০৪:৪১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
খুলনায় মৎস্য সপ্তাহের উদ্বোধন :

দেশে খুলনাঞ্চলে প্রথমবারের মত ভেনামী চিংড়ি চাষে সফলতা এসেছে

####

খুলনায় জেলা প্রশাসন ও মৎস্য অধিদপ্তর যৌথ উদ্যোগে ‘নিরাপদ মাছে ভরবো দেশ, গড়বো স্মার্ট বাংলাদেশ’ প্রতিপাদ্য নিয়ে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহের উদ্বোধন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে খুলনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি  ছিলেন খুলনার বিভাগীয় কমিশনার মোঃ হেলাল মাহমুদ শরীফ। আলোচনা সভায় বিভাগীয় কমিশনার বলেন, দেশে প্রথমবারের মত অধিক উৎপাদনশীল ভেনামী চিংড়ি চাষে খুলনাঞ্চলে সফলতা এসেছে। এ সফলতাকে কাজে লাগিয়ে ভেনামী চিংড়ী চাষে তৃণমূল র্পযায়ে চাষীদের সহায়তা করা গেলে চিংড়ী শিল্পখাত দেশের এক নম্বর রপ্তানীমুখী কাত হিসেবে উন্নয়ন সম্ভব হবে। তিনি বলেন, খুলনা অঞ্চল থেকে গলদা-বাগদা চিংড়ির ৮০ভাগ উৎপাদিত হয়। একই সাথে রপ্তানীরও সিংহভাগ এ অঞ্চল থেকেই সরবরাহ করা হয়ে থাকে। কাজেই পরিকল্পিতভাবে চিংড়ী চাষকে উৎসাহিত করতে হবে। চিংড়ীসহ মৎস্য সেক্টর মেধাবী জাতি গঠনে অবদান রেখে চলেছে। এখন নিরাপদ মাছ উৎপাদন নিশ্চিত করা জরুরি। বিদেশি প্রজাতির মাছচাষের পাশাপাশি দেশিয় প্রজাতির মাছ রক্ষার কোন বিকল্প নেই। প্রতিটি উন্মুক্ত জলাশয়কে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে মাছচাষের উপযোগী করে তুলতে পারলে মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। মাছে অপদ্রব্য মেশানো থেকে সকলকে বিরত থাকতে হবে। যারা মাছে ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য মেশায় তাদের আইনের আওতায় আনা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে মৎস্য সেক্টরসহ সংশ্লিষ্টদের এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি।

খুলনার জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন খুলনা মৎস্য অধিদপ্তরের বিভাগীয় উপপরিচালক মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপপুলিশ কমিশনার(সাউথ) মোঃ তাজুল ইসলাম ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানভীর আহমদ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা জয়দেব পাল। অনুষ্ঠানে ফ্রোজেন ফুড এক্সপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশনের পরিচালক শেখ কামরুল আলম, রূপসা চিংড়ি বণিক সমিতির সভাপতি মোঃ আব্দুল মান্নান, পোল্ট্রি ফিস ফিড মালিক সমিতির মহাসচিব এস এম সোহরাব হোসেন, চিংড়িচাষি প্রফুল্ল কুমার রায় প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে মৎস্যচাষি, সামুদ্রিক মৎস্য আহরণকারী, মৎস্য ব্যবসায়ী, রপ্তানিকারক, মৎস্যচাষী সমিতি, মৎস্যজীবী সমিতি ও মৎস্যখাদ্য বিক্রেতা সমিতির প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।অনুষ্ঠানে চিংড়ী ও মৎস্য চাষে বিশেষ অবদানের জন্য সফল মৎস্যচাষি, ব্যক্তি, উদ্যোক্তা ও প্রতিষ্ঠানের মাঝে পুরষ্কার ও ক্রেস্ট বিতরণ করা হয়। এবছর সফল মৎস্য চাষিরা হলেন- তেরখাদার এস এম ওবায়দুল্লাহ, বটিয়াঘাটার প্রফুল্ল কুমার রায়, খুলনা মহানগীর রায়ের মহলের শাকিল হোসেন, গোলাম কিবরিয়া রিপন,শাহ নূর মোহাম্মদ, বটিয়াঘাটার মোঃ শফিকুল ইসলাম এবং রূপসার মোঃ আসাদুজ্জামান। প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দিঘলিয়া আড়ংঘাটার মেসার্স মোড়ল মৎস্য খামার, ফুলতলার মেসার্স আইয়ান ফিশারিজ এন্ড এ্যাকোয়াকালচার, দাকোপের মেসার্স আবুল ফিস প্রোডাক্টস লিঃ, খুলনার সাইফুল খান, রূপসা চিংড়ি বণিক সমিতি ও সফল নারী উদ্যোক্তা ডুমুরিয়ার আফরোজা খানম সম্মাননা ক্রেস্ট লাভ করেন। এছাড়া গবেষণা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিশারিজ এন্ড মেরিন রিসোর্সেস টেকনোলজি ডিসিপ্লিন, রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রূপসার খুলনা ফ্রোজেন ফুডস এক্সপোর্ট লিঃ, ফ্রেশ ফুডস লিঃ; সালাম সী ফুডস লিঃ, প্রিয়াম ফিস এক্সপোর্ট লিঃ; এটলাস সী ফুডস লিঃ এবং বায়োনিক সী ফুডস এক্সপোর্ট লিমিটেডকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। এর আগে নগরীর শহিদ হাদিস পার্ক পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত ও মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে আয়োজিত বর্ণাঢ্য র‌্যালিটি শহিদ হাদিস পার্ক থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। ##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik Madhumati

জনপ্রিয়

রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক একীভূতকরণের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন, ষড়যন্ত্রমূলক অপতৎপরতা রুখে দাড়ানোর আহবান

