০৫:০৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফকিরহাটে মাদরাসা শিক্ষার্থী-শিক্ষককে বেকায়ধায় ফেলে লাপাত্তা প্রতারক

  • বাগেরহাট অফিস
  • প্রকাশিত সময় : ০৪:৪১:০৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২
  • ৪৯ পড়েছেন

বাগেরহাটের ফকিরহাটে মাদ্রাসার শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের দেখিয়ে মাংসের দোকান থেকে নগদ ১০হাজার টাকা ও দুই কেজি কলিজা নিয়ে পালিয়েছে এক প্রতারক। শুক্রবার (২৩ সেপ্টেম্বর) সকালে ফকিরহাট উপজেলা সদরের মাংসের ব্যবসায়ী মো. বাবু শেখের দোকানে এ ঘটনা।
মাংস ব্যবসায়ী মো. বাবু শেখ বলেন, সকালে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি বাহিরদিয়া এনএম মাদ্রাসার শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান ও তিন শিক্ষার্থীকে নিয়ে আমার দোকানে আসেন। ওই ব্যক্তি বলেন ৬০ কেজি গরুর মাংস লাগবে। মাংস প্রস্তুত করার সময় ওই ব্যক্তি বলেন ১০হাজার টাকা দেন মুরগী নিয়ে আসি এবং বিকাশ থেকে টাকা উঠিয়ে এক সাথে দিচ্ছি। মাদরাসার তিন শিক্ষার্থীকে মাংসের দোকানে বসিয়ে রেখে দশ হাজার টাকা ও দুই কেজি কলিজা নিয়ে মুরগির দোকানে যায় ওই ব্যক্তি শিক্ষক মোঃ মিজানুর রহমান। এরপরে মাদরাসার শিক্ষক মিজান ফিরে আসলেও,ওই ব্যক্তি ফিরে আসেনি।
শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান বলেন, ফজরের নামাজের পরে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি মাদরাসায় আসেন। নিজেকে ইটালি প্রবাসী দাবি করে মাদরাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের খাওয়ানোর কথা বলেন। এ জন্য বাজার করার জন্য কয়েকজন শিক্ষার্থীকে দরকার। এরপর ওই ব্যক্তির কথায় বিশ্বাস করে তার সাথে ফকিরহাট উপজেলা সদরের বাবু শেখের মাংসের দোকানে আসি। ওই দোকান থেকে ১০ হাজার টাকা ও দুই কেজি মাংস নিয়ে চলে যায় ওই ব্যক্তি। এরপর আর তাকে পাওয়া যায়নি। আমি তার নামও জানি না, ফোন নাম্বারও আমার কাছে নেই। শিক্ষার্থীদের নিয়ে এসে একটা বিপদে পড়েছি।
ফকিরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মু. আলীমুজ্জামান বলেন, একটা ঘটনা শুনেছি। যদি কেউ লিখিত অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করব।

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

dainik madhumati

জনপ্রিয়

দেবহাটা রিপোর্টার্স ক্লাবের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত 

ফকিরহাটে মাদরাসা শিক্ষার্থী-শিক্ষককে বেকায়ধায় ফেলে লাপাত্তা প্রতারক

প্রকাশিত সময় : ০৪:৪১:০৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

বাগেরহাটের ফকিরহাটে মাদ্রাসার শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের দেখিয়ে মাংসের দোকান থেকে নগদ ১০হাজার টাকা ও দুই কেজি কলিজা নিয়ে পালিয়েছে এক প্রতারক। শুক্রবার (২৩ সেপ্টেম্বর) সকালে ফকিরহাট উপজেলা সদরের মাংসের ব্যবসায়ী মো. বাবু শেখের দোকানে এ ঘটনা।
মাংস ব্যবসায়ী মো. বাবু শেখ বলেন, সকালে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি বাহিরদিয়া এনএম মাদ্রাসার শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান ও তিন শিক্ষার্থীকে নিয়ে আমার দোকানে আসেন। ওই ব্যক্তি বলেন ৬০ কেজি গরুর মাংস লাগবে। মাংস প্রস্তুত করার সময় ওই ব্যক্তি বলেন ১০হাজার টাকা দেন মুরগী নিয়ে আসি এবং বিকাশ থেকে টাকা উঠিয়ে এক সাথে দিচ্ছি। মাদরাসার তিন শিক্ষার্থীকে মাংসের দোকানে বসিয়ে রেখে দশ হাজার টাকা ও দুই কেজি কলিজা নিয়ে মুরগির দোকানে যায় ওই ব্যক্তি শিক্ষক মোঃ মিজানুর রহমান। এরপরে মাদরাসার শিক্ষক মিজান ফিরে আসলেও,ওই ব্যক্তি ফিরে আসেনি।
শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান বলেন, ফজরের নামাজের পরে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি মাদরাসায় আসেন। নিজেকে ইটালি প্রবাসী দাবি করে মাদরাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের খাওয়ানোর কথা বলেন। এ জন্য বাজার করার জন্য কয়েকজন শিক্ষার্থীকে দরকার। এরপর ওই ব্যক্তির কথায় বিশ্বাস করে তার সাথে ফকিরহাট উপজেলা সদরের বাবু শেখের মাংসের দোকানে আসি। ওই দোকান থেকে ১০ হাজার টাকা ও দুই কেজি মাংস নিয়ে চলে যায় ওই ব্যক্তি। এরপর আর তাকে পাওয়া যায়নি। আমি তার নামও জানি না, ফোন নাম্বারও আমার কাছে নেই। শিক্ষার্থীদের নিয়ে এসে একটা বিপদে পড়েছি।
ফকিরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মু. আলীমুজ্জামান বলেন, একটা ঘটনা শুনেছি। যদি কেউ লিখিত অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করব।