০৭:২৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সবজির দাম কমেনি, বেড়েছে আদা-রসুনের

  • মধুমতি ডেস্ক :
  • প্রকাশিত সময় : ০৪:৫৯:২৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২
  • ৫৩ পড়েছেন

বাজারে রয়েছে সবজির পর্যাপ্ত সরবরাহ। যে অজুহাতে ব্যবসায়ীরা দাম বাড়িয়েছিলেন, সেই বৃষ্টিও নেই এখন। তারপরও কাঁচা পেঁপে ছাড়া সব ধরনের সবজির দাম ৬০ টাকার ওপরে। কোনো কোনোটির দাম দেড়শ টাকার কাছাকাছি। শুক্রবার রাজধানীর কয়েকটি কাঁচাবাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

সম্প্রতি বৃষ্টির কারণে গত সপ্তাহে সবজির দাম কেজিতে ২০ থেকে ৩০ টাকা বেড়েছিল। সেই বাড়তি দর এখনও আছে। বেশিরভাগ সবজির দাম ৬০ থেকে ৮০ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে। কয়েকটির দাম ১০০ টাকার বেশি।

বাজারে প্রতি কেজি গোল বেগুন ৯০ থেকে ১০০ টাকা, লম্বা বেগুন ৭০ থেকে ৮০ টাকা, করলা ৭০ থেকে ৮০ টাকা, শসা ৬০ থেকে ৭০ টাকা, ঢ্যাঁড়শ ও পটোল ৫০ থেকে ৬০ টাকা, কচুর লতি ও বরবটি ৭০ থেকে ৮০ টাকা, চিচিঙ্গা ও ধুন্দুল ৬০ থেকে ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বাজারে কদর কম থাকা সবজি মুলার কেজিও ৬০ টাকা রাখছেন বিক্রেতারা। এ ছাড়া প্রতি কেজি টমেটোর দাম ১২০ থেকে ১৪০ টাকা, শিম ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা এবং গাজরের কেজি ১২০ থেকে ১৪০ টাকায় বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা। তবে কিছুটা কম দামে পাওয়া যাচ্ছে পেঁপে। ২০ থেকে ৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে সবজিটি।

নতুন করে বাঁধাকপি ও ফুলকপি আসা শুরু হয়েছে বাজারে। তবে সেগুলো আকারে খুবই ছোট হলেও দামে চড়া। এক পিস বাঁধাকপি ও ফুলকপি কিনতে খরচ পড়বে ৫০ থেকে ৬০ টাকা। এ ছাড়া প্রতি পিস লাউ কিনতে ৬০ থেকে ৭০ টাকা; আর জালি কুমড়ায় ৪০ থেকে ৫০ টাকা খরচ পড়বে।

শাকের দামও কম নয়। প্রতি আঁটি লাল শাক ২৫ টাকা, ডাটা শাক ২৫ টাকা, পুই শাক ৩০ থেকে ৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

সবজি বিক্রেতারা জানান, গ্রীষ্ম আর বর্ষাকালীন সবজির মৌসুম প্রায় শেষ। এখন শীতের সবজি আসা শুরু হয়েছে। তবে পরিমাণে খুব কম। এ কারণে দাম বাড়তি। তাছাড়া সরবরাহে টান পড়ায় প্রতি বছরের মতো শীতের আগে দাম কিছুটা বেশি থাকে।

এখনও দাম কমেনি ফার্মের ডিমের। গত সপ্তাহের মত প্রতি হালি ৫০ আর ডজন ১৪০ থেকে ১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে ব্রয়লার মুরগির বিক্রি হচ্ছে ১৭০ থেকে ১৮০ টাকায়। সোনালি জাতের মুরগির কেজি ২৯০ থেকে ৩১০ টাকা।

সবজির মত দাম বেড়েছে আদা-রসুনেরও। আদার দাম বেড়েছে কেজিতে ২০ থেকে ৩০ টাকার মতো। গত সপ্তাহে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হওয়া আদার কেজি দাঁড়িয়েছে ১৪০ টাকায়। আমদানি করা আদার কেজি ১০০ থেকে বেড়ে হয়েছে ১৩০ টাকা। রসুনের দাম কেজিতে বেড়েছে ১০ থেকে ২০ টাকা। দেশি রসুন বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ৯০ টাকা। আমদানি করা রসুনের কেজি দাম বেড়ে হয়েছে ১২০ থেকে ১৩০ টাকা।

সরকারি সংস্থা ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) তথ্য অনুযায়ী, গত এক সপ্তাহে দেশি রসুনের দাম ১৪ শতাংশ বেড়েছে। আদার দাম বেড়েছে আট থেকে ১৪ শতাংশ। সবজি আর আদা রসুনের মত মাছের বাজারও কিছুটা চড়া দেখা গেছে। সুত্র

