১০:২২ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তেরখাদায় ১০৩ টি মন্ডপে হচ্ছে শারদীয় দুর্গাপূজা, প্রশাসনের কড়া নজরদারি

  • সংবাদদাতা
  • প্রকাশিত সময় : ০৯:৫০:০২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২
  • ৫২ পড়েছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক ঃ ১ অক্টোবর মহাষষ্ঠীপূজার মধ্যে দিয়ে শুরু হয়েছে ৫ দিনব্যাপী সনাতন ধর্মবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। এ পূজাকে ঘিরে তৈরি হয়েছে উৎসবের আমেজ। তেরখাদা উপজেলার ৬ ইউনিয়নে ১০৩ টি মন্ডপে প্রতিমা শিল্পীরা নিজেদের সাধ্যের সবটুকু উজাড় করে রং-তুলির আঁচড়ে তাদের পরম আরাধ্য দেবীকে দৃষ্টিনন্দন করে তুলতে কাজ শেষ করেছেন। এ ছাড়া আনুষঙ্গিক অন্যান্য প্রস্ততিও চলছে পুরোদমে। ৫ অক্টোবর বিজয় দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হবে এবারের শারদীয় দুর্গোৎসব। সনাতন ধর্মালম্বীদের সর্ববৃহৎ এই উৎসব নির্বিঘেœ উদযাপনের জন্য তেরখাদা উপজেলা প্রশাসন ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।
উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সূত্রে জানা যায়, এ বছর তেরখাদায় মোট ১০৩ টি মন্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে ১০ টি পূজামন্দির ঝুঁকিপূর্ণ। তেরখাদা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অরবিন্দ প্রসাদ সাহা বলেন, সব মন্ডপে উৎসবের আমেজ বইতে শুরু করেছে, আশা করছি প্রশাসন এবং সবার সহযোগিতায় সনাতন ধর্মালম্বীরা সুন্দর ও সুষ্ঠভাবে পূজা করতে পারবেন। উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারন সম্পাদক শংকর কুমার বালা বলেন, বিগত ২ বছরে মহামারি করনার কারণে দুর্গা পূজা হলেও উৎসবের কমতি ছিল, এ বছর তেমনটা নেই। উপজেলা প্রশাসন এবং আইন শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী সব মন্ডপ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে নির্বিঘেœ পূজাউৎসব পালনের সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। নিরাপত্তার স্বার্থে এ বছর সরকারের পক্ষ থেকে প্রত্যেক মন্ডপে সিসি ক্যামেরা বসানোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আমরাও প্রতি মন্ডপে সিসি ক্যামেরা বসানোর নির্দেশ দিয়েছি। তেরখাদা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ জহুরুল আলম বলেন, পূজার নিরাপত্তায় সার্বিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। পর্যাপ্ত পুলিশ, র‌্যাব এবং আনসার ভিডিপি দায়িত্ব পালন করছে, এছাড়া আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ভ্রাম্যমান দল মাঠে রয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, পূজা সুন্দর ও সুষ্ঠ ভাবে সম্পন্ন করার জন্য প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নিয়েছি। প্রত্যেক মন্ডপে সিসি ক্যামেরা বসানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্ট এলাকায় জনপ্রতিনিধিদেরও সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া প্রশাসন মাঠে থাকবে। প্রত্যেক পূজা মন্ডপেই কড়া নজরদারির মধ্যে থাকবে। আশা করছি তেরখাদায় কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটবে না।
খুলনা-৪ আসনের এমপি আব্দুস সালাম মূর্শেদী বলেন, আমরা মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় সকলে এক সঙ্গে যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি। আমাদের ¯েøাগান ছিল জাগো বাঙালী জাগো, বীর বাঙালি অস্ত্র ধর, বাংলাদেশ স্বাধীন কর। কে হিন্দু কে মুসলিম সেই ভেদাভেদ ছিল না, সাম্প্রদায়িক-সম্প্রীতির মধ্য দিয়েই বাংলাদেশের জন্ম। বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার আমলে আজও আমরা সম্প্রীতি বজায় রেখেছি। তেরখাদায় হিন্দু মুসলিম মিলে মিসেই উৎসব পালন করে থাকে। প্রতি বছরের ন্যয় এবারও জাকজমকপূর্ণ ভাবে দুর্গা পূজা উদ্যাপন করা হবে।

