০৪:৪৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

র্নিবাচনে বাধা সৃষ্টি করছে : জামায়াত

  • সংবাদদাতা
  • প্রকাশিত সময় : ০৯:৪৭:৩০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ জুলাই ২০২৩
  • ৬২ পড়েছেন

খুলনা প্রতিবেদক।।  খুলনায় কেয়ারটেকার সরকার প্রতিষ্ঠা, দলের আমীর ডা. শফিকুর রহমানসহ গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মী ও ওলামায়ে কেরামের মুক্তি এবং দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণের দাবীতে শান্তিপূর্ণ মিছিল করার জন্য খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের(কেএমপি) কাছে অনুমতি চেয়ে আবেদন করে জামায়াত। কিন্তু পুলিশ জামায়াতকে বিক্ষোভ মিছিল করার অনুমতি দেয়নি। সেকারনে জামায়াতের ঘোষিত বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়নি। এ বিষয়ে জামায়াতে ইসলামীর খুলনা মহানগরী আমীর অধ্যাপক মাহফুজুর রহমান বলেন, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী নিয়মতান্ত্রিক ও গণতান্ত্রিকপন্থায় শান্তিপূর্ণভাবে রাজনৈতিক কর্মসূচি বাস্তবায়নে অভ্যস্ত একটি দল। জামায়াত অতীতে প্রতিটি আন্দোলনে শান্তিপূর্ণভাবে অংশগ্রহণ করেছে এবং জনগণ তা স্বতঃস্ফূর্তভাবে সমর্থন করেছে। ২৮ জুলাই শান্তিপূর্ণ মিছিল করার সহযোগিতা চেয়ে গত ২৪ জুলাই সোমবার কেএমপিতে আবেদন করে। সে আবেদন আমলে নিয়ে প্রশাসন জামায়াতকে রাজনৈতিক কর্মসূচি বাস্তবায়নে সহযোগিতা দেবেন বলে আমরা আশা করেছিলাম। কিন্তু পুলিশ মিছিলের অনুমতি না দিয়ে পক্ষপাতমূলক আচরণ করেছে। তিনি বলেন, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক র্নিবাচনের জন্য রাজনৈতিক কর্মসূচি অপরিহায্য। সরকার তাতে বাধা দিয়ে মূলত অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের পথেই বাধা সৃষ্টি করেছে। দ্রুত কেয়ারটেকার সরকার ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করে সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক র্নিবাচন নিশ্চিত করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

এদিকে, শুক্রবার সন্ধ্যায় খুলনা মহানগরী জামায়াতে ইসলামীর অফিসে সেক্রেটারি এডভোকেট শেখ জাহাঙ্গীর হুসাইন হেলাল সাংবাদিকদের জানান, জামায়াতে ইসলামী কেয়ারটেকার সরকার প্রতিষ্ঠা, আমীরে জামায়াত ডা. শফিকুর রহমানসহ গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মী ও ওলামায়ে কেরামের মুক্তি এবং দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণের দাবীতে ২৮ জুলাই দেশব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে খুলনায় মিছিল সমাবেশ করতে পুলিশের অনুমতি চাওয়া হয়। কিন্তু পুলিশ তাদের শান্তির্পূন রাজণৈতিক কর্মসূচীতে বাধা দিয়ে অনুমতি দেয়নি। এটা অবশ্যই অগনতান্ত্রিক ও অন্যায়। পুলিশ ও প্রশাসনের এ ধরনের সিদ্ধান্তের তীব্র ক্ষোভ ও নিন্দা জানান তিনি।   ##

 

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

dainik madhumati

জনপ্রিয়

রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক একীভূতকরণের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন, ষড়যন্ত্রমূলক অপতৎপরতা রুখে দাড়ানোর আহবান

র্নিবাচনে বাধা সৃষ্টি করছে : জামায়াত

প্রকাশিত সময় : ০৯:৪৭:৩০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ জুলাই ২০২৩

খুলনা প্রতিবেদক।।  খুলনায় কেয়ারটেকার সরকার প্রতিষ্ঠা, দলের আমীর ডা. শফিকুর রহমানসহ গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মী ও ওলামায়ে কেরামের মুক্তি এবং দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণের দাবীতে শান্তিপূর্ণ মিছিল করার জন্য খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের(কেএমপি) কাছে অনুমতি চেয়ে আবেদন করে জামায়াত। কিন্তু পুলিশ জামায়াতকে বিক্ষোভ মিছিল করার অনুমতি দেয়নি। সেকারনে জামায়াতের ঘোষিত বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়নি। এ বিষয়ে জামায়াতে ইসলামীর খুলনা মহানগরী আমীর অধ্যাপক মাহফুজুর রহমান বলেন, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী নিয়মতান্ত্রিক ও গণতান্ত্রিকপন্থায় শান্তিপূর্ণভাবে রাজনৈতিক কর্মসূচি বাস্তবায়নে অভ্যস্ত একটি দল। জামায়াত অতীতে প্রতিটি আন্দোলনে শান্তিপূর্ণভাবে অংশগ্রহণ করেছে এবং জনগণ তা স্বতঃস্ফূর্তভাবে সমর্থন করেছে। ২৮ জুলাই শান্তিপূর্ণ মিছিল করার সহযোগিতা চেয়ে গত ২৪ জুলাই সোমবার কেএমপিতে আবেদন করে। সে আবেদন আমলে নিয়ে প্রশাসন জামায়াতকে রাজনৈতিক কর্মসূচি বাস্তবায়নে সহযোগিতা দেবেন বলে আমরা আশা করেছিলাম। কিন্তু পুলিশ মিছিলের অনুমতি না দিয়ে পক্ষপাতমূলক আচরণ করেছে। তিনি বলেন, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক র্নিবাচনের জন্য রাজনৈতিক কর্মসূচি অপরিহায্য। সরকার তাতে বাধা দিয়ে মূলত অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের পথেই বাধা সৃষ্টি করেছে। দ্রুত কেয়ারটেকার সরকার ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করে সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক র্নিবাচন নিশ্চিত করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

এদিকে, শুক্রবার সন্ধ্যায় খুলনা মহানগরী জামায়াতে ইসলামীর অফিসে সেক্রেটারি এডভোকেট শেখ জাহাঙ্গীর হুসাইন হেলাল সাংবাদিকদের জানান, জামায়াতে ইসলামী কেয়ারটেকার সরকার প্রতিষ্ঠা, আমীরে জামায়াত ডা. শফিকুর রহমানসহ গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মী ও ওলামায়ে কেরামের মুক্তি এবং দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণের দাবীতে ২৮ জুলাই দেশব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে খুলনায় মিছিল সমাবেশ করতে পুলিশের অনুমতি চাওয়া হয়। কিন্তু পুলিশ তাদের শান্তির্পূন রাজণৈতিক কর্মসূচীতে বাধা দিয়ে অনুমতি দেয়নি। এটা অবশ্যই অগনতান্ত্রিক ও অন্যায়। পুলিশ ও প্রশাসনের এ ধরনের সিদ্ধান্তের তীব্র ক্ষোভ ও নিন্দা জানান তিনি।   ##