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

dainik madhumati

জনপ্রিয়

মোল্লাহাটে বিয়ের জন্য মেয়েকে পছন্দ না করায় ছেলের ভগ্নিপতিকে হত্যা, আহত ১০

সবজির দাম কমেনি, বেড়েছে আদা-রসুনের

প্রকাশিত সময় : ০৪:৫৯:২৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

বাজারে রয়েছে সবজির পর্যাপ্ত সরবরাহ। যে অজুহাতে ব্যবসায়ীরা দাম বাড়িয়েছিলেন, সেই বৃষ্টিও নেই এখন। তারপরও কাঁচা পেঁপে ছাড়া সব ধরনের সবজির দাম ৬০ টাকার ওপরে। কোনো কোনোটির দাম দেড়শ টাকার কাছাকাছি। শুক্রবার রাজধানীর কয়েকটি কাঁচাবাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

সম্প্রতি বৃষ্টির কারণে গত সপ্তাহে সবজির দাম কেজিতে ২০ থেকে ৩০ টাকা বেড়েছিল। সেই বাড়তি দর এখনও আছে। বেশিরভাগ সবজির দাম ৬০ থেকে ৮০ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে। কয়েকটির দাম ১০০ টাকার বেশি।

বাজারে প্রতি কেজি গোল বেগুন ৯০ থেকে ১০০ টাকা, লম্বা বেগুন ৭০ থেকে ৮০ টাকা, করলা ৭০ থেকে ৮০ টাকা, শসা ৬০ থেকে ৭০ টাকা, ঢ্যাঁড়শ ও পটোল ৫০ থেকে ৬০ টাকা, কচুর লতি ও বরবটি ৭০ থেকে ৮০ টাকা, চিচিঙ্গা ও ধুন্দুল ৬০ থেকে ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বাজারে কদর কম থাকা সবজি মুলার কেজিও ৬০ টাকা রাখছেন বিক্রেতারা। এ ছাড়া প্রতি কেজি টমেটোর দাম ১২০ থেকে ১৪০ টাকা, শিম ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা এবং গাজরের কেজি ১২০ থেকে ১৪০ টাকায় বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা। তবে কিছুটা কম দামে পাওয়া যাচ্ছে পেঁপে। ২০ থেকে ৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে সবজিটি।

নতুন করে বাঁধাকপি ও ফুলকপি আসা শুরু হয়েছে বাজারে। তবে সেগুলো আকারে খুবই ছোট হলেও দামে চড়া। এক পিস বাঁধাকপি ও ফুলকপি কিনতে খরচ পড়বে ৫০ থেকে ৬০ টাকা। এ ছাড়া প্রতি পিস লাউ কিনতে ৬০ থেকে ৭০ টাকা; আর জালি কুমড়ায় ৪০ থেকে ৫০ টাকা খরচ পড়বে।

শাকের দামও কম নয়। প্রতি আঁটি লাল শাক ২৫ টাকা, ডাটা শাক ২৫ টাকা, পুই শাক ৩০ থেকে ৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

সবজি বিক্রেতারা জানান, গ্রীষ্ম আর বর্ষাকালীন সবজির মৌসুম প্রায় শেষ। এখন শীতের সবজি আসা শুরু হয়েছে। তবে পরিমাণে খুব কম। এ কারণে দাম বাড়তি। তাছাড়া সরবরাহে টান পড়ায় প্রতি বছরের মতো শীতের আগে দাম কিছুটা বেশি থাকে।

এখনও দাম কমেনি ফার্মের ডিমের। গত সপ্তাহের মত প্রতি হালি ৫০ আর ডজন ১৪০ থেকে ১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে ব্রয়লার মুরগির বিক্রি হচ্ছে ১৭০ থেকে ১৮০ টাকায়। সোনালি জাতের মুরগির কেজি ২৯০ থেকে ৩১০ টাকা।

সবজির মত দাম বেড়েছে আদা-রসুনেরও। আদার দাম বেড়েছে কেজিতে ২০ থেকে ৩০ টাকার মতো। গত সপ্তাহে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হওয়া আদার কেজি দাঁড়িয়েছে ১৪০ টাকায়। আমদানি করা আদার কেজি ১০০ থেকে বেড়ে হয়েছে ১৩০ টাকা। রসুনের দাম কেজিতে বেড়েছে ১০ থেকে ২০ টাকা। দেশি রসুন বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ৯০ টাকা। আমদানি করা রসুনের কেজি দাম বেড়ে হয়েছে ১২০ থেকে ১৩০ টাকা।

সরকারি সংস্থা ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) তথ্য অনুযায়ী, গত এক সপ্তাহে দেশি রসুনের দাম ১৪ শতাংশ বেড়েছে। আদার দাম বেড়েছে আট থেকে ১৪ শতাংশ। সবজি আর আদা রসুনের মত মাছের বাজারও কিছুটা চড়া দেখা গেছে। সুত্র