০৫:১৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাকেরগঞ্জে তামাকজাত পণ্যের বিজ্ঞাপন বন্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অর্থদণ্ড

  • সংবাদদাতা
  • প্রকাশিত সময় : ০৪:২২:২২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২৩
  • ৬৩ পড়েছেন

 

বাকেরগঞ্জ (বরিশাল) প্রতিনিধি-
বরিশালের বাকেরগঞ্জে তামাকজাত পণ্য বিক্রয় কেন্দ্রে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন বন্ধ করতে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবুজর মোঃ ইজাজুল হক।

আবুজর মোঃ ইজাজুল হক জানান, দোকানের সামনে তামাক কোম্পানি কর্তৃক প্রদর্শিত খালি মোড়কের আদলে সাজানো প্যাকেট, ডেস্ক লিফলেট, ডালা প্রভৃতি প্রদর্শন করা হচ্ছিল। ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন অনুযায়ী তিন দোকানদারকে মোট ৮০০০ টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী ২০৪০ সাল নাগাদ বাংলাদেশকে তামাকমুক্ত করার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তা বাস্তবায়নের প্রধান অন্তরায় তামাক কোম্পানিগুলোর আইন না মানার সংস্কৃতি। ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য (নিয়ন্ত্রণ) আইন অনুসারে, তামাক পণ্যের বিক্রয় কেন্দ্রে যে কোন উপায়ে বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ অথচ তামাক কোম্পানিগুলো দোকানদেরকে আইনের ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে অবাধে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করে চলেছে। এরই প্রেক্ষাপটে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অভিযান পরিচালিত হয়। ভবিষ্যতে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

dainik madhumati

জনপ্রিয়

দেবহাটা রিপোর্টার্স ক্লাবের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত 

বাকেরগঞ্জে তামাকজাত পণ্যের বিজ্ঞাপন বন্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অর্থদণ্ড

প্রকাশিত সময় : ০৪:২২:২২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২৩

 

বাকেরগঞ্জ (বরিশাল) প্রতিনিধি-
বরিশালের বাকেরগঞ্জে তামাকজাত পণ্য বিক্রয় কেন্দ্রে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন বন্ধ করতে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবুজর মোঃ ইজাজুল হক।

আবুজর মোঃ ইজাজুল হক জানান, দোকানের সামনে তামাক কোম্পানি কর্তৃক প্রদর্শিত খালি মোড়কের আদলে সাজানো প্যাকেট, ডেস্ক লিফলেট, ডালা প্রভৃতি প্রদর্শন করা হচ্ছিল। ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন অনুযায়ী তিন দোকানদারকে মোট ৮০০০ টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী ২০৪০ সাল নাগাদ বাংলাদেশকে তামাকমুক্ত করার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তা বাস্তবায়নের প্রধান অন্তরায় তামাক কোম্পানিগুলোর আইন না মানার সংস্কৃতি। ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য (নিয়ন্ত্রণ) আইন অনুসারে, তামাক পণ্যের বিক্রয় কেন্দ্রে যে কোন উপায়ে বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ অথচ তামাক কোম্পানিগুলো দোকানদেরকে আইনের ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে অবাধে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করে চলেছে। এরই প্রেক্ষাপটে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অভিযান পরিচালিত হয়। ভবিষ্যতে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।