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

dainik madhumati

জনপ্রিয়

ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে গলাচিপায় বেড়েছে বাতাস ও নদীর পানি

তেরখাদায় ১০৩ টি মন্ডপে হচ্ছে শারদীয় দুর্গাপূজা, প্রশাসনের কড়া নজরদারি

প্রকাশিত সময় : ০৯:৫০:০২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক ঃ ১ অক্টোবর মহাষষ্ঠীপূজার মধ্যে দিয়ে শুরু হয়েছে ৫ দিনব্যাপী সনাতন ধর্মবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। এ পূজাকে ঘিরে তৈরি হয়েছে উৎসবের আমেজ। তেরখাদা উপজেলার ৬ ইউনিয়নে ১০৩ টি মন্ডপে প্রতিমা শিল্পীরা নিজেদের সাধ্যের সবটুকু উজাড় করে রং-তুলির আঁচড়ে তাদের পরম আরাধ্য দেবীকে দৃষ্টিনন্দন করে তুলতে কাজ শেষ করেছেন। এ ছাড়া আনুষঙ্গিক অন্যান্য প্রস্ততিও চলছে পুরোদমে। ৫ অক্টোবর বিজয় দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হবে এবারের শারদীয় দুর্গোৎসব। সনাতন ধর্মালম্বীদের সর্ববৃহৎ এই উৎসব নির্বিঘেœ উদযাপনের জন্য তেরখাদা উপজেলা প্রশাসন ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।
উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সূত্রে জানা যায়, এ বছর তেরখাদায় মোট ১০৩ টি মন্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে ১০ টি পূজামন্দির ঝুঁকিপূর্ণ। তেরখাদা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অরবিন্দ প্রসাদ সাহা বলেন, সব মন্ডপে উৎসবের আমেজ বইতে শুরু করেছে, আশা করছি প্রশাসন এবং সবার সহযোগিতায় সনাতন ধর্মালম্বীরা সুন্দর ও সুষ্ঠভাবে পূজা করতে পারবেন। উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারন সম্পাদক শংকর কুমার বালা বলেন, বিগত ২ বছরে মহামারি করনার কারণে দুর্গা পূজা হলেও উৎসবের কমতি ছিল, এ বছর তেমনটা নেই। উপজেলা প্রশাসন এবং আইন শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী সব মন্ডপ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে নির্বিঘেœ পূজাউৎসব পালনের সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। নিরাপত্তার স্বার্থে এ বছর সরকারের পক্ষ থেকে প্রত্যেক মন্ডপে সিসি ক্যামেরা বসানোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আমরাও প্রতি মন্ডপে সিসি ক্যামেরা বসানোর নির্দেশ দিয়েছি। তেরখাদা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ জহুরুল আলম বলেন, পূজার নিরাপত্তায় সার্বিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। পর্যাপ্ত পুলিশ, র‌্যাব এবং আনসার ভিডিপি দায়িত্ব পালন করছে, এছাড়া আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ভ্রাম্যমান দল মাঠে রয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, পূজা সুন্দর ও সুষ্ঠ ভাবে সম্পন্ন করার জন্য প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নিয়েছি। প্রত্যেক মন্ডপে সিসি ক্যামেরা বসানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্ট এলাকায় জনপ্রতিনিধিদেরও সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া প্রশাসন মাঠে থাকবে। প্রত্যেক পূজা মন্ডপেই কড়া নজরদারির মধ্যে থাকবে। আশা করছি তেরখাদায় কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটবে না।
খুলনা-৪ আসনের এমপি আব্দুস সালাম মূর্শেদী বলেন, আমরা মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় সকলে এক সঙ্গে যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি। আমাদের ¯েøাগান ছিল জাগো বাঙালী জাগো, বীর বাঙালি অস্ত্র ধর, বাংলাদেশ স্বাধীন কর। কে হিন্দু কে মুসলিম সেই ভেদাভেদ ছিল না, সাম্প্রদায়িক-সম্প্রীতির মধ্য দিয়েই বাংলাদেশের জন্ম। বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার আমলে আজও আমরা সম্প্রীতি বজায় রেখেছি। তেরখাদায় হিন্দু মুসলিম মিলে মিসেই উৎসব পালন করে থাকে। প্রতি বছরের ন্যয় এবারও জাকজমকপূর্ণ ভাবে দুর্গা পূজা উদ্যাপন করা হবে।