১০:১৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংসদ সদস্যদের সাথে অপরাজিতাদের সংলাপ :

নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়নের বাধা অপসারণে নারীকেই ভূমিকা পালন করতে হবে

####

খুলনায় নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন বিষয়ে সংসদ সদস্য ও অপরাজিতাদের মধ্যে সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহষ্পতিবার বিকেলে নগরীর সিটি-ইন হোটেল মিলনায়তনে সুইজারল্যান্ড সরকারের আর্থিক সহযোগিতা ও হেলভেটার সুইস ইন্টার-কোঅপারেশন বাংলাদেশের সমন্বয়ে অপরাজিতা : নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন কর্মসূচীর আওতায় অনুষ্ঠিত এই সংলাপে প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক বন ও পরিবেশ উপমন্ত্রী সংসদ সদস্য বেগম হাবিবুন্নাহার। এ সময় তিনি বলেন, নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়নের পথে বাধা অসংখ্য। নারীকেই সে বাধা অতিক্রম করার শক্তি এবং সাহস অর্জন করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রত্যক্ষ ভূমিকায় নারীরা রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের সঠিক পথে রয়েছেন। প্রতিযোগিতা এবং প্রতিদ্বন্দ্বিতার এই পথে হোঁচট খেয়ে থেমে গেলে হবে না। লক্ষ্য অর্জনে সব বাধাকে দূর করতে হবে। বেগম হাবিবুন নাহার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় সমাজের সর্বক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ বৃদ্ধি পেয়েছে। রাজনীতিতে নারীর অংশগ্রহণ এখনও কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জন করতে পারেনি। নারীকেই এই লক্ষ্য অর্জনে মূখ্য ভূমিকা পালন করতে হবে। পুরুষ এখানে সহযোগীর ভূমিকা পালন করবেন মাত্র।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য ননী গোপাল মন্ডল বলেন, নারীরা রাজনীতিতে সক্রিয় অংশগ্রহণ করছেন। রাজনীতির মাঠে নারীরা সামনের সারিতে থাকেন। দলও নারীদের সেভাবে মূল্যায়ন করছে। আমাদের দলের গঠনতন্ত্রে নারী সম্পৃক্তের বিষয়টি রয়েছে। মাঠ পর্যায়ে এটি বাস্তবায়ন করতে হলে নারীদের বেশী বেশী দলের সাধারণ সদস্য পদে যেতে হবে। নারীদের রাজনৈতিক কর্মকান্ডে বেশী বেশী সম্পৃক্ত হতে হবে। আমরা চেষ্টা করি যারা সক্রিয় তারা যেন দলে যুক্ত হয়। আমাদের প্রধানমন্ত্রী দলের যারা অবদান রাখে তাদের মূল্যায়ন করেন।

খুলনা বিভাগীয় অপরাজিতা নেটওয়ার্ক-এর সভাপতি রিজিয়া পারভীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংলাপ অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন জাতীয় অপরাজিতা নেটওয়ার্ক সদস্য এ্যাডঃ সেলিনা আক্তার পিয়া, বাগেরহাট জেলা অপরাজিতা নেটওয়ার্ক সভাপতি এ্যাড শরিফা খানম এবং খুলনা জেলা অপরাজিতা নেটওয়ার্কের সাধারণ সম্পাদক আকলিমা খাতুন তুলি, খুলনা জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি নিমাই চন্দ্র বৈরাগী, বিএনপির বাগেরহাট জেলার সাধারণ সম্পাদক মোজাফ্ফর রহমান আলম, খুলনা জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক মল্লিক হাদিউজ্জামান, খুলনা মহানগর ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার উদ্দিন দিলু। অনুষ্ঠানে জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে বক্তৃতা করেন তেরখাদা মধুপুর ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মোঃ মোহসিন, ফুলতলা জামিরা ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ মনিরুল ইসলাম সরদার, বটিয়াঘাটা বালিয়াডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আসাবুর রহমান, বাগেরহাট বারইপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হায়দার আলী মোড়ল প্রমুখ। এছাড়া অপরাজিতাদের মধ্যে থেকে বন্দনা রায়, এ্যাড পপি ব্যানার্জী, সুস্পিতা গাইন, সাইদা ইসলাম নয়ন, এ্যাড তাহেদা নাজমা মিতু, তাছলিমা আক্তার বিষ্টি, পলি আক্তার, রহিমা খাতুন, উল্লাসিনী সরকার, কনিকা গোলদার, মাধবী সরকার, তানিয়া খাতুন, তাছলিমা খাতুন ছন্দা, লিপিকা রানী বৈরাগী, রিনা পারভীন প্রমুখ বিভিন্ন দাবি তুলে ধরেন।

