০৪:১৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে পাটের ব্যাগ দেবে সরকার

  • অফিস ডেক্স।।
  • প্রকাশিত সময় : ০১:১৪:১৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ এপ্রিল ২০২৩
  • ৩৪ পড়েছেন

###     দেশের সরকারি, বেসরকারি ও ইবতেদায়ি মাদরাসায় প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি হওয়া সব শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে পাটের ব্যাগ দেবে সরকার।ব্যাগের সঙ্গে থাকবে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সম্পর্কিত লিফলেট।প্রাথমিকভাবে মোট ৩৩ লাখ শিক্ষার্থীদের এই ব্যাগ দেওয়া হবে। প্রতিটি ব্যাগের জন্য ৭৫০ টাকা খরচ করবে সরকার। এ খাতে মোট ব্যয় হবে ২৪৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা। পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় জানায়, শিক্ষার্থী অনুপাতে এই ব্যয় কম-বেশি হতে পারে। প্রকল্পটি সমাপ্তির পর সরকারের রাজস্ব বাজেট থেকে এটি চালু রাখার উদ্যোগ নেওয়া হবে। ‘প্রাথমিক শিক্ষার স্তরে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় এ উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে জানায় মন্ত্রণালয়। এরই মধ্যে প্রকল্পের প্রস্তাবনা পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হয়েছে। পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে প্রতিটি ব্যাগের দাম ধরা হয়েছে ৭৫০ টাকা। পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয় থেকে পাটের ব্যাগ কেনার সর্বাত্মক চেষ্টা করবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। জানা যায়, প্রকল্পের প্রস্তাবিত মোট ব্যয় ২৮৬ কোটি ৯৭ লাখ ৩৮ হাজার টাকা। জুন ২০২৪ সালের মধ্যেই শিক্ষার্থীদের হাতে এ পাটের ব্যাগ ও লিফলেট পৌঁছে দেওয়া হবে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মননে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার উন্মেষ ঘটানো প্রকল্পের অন্যতম উদ্দেশ্য। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) কামরুন নাহার বলেন, ‘নতুন প্রজন্মের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ছড়িয়ে দিতেই প্রকল্পটি নেওয়া হচ্ছে। প্রকল্পটি একেবারেই প্রাথমিক ধাপে। আমরা পরিকল্পনা কমিশনে পাঠিয়েছি। কমিশনে প্রকল্পটি নিয়ে প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি (পিইসি) সভা হবে। সভা যেভাবে চাইবে সেভাবেই প্রকল্প অনুমোদন হবে। আমরা প্রাথমিকভাবে পাটের ব্যাগের দাম ধরেছি ৭৫০ টাকা। পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয়ের রেট ধরে এটা করা হয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘জিটুজি পদ্ধতিতে পাটের ব্যাগ কেনা যায় কি না বিষয়টি আমরা দেখবো। ফলে পাটপণ্যের ব্যবহার বাড়বে। কৃষক ও দেশও উপকৃত হবে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের ফলে।’ পরবর্তী বছরগুলোতেও একই কর্মসূচি পরিচালনা করা হবে বলে জানা যায়। ২০২১ সালে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি মোট শিক্ষার্থী সংখ্যার চেয়ে কিছুটা বেশি হিসাব করে ৩৩ লাখ শিক্ষার্থীর জন্য ব্যাগ কেনা হবে। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে মার্চ-২০২২ এ প্রকাশিত বার্ষিক প্রাথমিক স্কুল সেনসাস অনুযায়ী, ২০২১ সালে দেশের প্রাইমারি স্কুলে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৩২ লাখ ৫০ হাজার ২৫১ জন। মন্ত্রণালয় জানায়, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠার পর বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণ নিশ্চিত করতে এবং তাদের জাতি গঠনের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্যে এরই মধ্যে যথাযথ পদক্ষেপ নিয়েছে। সব জেলা ও উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ের কর্মকাণ্ড প্রসার, নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের গৌরবোজ্জ্বল প্রকৃত ইতিহাস জানানো এবং দুস্থ মুক্তিযোদ্ধাদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

চেতনা একটি প্রবাহমান ও চর্চার বিষয়। এটিকে শিশু বয়স থেকে লালন করতে হয়। মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ চির জাগরুক রাখার জন্য এ সম্পর্কিত লিফলেট এবং বঙ্গবন্ধুর ছবি সম্বলিত পাটের ব্যাগ বিতরণের মাধ্যমে শিশুমনে জাতির পিতার আদর্শের বিচ্ছুরণ ঘটানো সম্ভব। এ প্রেক্ষাপটে প্রকল্পটি নেওয়া হয়েছে। এতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিকাশের পাশাপাশি পরিবেশবান্ধব পাটের পণ্য সম্পর্কে শিশুমনে চিন্তার খোরাক জোগানো সম্ভব হবে।##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