খুলনায় মৎস্য সপ্তাহের উদ্বোধন :

দেশে খুলনাঞ্চলে প্রথমবারের মত ভেনামী চিংড়ি চাষে সফলতা এসেছে

প্রকাশিত সময় : ০৬:৪২:১৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৬ জুলাই ২০২৩

####

খুলনায় জেলা প্রশাসন ও মৎস্য অধিদপ্তর যৌথ উদ্যোগে ‘নিরাপদ মাছে ভরবো দেশ, গড়বো স্মার্ট বাংলাদেশ’ প্রতিপাদ্য নিয়ে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহের উদ্বোধন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে খুলনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি  ছিলেন খুলনার বিভাগীয় কমিশনার মোঃ হেলাল মাহমুদ শরীফ। আলোচনা সভায় বিভাগীয় কমিশনার বলেন, দেশে প্রথমবারের মত অধিক উৎপাদনশীল ভেনামী চিংড়ি চাষে খুলনাঞ্চলে সফলতা এসেছে। এ সফলতাকে কাজে লাগিয়ে ভেনামী চিংড়ী চাষে তৃণমূল র্পযায়ে চাষীদের সহায়তা করা গেলে চিংড়ী শিল্পখাত দেশের এক নম্বর রপ্তানীমুখী কাত হিসেবে উন্নয়ন সম্ভব হবে। তিনি বলেন, খুলনা অঞ্চল থেকে গলদা-বাগদা চিংড়ির ৮০ভাগ উৎপাদিত হয়। একই সাথে রপ্তানীরও সিংহভাগ এ অঞ্চল থেকেই সরবরাহ করা হয়ে থাকে। কাজেই পরিকল্পিতভাবে চিংড়ী চাষকে উৎসাহিত করতে হবে। চিংড়ীসহ মৎস্য সেক্টর মেধাবী জাতি গঠনে অবদান রেখে চলেছে। এখন নিরাপদ মাছ উৎপাদন নিশ্চিত করা জরুরি। বিদেশি প্রজাতির মাছচাষের পাশাপাশি দেশিয় প্রজাতির মাছ রক্ষার কোন বিকল্প নেই। প্রতিটি উন্মুক্ত জলাশয়কে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে মাছচাষের উপযোগী করে তুলতে পারলে মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। মাছে অপদ্রব্য মেশানো থেকে সকলকে বিরত থাকতে হবে। যারা মাছে ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য মেশায় তাদের আইনের আওতায় আনা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে মৎস্য সেক্টরসহ সংশ্লিষ্টদের এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি।

খুলনার জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন খুলনা মৎস্য অধিদপ্তরের বিভাগীয় উপপরিচালক মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপপুলিশ কমিশনার(সাউথ) মোঃ তাজুল ইসলাম ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানভীর আহমদ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা জয়দেব পাল। অনুষ্ঠানে ফ্রোজেন ফুড এক্সপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশনের পরিচালক শেখ কামরুল আলম, রূপসা চিংড়ি বণিক সমিতির সভাপতি মোঃ আব্দুল মান্নান, পোল্ট্রি ফিস ফিড মালিক সমিতির মহাসচিব এস এম সোহরাব হোসেন, চিংড়িচাষি প্রফুল্ল কুমার রায় প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে মৎস্যচাষি, সামুদ্রিক মৎস্য আহরণকারী, মৎস্য ব্যবসায়ী, রপ্তানিকারক, মৎস্যচাষী সমিতি, মৎস্যজীবী সমিতি ও মৎস্যখাদ্য বিক্রেতা সমিতির প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।অনুষ্ঠানে চিংড়ী ও মৎস্য চাষে বিশেষ অবদানের জন্য সফল মৎস্যচাষি, ব্যক্তি, উদ্যোক্তা ও প্রতিষ্ঠানের মাঝে পুরষ্কার ও ক্রেস্ট বিতরণ করা হয়। এবছর সফল মৎস্য চাষিরা হলেন- তেরখাদার এস এম ওবায়দুল্লাহ, বটিয়াঘাটার প্রফুল্ল কুমার রায়, খুলনা মহানগীর রায়ের মহলের শাকিল হোসেন, গোলাম কিবরিয়া রিপন,শাহ নূর মোহাম্মদ, বটিয়াঘাটার মোঃ শফিকুল ইসলাম এবং রূপসার মোঃ আসাদুজ্জামান। প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দিঘলিয়া আড়ংঘাটার মেসার্স মোড়ল মৎস্য খামার, ফুলতলার মেসার্স আইয়ান ফিশারিজ এন্ড এ্যাকোয়াকালচার, দাকোপের মেসার্স আবুল ফিস প্রোডাক্টস লিঃ, খুলনার সাইফুল খান, রূপসা চিংড়ি বণিক সমিতি ও সফল নারী উদ্যোক্তা ডুমুরিয়ার আফরোজা খানম সম্মাননা ক্রেস্ট লাভ করেন। এছাড়া গবেষণা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিশারিজ এন্ড মেরিন রিসোর্সেস টেকনোলজি ডিসিপ্লিন, রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রূপসার খুলনা ফ্রোজেন ফুডস এক্সপোর্ট লিঃ, ফ্রেশ ফুডস লিঃ; সালাম সী ফুডস লিঃ, প্রিয়াম ফিস এক্সপোর্ট লিঃ; এটলাস সী ফুডস লিঃ এবং বায়োনিক সী ফুডস এক্সপোর্ট লিমিটেডকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। এর আগে নগরীর শহিদ হাদিস পার্ক পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত ও মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে আয়োজিত বর্ণাঢ্য র‌্যালিটি শহিদ হাদিস পার্ক থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। ##