খুলনা বিভাগীয় অপরাজিতার নির্বাহী সদস্য রোকসানা পারভীনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সংলাপে ধারণাপত্র উপস্থাপন করেন মোংলার চাঁদপাই ইউনিয়নের অপরাজিতা অর্পা মল্লিক। সংলাপে উপস্থাপিত ধারণাপত্রে ২০৩০ সালের মধ্যে রাজনৈতিক দলসমুহের কেন্দ্রীয় এবং স্থানীয় কমিটিতে কমপক্ষে ৩৩% নারী অন্তর্ভূক্ততিকরণ করা, জাতীয় ও স্থানীয় নির্বাচনে কমপক্ষে এক-তৃতীয়াংশ(৩৩%) নারীকে দলীয়ভাবে মনোনয়ন ও সমর্থন দেয়া, রাজনৈতিক দলসমুহের কমিটিগুলোর মেয়াদ শেষ হওয়ার সাথে সাথে সম্মেলনের আয়োজন করে উপজেলা ও জেলার মূল কমিটিতে কমপক্ষে ৩৩% নারীর অন্তর্ভূক্তির পাশাপাশি নির্বাহী কমিটির গুরুত্বপূর্ণ একাধিক পদে নারীদের অন্তর্ভূক্ত করা এবং ইউনিয়ন পর্যায়ে দলের মূল কমিটিতে সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদক পদ নারীকে দেওয়াসহ ছয়টি দাবি উত্থাপন করা হয়। ##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik Madhumati

জনপ্রিয়

ডুমুরিয়ায় মোটরসাইকেল-ইঞ্জিন ভ্যান সংঘর্ষে নিহত-২,আহত-৪

সংসদ সদস্যদের সাথে অপরাজিতাদের সংলাপ :

নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়নের বাধা অপসারণে নারীকেই ভূমিকা পালন করতে হবে

প্রকাশিত সময় : ০৮:৪৫:৩০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ মে ২০২৪

####

খুলনায় নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন বিষয়ে সংসদ সদস্য ও অপরাজিতাদের মধ্যে সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহষ্পতিবার বিকেলে নগরীর সিটি-ইন হোটেল মিলনায়তনে সুইজারল্যান্ড সরকারের আর্থিক সহযোগিতা ও হেলভেটার সুইস ইন্টার-কোঅপারেশন বাংলাদেশের সমন্বয়ে অপরাজিতা : নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন কর্মসূচীর আওতায় অনুষ্ঠিত এই সংলাপে প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক বন ও পরিবেশ উপমন্ত্রী সংসদ সদস্য বেগম হাবিবুন্নাহার। এ সময় তিনি বলেন, নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়নের পথে বাধা অসংখ্য। নারীকেই সে বাধা অতিক্রম করার শক্তি এবং সাহস অর্জন করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রত্যক্ষ ভূমিকায় নারীরা রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের সঠিক পথে রয়েছেন। প্রতিযোগিতা এবং প্রতিদ্বন্দ্বিতার এই পথে হোঁচট খেয়ে থেমে গেলে হবে না। লক্ষ্য অর্জনে সব বাধাকে দূর করতে হবে। বেগম হাবিবুন নাহার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় সমাজের সর্বক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ বৃদ্ধি পেয়েছে। রাজনীতিতে নারীর অংশগ্রহণ এখনও কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জন করতে পারেনি। নারীকেই এই লক্ষ্য অর্জনে মূখ্য ভূমিকা পালন করতে হবে। পুরুষ এখানে সহযোগীর ভূমিকা পালন করবেন মাত্র।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য ননী গোপাল মন্ডল বলেন, নারীরা রাজনীতিতে সক্রিয় অংশগ্রহণ করছেন। রাজনীতির মাঠে নারীরা সামনের সারিতে থাকেন। দলও নারীদের সেভাবে মূল্যায়ন করছে। আমাদের দলের গঠনতন্ত্রে নারী সম্পৃক্তের বিষয়টি রয়েছে। মাঠ পর্যায়ে এটি বাস্তবায়ন করতে হলে নারীদের বেশী বেশী দলের সাধারণ সদস্য পদে যেতে হবে। নারীদের রাজনৈতিক কর্মকান্ডে বেশী বেশী সম্পৃক্ত হতে হবে। আমরা চেষ্টা করি যারা সক্রিয় তারা যেন দলে যুক্ত হয়। আমাদের প্রধানমন্ত্রী দলের যারা অবদান রাখে তাদের মূল্যায়ন করেন।

