১০:৩৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফটো সাংবাদিক আফতাব হত্যা মামলায় ৫জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ হাইকোটে  বহাল

  • অফিস ডেক্স।।
  • প্রকাশিত সময় : ০৯:৪১:১৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১২ অক্টোবর ২০২২
  • ৪৩ পড়েছেন

###   একুশে পদকপ্রাপ্ত দৈনিক ইত্তেফাকের ফটো সাংবাদিক আফতাব আহমেদ(৭৮) হত্যা মামলায় পাঁচ আসামির মৃত্যুদণ্ডাদেশ এবং অপর আসামির ৭বছরের কারাদণ্ডও বহাল রেখেছে হাইকোর্ট।বুধবার (১২অক্টোবর) বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মো. বশির উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন। এরআগে মঙ্গলবার (১১অক্টোবর) আফতাব আহমেদ হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পাঁচ আসামির ডেথ রেফারেন্স ও আসামিদের আপিল আবেদনের ওপর শুনানি শেষ হয়। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল এ.এম আমিন উদ্দিন, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সামিরা তারানুম রাবেয়া মিতি, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল আঞ্জুমান আরা বেগম, কাজী শামসুন নাহার ও সায়েম মো. মোরসেদ শুনানি করেন। এছাড়া আসামিপক্ষে সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, অ্যাডভোকেট এস.এম শাহজাহান ও হেলাল উদ্দিন মোল্লা শুনানি করেন।

২০১৭ সালের ২৮মার্চ ফটো সাংবাদিক আফতাব আহমেদ হত্যা মামলায় তার গাড়িচালক মো. হুমায়ুন কবিরসহ পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড দেয় ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৪ এর বিচারক আব্দুর রহমান সরদার। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলো-গাড়িচালক মো. হুমায়ুন কবির, মো. বিল্লাল হোসেন, হাবিব হাওলাদার, মো. রাজু মুন্সি  ও মো. রাসেল।এরমধ্যে মো. রাজু মুন্সি  ও মো. রাসেল পলাতক রয়েছে।এছাড়া মামলার অপর আসামি মো. সবুজ খানকে ৭বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও ১০হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে এক বছরের কারাদণ্ড দেয় আদালত।

মামলার বিবরনে জানা যায়, ২০১৩ সালের ২৪ডিসেম্বর রাতে রাজধানীর পশ্চিম রামপুরা ওয়াপদা রোডে ৬৩ নম্বরের নিজ বাসায় খুন হন ফটোসাংবাদিক আফতাব আহমেদ। পরদিন সকালে তার হাত-পা বাঁধা মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। চার তলার ওই বাড়ির তৃতীয় তলায় তিনি একাই বসবাস করতেন। ২০১৪ সালের ২৫মার্চ আফতাব আহমেদের গাড়ি চালক মো. হুমায়ুন কবিরসহ ৫জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা র‌্যাব-৩ এর উপ-পরিদর্শক আশিক ইকবাল। ২০১৪সালে ঢাকা তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ ইমরুল কায়েস আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। এ মামলায় বিভিন্ন সময় ২০জনের সাক্ষ্য নেয়া হয়েছে।

১৯৬৪সালে দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার মাধ্যমে আফতাব আহমেদ সাংবাদিকতা শুরু করেন। আলোকচিত্র সাংবাদিকতায় অনন্য অবদানের জন্য ২০০৬ সালে তিনি একুশে পদকে ভূষিত হন।##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik Madhumati

জনপ্রিয়

মোল্লাহাটে কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছে গেছে নির্বাচনী সরঞ্জাম

ফটো সাংবাদিক আফতাব হত্যা মামলায় ৫জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ হাইকোটে  বহাল

প্রকাশিত সময় : ০৯:৪১:১৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১২ অক্টোবর ২০২২

###   একুশে পদকপ্রাপ্ত দৈনিক ইত্তেফাকের ফটো সাংবাদিক আফতাব আহমেদ(৭৮) হত্যা মামলায় পাঁচ আসামির মৃত্যুদণ্ডাদেশ এবং অপর আসামির ৭বছরের কারাদণ্ডও বহাল রেখেছে হাইকোর্ট।বুধবার (১২অক্টোবর) বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মো. বশির উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন। এরআগে মঙ্গলবার (১১অক্টোবর) আফতাব আহমেদ হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পাঁচ আসামির ডেথ রেফারেন্স ও আসামিদের আপিল আবেদনের ওপর শুনানি শেষ হয়। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল এ.এম আমিন উদ্দিন, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সামিরা তারানুম রাবেয়া মিতি, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল আঞ্জুমান আরা বেগম, কাজী শামসুন নাহার ও সায়েম মো. মোরসেদ শুনানি করেন। এছাড়া আসামিপক্ষে সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, অ্যাডভোকেট এস.এম শাহজাহান ও হেলাল উদ্দিন মোল্লা শুনানি করেন।

২০১৭ সালের ২৮মার্চ ফটো সাংবাদিক আফতাব আহমেদ হত্যা মামলায় তার গাড়িচালক মো. হুমায়ুন কবিরসহ পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড দেয় ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৪ এর বিচারক আব্দুর রহমান সরদার। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলো-গাড়িচালক মো. হুমায়ুন কবির, মো. বিল্লাল হোসেন, হাবিব হাওলাদার, মো. রাজু মুন্সি  ও মো. রাসেল।এরমধ্যে মো. রাজু মুন্সি  ও মো. রাসেল পলাতক রয়েছে।এছাড়া মামলার অপর আসামি মো. সবুজ খানকে ৭বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও ১০হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে এক বছরের কারাদণ্ড দেয় আদালত।

মামলার বিবরনে জানা যায়, ২০১৩ সালের ২৪ডিসেম্বর রাতে রাজধানীর পশ্চিম রামপুরা ওয়াপদা রোডে ৬৩ নম্বরের নিজ বাসায় খুন হন ফটোসাংবাদিক আফতাব আহমেদ। পরদিন সকালে তার হাত-পা বাঁধা মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। চার তলার ওই বাড়ির তৃতীয় তলায় তিনি একাই বসবাস করতেন। ২০১৪ সালের ২৫মার্চ আফতাব আহমেদের গাড়ি চালক মো. হুমায়ুন কবিরসহ ৫জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা র‌্যাব-৩ এর উপ-পরিদর্শক আশিক ইকবাল। ২০১৪সালে ঢাকা তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ ইমরুল কায়েস আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। এ মামলায় বিভিন্ন সময় ২০জনের সাক্ষ্য নেয়া হয়েছে।

১৯৬৪সালে দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার মাধ্যমে আফতাব আহমেদ সাংবাদিকতা শুরু করেন। আলোকচিত্র সাংবাদিকতায় অনন্য অবদানের জন্য ২০০৬ সালে তিনি একুশে পদকে ভূষিত হন।##