০৬:০১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
ভোট দিতে না পারার কারনে ভোটারদের অনাস্থা ও অনিহা তৈরী হয়েছে

নির্বাচনে কোন ধরনের পক্ষপাতিত্ব, অনিয়ম ও অবহেলা করলে কর্মকর্তাদেরও কঠোর শাস্তি পেতে হবে : কর্মকর্তাদের সিইসি

###    প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, জাতিকে অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দেয়া আমাদের দায়িত্ব। তাই যারা ভোট কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকবেন নিরপেক্ষভাবে কাজ করবেন। কেউ ক্ষতিগ্রস্থ হবে না। ভোট কেন্দ্রে নিজ নিজ দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে হবে। যদি কেউ কেন্দ্রে বিশৃংখলা করতে আসে কোন ভাবেই তাদের ছাড় দিবেন না।কোন ধরনের অনিয়ম দেখলে ভোট গ্রহন সাময়িক বা স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেবেন।কোনভাবেই ভোটারদেরকে ভোট না দিয়ে ফিরিয়ে দেবেন না। কেউ যেন বলতে না পারে ভোট দিতে না পেরে ফিরে গেছেন সেটার খেয়াল রাখবেন। অতীতে ভোট দিতে না পারায় ভোটারদের মধ্যে অনাস্থা ও অনীহা তৈরী হয়েছে। সেটিকে ওভারকাম করতে হবে। যে পরিস্থিতিই হোক না কেন ভোটারদের মধ্যে আস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে। বুধবার সকালে খুলনা সরকারী মহিলা কলেজ অডিটোরিয়ামে খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন উপলক্ষ্যে ভোট গ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। সিইসি আরও বলেন, আপনারা নির্ভয়ে ভোট কেন্দ্রে কাজ করবেন। আপনাদের সাথে রাষ্ট্র তথা নির্বাচন কমিশন, প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সবাই রয়েছে। ব্যক্তি হিসেবে কোন দল ও মতের সমর্থক হলেও ভোট কেন্দ্রে নিয়মানুযায়ী নিরপেক্ষভাবে কাজ করবেন। সিটি নির্বাচন পুরোপুরিভাবে সিসিটিভির মনিটোরিং থাকবে। কাজেই নির্বাচনের কাজে কোন ধরনের পক্ষপাতিত্ব, অনিয়ম ও অবহেলা করলে কর্মকর্তাদের বিুরদ্ধেও কঠোর শাস্তি দিতে নির্বাচন কমিশন ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী পিছপা হবে না।তিনি সুষ্ঠু, অবাধ ও গ্রহনযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানে সবাইকে সততা ও নিষ্টার সাথে সমন্বিতভাবে কাজ করার আহবান জানান। প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠানে বিশেষে অতিথি বক্তৃতা করেন নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল(অবঃ) মোঃ আহসান হাবিব খান ও নির্বাচন কমিশন সচিব মোঃ জাহাঙ্গীর আলম। খুলনার বিভাগীয় কমিশনার মো: জিল্লুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন কেএমপি কমিশনার মাসুদুর রহমান ভূঁঞা, ডিআইজি মো: মঈনুল হক, জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফিন, পুলিশ সুপার মো: মাহবুব হাসান, রিটার্নিং অফিসার মো: আলাউদ্দিন, জেলা নির্বাচন অফিসার ফারাজী বেনজীর আহমেদ প্রমুখ। সভায় নির্বাচন কর্মকর্তা, পুলিশ ও প্রশাসনের প্রতিনিধিবৃন্দ এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ভোট গ্রহনকারী কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। পরে ভোট গ্রহন ককর্মকর্তাদের দিনব্যাপী প্রশিক্ষন অনুষ্ঠিত হয়। ##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

জনপ্রিয়

দশমিনায় পরীক্ষায় অসৎ উপায় অবলম্বন করায় দুই শিক্ষার্থী বহিস্কার

ভোট দিতে না পারার কারনে ভোটারদের অনাস্থা ও অনিহা তৈরী হয়েছে

নির্বাচনে কোন ধরনের পক্ষপাতিত্ব, অনিয়ম ও অবহেলা করলে কর্মকর্তাদেরও কঠোর শাস্তি পেতে হবে : কর্মকর্তাদের সিইসি

প্রকাশিত সময় : ০৯:৪৪:১৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১ জুন ২০২৩

###    প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, জাতিকে অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দেয়া আমাদের দায়িত্ব। তাই যারা ভোট কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকবেন নিরপেক্ষভাবে কাজ করবেন। কেউ ক্ষতিগ্রস্থ হবে না। ভোট কেন্দ্রে নিজ নিজ দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে হবে। যদি কেউ কেন্দ্রে বিশৃংখলা করতে আসে কোন ভাবেই তাদের ছাড় দিবেন না।কোন ধরনের অনিয়ম দেখলে ভোট গ্রহন সাময়িক বা স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেবেন।কোনভাবেই ভোটারদেরকে ভোট না দিয়ে ফিরিয়ে দেবেন না। কেউ যেন বলতে না পারে ভোট দিতে না পেরে ফিরে গেছেন সেটার খেয়াল রাখবেন। অতীতে ভোট দিতে না পারায় ভোটারদের মধ্যে অনাস্থা ও অনীহা তৈরী হয়েছে। সেটিকে ওভারকাম করতে হবে। যে পরিস্থিতিই হোক না কেন ভোটারদের মধ্যে আস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে। বুধবার সকালে খুলনা সরকারী মহিলা কলেজ অডিটোরিয়ামে খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন উপলক্ষ্যে ভোট গ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। সিইসি আরও বলেন, আপনারা নির্ভয়ে ভোট কেন্দ্রে কাজ করবেন। আপনাদের সাথে রাষ্ট্র তথা নির্বাচন কমিশন, প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সবাই রয়েছে। ব্যক্তি হিসেবে কোন দল ও মতের সমর্থক হলেও ভোট কেন্দ্রে নিয়মানুযায়ী নিরপেক্ষভাবে কাজ করবেন। সিটি নির্বাচন পুরোপুরিভাবে সিসিটিভির মনিটোরিং থাকবে। কাজেই নির্বাচনের কাজে কোন ধরনের পক্ষপাতিত্ব, অনিয়ম ও অবহেলা করলে কর্মকর্তাদের বিুরদ্ধেও কঠোর শাস্তি দিতে নির্বাচন কমিশন ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী পিছপা হবে না।তিনি সুষ্ঠু, অবাধ ও গ্রহনযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানে সবাইকে সততা ও নিষ্টার সাথে সমন্বিতভাবে কাজ করার আহবান জানান। প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠানে বিশেষে অতিথি বক্তৃতা করেন নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল(অবঃ) মোঃ আহসান হাবিব খান ও নির্বাচন কমিশন সচিব মোঃ জাহাঙ্গীর আলম। খুলনার বিভাগীয় কমিশনার মো: জিল্লুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন কেএমপি কমিশনার মাসুদুর রহমান ভূঁঞা, ডিআইজি মো: মঈনুল হক, জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফিন, পুলিশ সুপার মো: মাহবুব হাসান, রিটার্নিং অফিসার মো: আলাউদ্দিন, জেলা নির্বাচন অফিসার ফারাজী বেনজীর আহমেদ প্রমুখ। সভায় নির্বাচন কর্মকর্তা, পুলিশ ও প্রশাসনের প্রতিনিধিবৃন্দ এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ভোট গ্রহনকারী কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। পরে ভোট গ্রহন ককর্মকর্তাদের দিনব্যাপী প্রশিক্ষন অনুষ্ঠিত হয়। ##