খুলনা বিভাগীয় অপরাজিতা নেটওয়ার্ক-এর সভাপতি রিজিয়া পারভীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংলাপ অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন জাতীয় অপরাজিতা নেটওয়ার্ক সদস্য এ্যাডঃ সেলিনা আক্তার পিয়া, বাগেরহাট জেলা অপরাজিতা নেটওয়ার্ক সভাপতি এ্যাড শরিফা খানম এবং খুলনা জেলা অপরাজিতা নেটওয়ার্কের সাধারণ সম্পাদক আকলিমা খাতুন তুলি, খুলনা জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি নিমাই চন্দ্র বৈরাগী, বিএনপির বাগেরহাট জেলার সাধারণ সম্পাদক মোজাফ্ফর রহমান আলম, খুলনা জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক মল্লিক হাদিউজ্জামান, খুলনা মহানগর ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার উদ্দিন দিলু। অনুষ্ঠানে জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে বক্তৃতা করেন তেরখাদা মধুপুর ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মোঃ মোহসিন, ফুলতলা জামিরা ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ মনিরুল ইসলাম সরদার, বটিয়াঘাটা বালিয়াডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আসাবুর রহমান, বাগেরহাট বারইপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হায়দার আলী মোড়ল প্রমুখ। এছাড়া অপরাজিতাদের মধ্যে থেকে বন্দনা রায়, এ্যাড পপি ব্যানার্জী, সুস্পিতা গাইন, সাইদা ইসলাম নয়ন, এ্যাড তাহেদা নাজমা মিতু, তাছলিমা আক্তার বিষ্টি, পলি আক্তার, রহিমা খাতুন, উল্লাসিনী সরকার, কনিকা গোলদার, মাধবী সরকার, তানিয়া খাতুন, তাছলিমা খাতুন ছন্দা, লিপিকা রানী বৈরাগী, রিনা পারভীন প্রমুখ বিভিন্ন দাবি তুলে ধরেন।

খুলনা বিভাগীয় অপরাজিতার নির্বাহী সদস্য রোকসানা পারভীনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সংলাপে ধারণাপত্র উপস্থাপন করেন মোংলার চাঁদপাই ইউনিয়নের অপরাজিতা অর্পা মল্লিক। সংলাপে উপস্থাপিত ধারণাপত্রে ২০৩০ সালের মধ্যে রাজনৈতিক দলসমুহের কেন্দ্রীয় এবং স্থানীয় কমিটিতে কমপক্ষে ৩৩% নারী অন্তর্ভূক্ততিকরণ করা, জাতীয় ও স্থানীয় নির্বাচনে কমপক্ষে এক-তৃতীয়াংশ(৩৩%) নারীকে দলীয়ভাবে মনোনয়ন ও সমর্থন দেয়া, রাজনৈতিক দলসমুহের কমিটিগুলোর মেয়াদ শেষ হওয়ার সাথে সাথে সম্মেলনের আয়োজন করে উপজেলা ও জেলার মূল কমিটিতে কমপক্ষে ৩৩% নারীর অন্তর্ভূক্তির পাশাপাশি নির্বাহী কমিটির গুরুত্বপূর্ণ একাধিক পদে নারীদের অন্তর্ভূক্ত করা এবং ইউনিয়ন পর্যায়ে দলের মূল কমিটিতে সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদক পদ নারীকে দেওয়াসহ ছয়টি দাবি উত্থাপন করা হয়। ##