১০:০১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বাগেরহাটের মোল্লাহাটে চিংড়ি ঘের থেকে এক ব্যক্তির ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

###    বাগেরহাটের মোল্লাহাটে নিজের চিংড়ি ঘেরের পাড়ের নিম গাছে দুলাল হালদার (৫৮) নামে এক ব্যক্তির ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার সকাল ১০ টায় উপজেলার মাটিয়ারগাতী এলাকা থেকে এ মৃতদেহ উদ্ধার করে মোল্লাহাট থানা পুলিশ। সে ওই গ্রামের মৃত সুদর্শন হালদারের ছেলে। তার এক স্ত্রী, এক ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে।
পরিবার সুত্রে জানা যায়, বুধবার গভীর রাতে ঘরের দরজা খুলে ঘেরে যায় দুলাল হালদার। বাড়ি ফেরার নির্ধারিত সময় পার হলে ভোরবেলা তার স্ত্রী ঘেরে গিয়ে দেখেন, নিম গাছে ঝুলে আছে তার মৃতদেহ। এরপর খবর দিলে মোল্লাহাট থানা পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে। পরিবারের সদস্যরা আরো জানান, দুলাল হালদার অত্যন্ত সহজ সরল ন্যায়পরায়ন। অতিসম্প্রতি সাক্ষী হিসেবে দুলাল হালদারের স্বাক্ষর সম্বলিত একটি দলিল তার এক জেঠাতো ভাই (চাচাতো ভাই) স্থানীয় সালিশি বৈঠকে উপস্থাপন করে। তখন দুলাল বিশ্বাস ভীষণ কষ্ট দুঃখ পান এবং বলেন, আমাকেও জালিয়াতি বানানো হলো। যেহেতু ওই দলিল সম্পর্কে তিনি কিছু জানতেন না এবং সাক্ষী হিসেবে তিনি কোন স্বাক্ষর করেন নাই, তাই কষ্ট পেয়ে এ আত্মহত্যা করেছে। অন্য কোন কারন তাদের জানা নাই এবং এ ঘটনায় কারো বিরুদ্ধে তাদের কোন অভিযোগ নাই।
মোল্লাহাট থানা অফিসার ইনচার্জ সোমেন দাশ জানান, খবর পাওয়া মাত্র তিনিসহ তার পুলিশ ফোর্স ঘটনা স্থলে যান এবং মৃতদেহ উদ্ধার করেন। পরিবারের পক্ষ থেকে কারো প্রতি কোন অভিযোগ বা সন্দেহ না থাকায় এবং ময়নাতদন্ত ছাড়াই মৃতদেহের সৎকার করার আবেদন করায় তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এঘটনায় একটি অপমৃত্যু রেকর্ড করা হয়েছে।##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

বাগেরহাটের মোল্লাহাটে চিংড়ি ঘের থেকে এক ব্যক্তির ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

প্রকাশিত সময় : ০৮:১৫:৩৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মার্চ ২০২৩

###    বাগেরহাটের মোল্লাহাটে নিজের চিংড়ি ঘেরের পাড়ের নিম গাছে দুলাল হালদার (৫৮) নামে এক ব্যক্তির ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার সকাল ১০ টায় উপজেলার মাটিয়ারগাতী এলাকা থেকে এ মৃতদেহ উদ্ধার করে মোল্লাহাট থানা পুলিশ। সে ওই গ্রামের মৃত সুদর্শন হালদারের ছেলে। তার এক স্ত্রী, এক ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে।
পরিবার সুত্রে জানা যায়, বুধবার গভীর রাতে ঘরের দরজা খুলে ঘেরে যায় দুলাল হালদার। বাড়ি ফেরার নির্ধারিত সময় পার হলে ভোরবেলা তার স্ত্রী ঘেরে গিয়ে দেখেন, নিম গাছে ঝুলে আছে তার মৃতদেহ। এরপর খবর দিলে মোল্লাহাট থানা পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে। পরিবারের সদস্যরা আরো জানান, দুলাল হালদার অত্যন্ত সহজ সরল ন্যায়পরায়ন। অতিসম্প্রতি সাক্ষী হিসেবে দুলাল হালদারের স্বাক্ষর সম্বলিত একটি দলিল তার এক জেঠাতো ভাই (চাচাতো ভাই) স্থানীয় সালিশি বৈঠকে উপস্থাপন করে। তখন দুলাল বিশ্বাস ভীষণ কষ্ট দুঃখ পান এবং বলেন, আমাকেও জালিয়াতি বানানো হলো। যেহেতু ওই দলিল সম্পর্কে তিনি কিছু জানতেন না এবং সাক্ষী হিসেবে তিনি কোন স্বাক্ষর করেন নাই, তাই কষ্ট পেয়ে এ আত্মহত্যা করেছে। অন্য কোন কারন তাদের জানা নাই এবং এ ঘটনায় কারো বিরুদ্ধে তাদের কোন অভিযোগ নাই।
মোল্লাহাট থানা অফিসার ইনচার্জ সোমেন দাশ জানান, খবর পাওয়া মাত্র তিনিসহ তার পুলিশ ফোর্স ঘটনা স্থলে যান এবং মৃতদেহ উদ্ধার করেন। পরিবারের পক্ষ থেকে কারো প্রতি কোন অভিযোগ বা সন্দেহ না থাকায় এবং ময়নাতদন্ত ছাড়াই মৃতদেহের সৎকার করার আবেদন করায় তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এঘটনায় একটি অপমৃত্যু রেকর্ড করা হয়েছে।##