০৯:২৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
টুর্নামেন্টের ইতিহাসে প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ১০০ ম্যাচে অধিনায়কত্ব

বিপিএল ফাইনালে মাশরাফির ‘সেঞ্চুরি’

  • নিউজ ডেক্স।।
  • প্রকাশিত সময় : ০৬:৫২:০১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
  • ৩৬ পড়েছেন

###    পরিসংখ্যানের বিচারে বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের সফলতম অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। বিপিএলেও তাই। ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টুর্নামেন্টটিতে তার চেয়ে বেশি ট্রফি জিততে পারেননি আর কোনো অধিনায়ক। কিংবদন্তি অধিনায়কের অর্জনের সমৃদ্ধ ভাণ্ডারে যুক্ত হলো নতুন আরেকটি রেকর্ড।  বিপিএল ফাইনালে খেলতে নেমেই তিনি গড়লেন সেঞ্চুরির রেকর্ড।

টুর্নামেন্টের ইতিহাসে প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ১০০ ম্যাচে অধিনায়কত্ব করার কৃতিত্ব দেখালেন মাশরাফি। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে টস করতে নেমেই অনন্য কীর্তি গড়লেন সিলেট স্ট্রাইকার্সের অধিনায়ক।বিপিএল আর কেউ এখনও পর্যন্ত ৯০ ম্যাচও অধিনায়কত্ব করেননি। ২০১২ সালে বিপিএলের প্রথম আসর থেকে শুরু করে প্রতিটিতেই খেলেছেন মাশরাফি। টুর্নামেন্টের সফলতম অধিনায়কও তিনি। ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্সের হয়ে প্রথম দুই আসরে চ্যাম্পিয়ন হন বাংলাদেশের ক্রিকেটে গতির ঝড় তুলে আবির্ভুত হওয়া পেসার। পরেরবার দল বদলে কুমিল্লার হয়েও পান সাফল্য। এক আসর পর রংপুর রাইডার্সের জার্সি ফের উঁচিয়ে ধরেন বিপিএল ট্রফি। বিপিএলে চারটি শিরোপা জয়ী একমাত্র অধিনায়ক তিনি। ২০১৭ সালের পর গত তিন আসরে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বাদ পাননি মাশরাফি। এবার সিলেটের হয়ে পৌঁছে গেছেন ফাইনালে। কুমিল্লার বিপক্ষে ম্যাচটি শেষে জানা যাবে, তার সাফল্যের ডানায় নতুন পালক যুক্ত হলো কি না। সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত দেশের ফ্র্যাঞ্চাইজি আসরটিতে ১০৪ ম্যাচ খেলেছেন মাশরাফি। তবে এর মধ্যে ৫টিতে অধিনায়কত্ব করেননি তিনি। গত আসরে মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকার হয়ে ৪ ম্যাচ খেলেছেন মাহমুদউল্লাহর অধিনায়কত্বে। এবার সিলেটের প্রথম ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন মুশফিকুর রহিম। অধিনায়ক হিসেবে ৯৯ ম্যাচে মাশরাফির জয় ৬৪ ম্যাচে। এবার তার অধিনায়কত্বে সিলেট জিতেছে ৯টি ম্যাচ। মাশরাফি ছাড়া বিপিএলে পঞ্চাশের বেশি ম্যাচে অধিনায়কত্ব করেছেন সাকিব আল হাসান (৮৬), মাহমুদউল্লাহ (৮৫) ও মুশফিক (৮৫)। এদের মধ্যে পঞ্চাশের বেশি জয় দেখেছেন শুধুমাত্র সাকিব (৫৪ ম্যাচে)। তবে জয়ের হারে মাশরাফির চেয়েও এগিয়ে কুমিল্লার অধিনায়ক ইমরুল কায়েস। এখনও পর্যন্ত নেতৃত্ব দেওয়া ৪১ ম্যাচের ৩০টিতেই বিজয়ীর বেশ মাঠ ছেড়েছেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। খেলোয়াড় হিসেবে বিপিএলে ১০৪ ম্যাচে মাশরাফির শিকার ৯৭ উইকেট। তার সামনে আছেন শুধু সাকিব (১৩২) ও রুবেল হোসেন (১০৮)। ব্যাট হাতে এক ফিফটিতে মাশরাফি করেছেন ৫৯৩ রান। সবমিলিয়ে স্বীকৃত টি-টোয়েন্টিতে মাশরাফি অধিনায়কত্ব করেছেন ১৩৯ ম্যাচে। এর মধ্যে জয় ৮১টিতে। এই সংস্করণে বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে তার চেয়ে বেশি অধিনায়কত্ব করার রেকর্ড আছে মাহমুদউল্লাহ (১৫৮) ও মুশফিকের (১৪৩)।##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