জনপ্রিয়

যশোরে জমি-জায়গা বিরোধের জের: ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যা

শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে পাটের ব্যাগ দেবে সরকার

প্রকাশিত সময় : ০১:১৪:১৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ এপ্রিল ২০২৩

###     দেশের সরকারি, বেসরকারি ও ইবতেদায়ি মাদরাসায় প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি হওয়া সব শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে পাটের ব্যাগ দেবে সরকার।ব্যাগের সঙ্গে থাকবে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সম্পর্কিত লিফলেট।প্রাথমিকভাবে মোট ৩৩ লাখ শিক্ষার্থীদের এই ব্যাগ দেওয়া হবে। প্রতিটি ব্যাগের জন্য ৭৫০ টাকা খরচ করবে সরকার। এ খাতে মোট ব্যয় হবে ২৪৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা। পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় জানায়, শিক্ষার্থী অনুপাতে এই ব্যয় কম-বেশি হতে পারে। প্রকল্পটি সমাপ্তির পর সরকারের রাজস্ব বাজেট থেকে এটি চালু রাখার উদ্যোগ নেওয়া হবে। ‘প্রাথমিক শিক্ষার স্তরে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় এ উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে জানায় মন্ত্রণালয়। এরই মধ্যে প্রকল্পের প্রস্তাবনা পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হয়েছে। পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে প্রতিটি ব্যাগের দাম ধরা হয়েছে ৭৫০ টাকা। পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয় থেকে পাটের ব্যাগ কেনার সর্বাত্মক চেষ্টা করবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। জানা যায়, প্রকল্পের প্রস্তাবিত মোট ব্যয় ২৮৬ কোটি ৯৭ লাখ ৩৮ হাজার টাকা। জুন ২০২৪ সালের মধ্যেই শিক্ষার্থীদের হাতে এ পাটের ব্যাগ ও লিফলেট পৌঁছে দেওয়া হবে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মননে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার উন্মেষ ঘটানো প্রকল্পের অন্যতম উদ্দেশ্য। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) কামরুন নাহার বলেন, ‘নতুন প্রজন্মের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ছড়িয়ে দিতেই প্রকল্পটি নেওয়া হচ্ছে। প্রকল্পটি একেবারেই প্রাথমিক ধাপে। আমরা পরিকল্পনা কমিশনে পাঠিয়েছি। কমিশনে প্রকল্পটি নিয়ে প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি (পিইসি) সভা হবে। সভা যেভাবে চাইবে সেভাবেই প্রকল্প অনুমোদন হবে। আমরা প্রাথমিকভাবে পাটের ব্যাগের দাম ধরেছি ৭৫০ টাকা। পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয়ের রেট ধরে এটা করা হয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘জিটুজি পদ্ধতিতে পাটের ব্যাগ কেনা যায় কি না বিষয়টি আমরা দেখবো। ফলে পাটপণ্যের ব্যবহার বাড়বে। কৃষক ও দেশও উপকৃত হবে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের ফলে।’ পরবর্তী বছরগুলোতেও একই কর্মসূচি পরিচালনা করা হবে বলে জানা যায়। ২০২১ সালে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি মোট শিক্ষার্থী সংখ্যার চেয়ে কিছুটা বেশি হিসাব করে ৩৩ লাখ শিক্ষার্থীর জন্য ব্যাগ কেনা হবে। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে মার্চ-২০২২ এ প্রকাশিত বার্ষিক প্রাথমিক স্কুল সেনসাস অনুযায়ী, ২০২১ সালে দেশের প্রাইমারি স্কুলে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৩২ লাখ ৫০ হাজার ২৫১ জন। মন্ত্রণালয় জানায়, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠার পর বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণ নিশ্চিত করতে এবং তাদের জাতি গঠনের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্যে এরই মধ্যে যথাযথ পদক্ষেপ নিয়েছে। সব জেলা ও উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ের কর্মকাণ্ড প্রসার, নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের গৌরবোজ্জ্বল প্রকৃত ইতিহাস জানানো এবং দুস্থ মুক্তিযোদ্ধাদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

চেতনা একটি প্রবাহমান ও চর্চার বিষয়। এটিকে শিশু বয়স থেকে লালন করতে হয়। মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ চির জাগরুক রাখার জন্য এ সম্পর্কিত লিফলেট এবং বঙ্গবন্ধুর ছবি সম্বলিত পাটের ব্যাগ বিতরণের মাধ্যমে শিশুমনে জাতির পিতার আদর্শের বিচ্ছুরণ ঘটানো সম্ভব। এ প্রেক্ষাপটে প্রকল্পটি নেওয়া হয়েছে। এতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিকাশের পাশাপাশি পরিবেশবান্ধব পাটের পণ্য সম্পর্কে শিশুমনে চিন্তার খোরাক জোগানো সম্ভব হবে।##