাতন বেড়েই চলেছে। ফাতেমা আরও অভিযোগ করে বলেন, তেরখাদা থানা তার মামলা নেয়নি। এমনকি তেরখাদার সাংবাদিকরাও মহসীনের সন্স্থাত্য়রাসী বাহিনীর কাছে অসহায় হয়ে পড়েছে। খুলনায় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করতে আনার পথে মহসীনের সন্ত্রাসী বাহিনীল সদস্যরা তাকে আটকে রাখে ও হত্যার হুমকি দেয়। এই অবস্থায় নিজের একমাত্র আয়ের সম্বল দোকান ঘর দখলমুক্ত এবং মহসীন বাহিনীর হাত থেকে কিশোরী নাতনীসহ পরিবারের সদস্যদের বাচাতে প্রধানমন্ত্রী ও উর্ধ্বতন কর্তাদের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে অসহায় নারী ফাতেমার পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। ##