জনপ্রিয়

চিতলমারীতে উপজেলা চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আলমগীর সিদ্দিকীর সংবাদ সম্মেলন

টুর্নামেন্টের ইতিহাসে প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ১০০ ম্যাচে অধিনায়কত্ব

বিপিএল ফাইনালে মাশরাফির ‘সেঞ্চুরি’

প্রকাশিত সময় : ০৬:৫২:০১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

###    পরিসংখ্যানের বিচারে বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের সফলতম অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। বিপিএলেও তাই। ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টুর্নামেন্টটিতে তার চেয়ে বেশি ট্রফি জিততে পারেননি আর কোনো অধিনায়ক। কিংবদন্তি অধিনায়কের অর্জনের সমৃদ্ধ ভাণ্ডারে যুক্ত হলো নতুন আরেকটি রেকর্ড।  বিপিএল ফাইনালে খেলতে নেমেই তিনি গড়লেন সেঞ্চুরির রেকর্ড।

টুর্নামেন্টের ইতিহাসে প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ১০০ ম্যাচে অধিনায়কত্ব করার কৃতিত্ব দেখালেন মাশরাফি। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে টস করতে নেমেই অনন্য কীর্তি গড়লেন সিলেট স্ট্রাইকার্সের অধিনায়ক।বিপিএল আর কেউ এখনও পর্যন্ত ৯০ ম্যাচও অধিনায়কত্ব করেননি। ২০১২ সালে বিপিএলের প্রথম আসর থেকে শুরু করে প্রতিটিতেই খেলেছেন মাশরাফি। টুর্নামেন্টের সফলতম অধিনায়কও তিনি। ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্সের হয়ে প্রথম দুই আসরে চ্যাম্পিয়ন হন বাংলাদেশের ক্রিকেটে গতির ঝড় তুলে আবির্ভুত হওয়া পেসার। পরেরবার দল বদলে কুমিল্লার হয়েও পান সাফল্য। এক আসর পর রংপুর রাইডার্সের জার্সি ফের উঁচিয়ে ধরেন বিপিএল ট্রফি। বিপিএলে চারটি শিরোপা জয়ী একমাত্র অধিনায়ক তিনি। ২০১৭ সালের পর গত তিন আসরে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বাদ পাননি মাশরাফি। এবার সিলেটের হয়ে পৌঁছে গেছেন ফাইনালে। কুমিল্লার বিপক্ষে ম্যাচটি শেষে জানা যাবে, তার সাফল্যের ডানায় নতুন পালক যুক্ত হলো কি না। সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত দেশের ফ্র্যাঞ্চাইজি আসরটিতে ১০৪ ম্যাচ খেলেছেন মাশরাফি। তবে এর মধ্যে ৫টিতে অধিনায়কত্ব করেননি তিনি। গত আসরে মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকার হয়ে ৪ ম্যাচ খেলেছেন মাহমুদউল্লাহর অধিনায়কত্বে। এবার সিলেটের প্রথম ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন মুশফিকুর রহিম। অধিনায়ক হিসেবে ৯৯ ম্যাচে মাশরাফির জয় ৬৪ ম্যাচে। এবার তার অধিনায়কত্বে সিলেট জিতেছে ৯টি ম্যাচ। মাশরাফি ছাড়া বিপিএলে পঞ্চাশের বেশি ম্যাচে অধিনায়কত্ব করেছেন সাকিব আল হাসান (৮৬), মাহমুদউল্লাহ (৮৫) ও মুশফিক (৮৫)। এদের মধ্যে পঞ্চাশের বেশি জয় দেখেছেন শুধুমাত্র সাকিব (৫৪ ম্যাচে)। তবে জয়ের হারে মাশরাফির চেয়েও এগিয়ে কুমিল্লার অধিনায়ক ইমরুল কায়েস। এখনও পর্যন্ত নেতৃত্ব দেওয়া ৪১ ম্যাচের ৩০টিতেই বিজয়ীর বেশ মাঠ ছেড়েছেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। খেলোয়াড় হিসেবে বিপিএলে ১০৪ ম্যাচে মাশরাফির শিকার ৯৭ উইকেট। তার সামনে আছেন শুধু সাকিব (১৩২) ও রুবেল হোসেন (১০৮)। ব্যাট হাতে এক ফিফটিতে মাশরাফি করেছেন ৫৯৩ রান। সবমিলিয়ে স্বীকৃত টি-টোয়েন্টিতে মাশরাফি অধিনায়কত্ব করেছেন ১৩৯ ম্যাচে। এর মধ্যে জয় ৮১টিতে। এই সংস্করণে বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে তার চেয়ে বেশি অধিনায়কত্ব করার রেকর্ড আছে মাহমুদউল্লাহ (১৫৮) ও মুশফিকের (১৪৩)।##