০৯:৩৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

যশোরে শিশুকন্যাকে ধর্ষণের অভিযোগে সৎ বাবা আটক

###    যশোরে সৎ বাবার হাতে ধর্ষিত হয়েছে ৩ বছরের শিশু। এ ঘটনায়  ধর্ষক  আব্দুল কুদ্দুসকে গণপিটুনি দিয়েছে স্থানীয় জনগণ। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেছে। যশোর কোতোয়ালি থানায় মামলার পর তাকে আটক দেখিয়ে পুলিশ প্রহরায় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। বৃহস্পতিবার শহরতলীর রামনগর ইউনিয়নের কুয়াদা বাজার এলাকার ফাঁকা মাঠে এ পৈচাশিক ঘটনাটি ঘটে। পরে শিশুটিকে জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসকরা বলেছেন, তার প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। তবে শিশুটি এখন শঙ্কামুক্ত। শিশুর পরিবার ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, শিশুটির মায়ের দাম্পত্য বিচ্ছেদের পর কুয়াদা বাজার এলাকার জসিমের বাড়ির ভাড়াটিয়া কুদ্দুসের সাথে বিয়ে হয়। তিনি যশোর সদর উপজেলার মন্ডলগাতি গ্রামের বাসিন্দা। দ্বিতীয় বিয়ের সূত্রে তিনি শিশু কন্যাকে নিজের কাছে রাখতেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে সৎ বাবা কুদ্দুস গোসল করানোর কথা বলে বাড়ি থেকে শিশুটিকে নিয়ে যায়। কিন্তু অনেকক্ষণ বাড়ি না ফেরায় শিশুর মা খোঁজাখুজি শুরু করেন। এক পর্যায়ে লোকমুখে জানতে পারেন শিশুটি ফাঁকা মাঠে দাঁড়িয়ে কান্নাকাটি করছে। দ্রুত সেখানে ছুটে গিয়ে তিনি দেখতে পান শিশুটির পরণের প্যান্ট রক্তে ভেজা। বিষয়টি কুদ্দুসের কাছে জানতে চাইলে সে সঠিক জবাব দিতে পারেনি। এরপর শিশুটির মা ও চাচাসহ স্থানীয়রা প্রকৃত কারণ বুঝতে পেরে কুদ্দুসকে ধরে গণপিটুনি দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। যশোর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক বলেছেন, শিশুটির যৌনাঙ্গে ক্ষত চিহৃ রয়েছে। তার অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়েছে।##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

জনপ্রিয়

ডুমুরিয়ায় মোটরসাইকেল-ইঞ্জিন ভ্যান সংঘর্ষে নিহত-২,আহত-৪

যশোরে শিশুকন্যাকে ধর্ষণের অভিযোগে সৎ বাবা আটক

প্রকাশিত সময় : ০৭:৩১:৪৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ মার্চ ২০২৩

###    যশোরে সৎ বাবার হাতে ধর্ষিত হয়েছে ৩ বছরের শিশু। এ ঘটনায়  ধর্ষক  আব্দুল কুদ্দুসকে গণপিটুনি দিয়েছে স্থানীয় জনগণ। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেছে। যশোর কোতোয়ালি থানায় মামলার পর তাকে আটক দেখিয়ে পুলিশ প্রহরায় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। বৃহস্পতিবার শহরতলীর রামনগর ইউনিয়নের কুয়াদা বাজার এলাকার ফাঁকা মাঠে এ পৈচাশিক ঘটনাটি ঘটে। পরে শিশুটিকে জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসকরা বলেছেন, তার প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। তবে শিশুটি এখন শঙ্কামুক্ত। শিশুর পরিবার ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, শিশুটির মায়ের দাম্পত্য বিচ্ছেদের পর কুয়াদা বাজার এলাকার জসিমের বাড়ির ভাড়াটিয়া কুদ্দুসের সাথে বিয়ে হয়। তিনি যশোর সদর উপজেলার মন্ডলগাতি গ্রামের বাসিন্দা। দ্বিতীয় বিয়ের সূত্রে তিনি শিশু কন্যাকে নিজের কাছে রাখতেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে সৎ বাবা কুদ্দুস গোসল করানোর কথা বলে বাড়ি থেকে শিশুটিকে নিয়ে যায়। কিন্তু অনেকক্ষণ বাড়ি না ফেরায় শিশুর মা খোঁজাখুজি শুরু করেন। এক পর্যায়ে লোকমুখে জানতে পারেন শিশুটি ফাঁকা মাঠে দাঁড়িয়ে কান্নাকাটি করছে। দ্রুত সেখানে ছুটে গিয়ে তিনি দেখতে পান শিশুটির পরণের প্যান্ট রক্তে ভেজা। বিষয়টি কুদ্দুসের কাছে জানতে চাইলে সে সঠিক জবাব দিতে পারেনি। এরপর শিশুটির মা ও চাচাসহ স্থানীয়রা প্রকৃত কারণ বুঝতে পেরে কুদ্দুসকে ধরে গণপিটুনি দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। যশোর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক বলেছেন, শিশুটির যৌনাঙ্গে ক্ষত চিহৃ রয়েছে। তার অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়েছে।##