০৬:০৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সম্মেলন নিয়ে তেলেসমাতি

  • সংবাদদাতা
  • প্রকাশিত সময় : ১২:৫৬:০৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ জুন ২০২২
  • ৬৩ পড়েছেন

যশোরের চৌগাছা উপজেলা কৃষক দলের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে দলের মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদেও মধ্যে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। দীর্ঘ দিন পরে ঘোষিত এই কমিটিতে যাকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে তিনি উপজেলা আওয়ামীলীগের একজন সক্রিয় সদস্য। তিনি বিএনপি দলের প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করে বিগত দিনে চৌগাছা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা এস এম হাবিবের হাতে ফুল তুলে দিয়ে আওয়ামীলীগে যোগদান করেন। সে সময় এই যোগদানের ছবিসহ খবর পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছিল। কিন্তু সেই আওয়ামীলীগ নেতাকে জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করায় বিএনপিসহ এর সকল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। দলের নব গঠিত এই কমিটিকে অবাঞ্চিত ঘোষনা করে অবিলম্বে তা সংশোধন করার দাবি জানান নেতাকর্মীরা।
কোন প্রকার সম্মেলন ছাড়াই ঘরে বসে জেলা কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ মকবুল হোসেন উপজেলা কৃষক দলের প্যাডে স্বাক্ষরিত চৌগাছা উপজেলা জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের একটি কমিটি গত ১১ ই ফেব্রুয়ারি অনুমোদন করে দেন। ঘোষিত ওই পকেট কমিটিতে মো: আজগার আলীকে সভাপতি ও মো: শাহিনুর রহমান শাহিনকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। ২৩ সদস্য বিশিষ্ট ওই আংশিক কমিটিতের ৬জনকে সহ সভাপতি করা হয়েছে। এরা হচ্ছেন হারুনর অর রশীদ রিপন, এস এম শাহিন,মানিক মিয়া , সিরাজুল ইসলাম, মধু মিয়া ও সামনুর রহমান। ৩ জনকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। এরা হচ্ছেন আব্দুস সাত্তার, মোঃ স্বাধীন ও ফারুক হোসেন ।মোঃ মনিরুল ইসলামকে সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে। সহ সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে মোঃ মশিয়ার রহমানকে। এছাড়া কমিটির নির্বাহী সদস্য করা হয়েছে ফুল মিয়া, আবু সাঈদ ও আব্দুস সালাম, আলমগীর হোসেন,নাজমুল হোসেন, রুবেল হোসেন , বিল্লাল হোসেন,বাবুল আক্তার মকলেছুর রহমান মকলেছ ও ওসমান গণিকে। কমিটি অনুমোদনের ৯০ দিনের মধ্যে ঘোষিত কমিটির সভাপতি সম্পাদককে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। কিন্তু মজার বিষয় হচ্ছে এই সম্মেলন কবে হলো এবং এই সম্মেলনের নামে যাদেরকে উপজেলা কৃষক দলের কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ পদে স্থান দেওয়া হয়েছে তারা কেহই রাজনীতিতে সক্রিয় নয়। এমন কি যে শাহিনুর রহমান শাহিনকে উপজেলা কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে তিনি বহু আগেই দল ত্যাগ কওে উপজেলা আওয়ামীলীগের যোগদান করেছেন। যে যোগদানের ছবি স্থানীয় বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় সে সময় ছাপা হয়েছিল। এছাড়া জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ মকবুল হোসেন স্বাক্ষরিত একটি সংগঠনের উপজেলা কমিটির গঠন ও অনুমোদন হবে ওই সংগঠনের জেলা কমিটির প্যাডে। কিন্তু তা না হয়ে জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সহি করছেন উপজেলা কৃষক দলের প্যাডে । যা কেবল হাস্য করই নয়, রীতিমত সংগঠনের গঠনতন্ত্র এবং সাধারণ শিষ্ঠাচার বর্হিভূত বলছেন মুল দলের নেতাকর্মীরা। মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের দাবি এই পকেট কমিটি বাতিল করে সম্মেলনের মাধ্যমে দলের ত্যাগী পৌঢ় খাওয়া নেতাকর্মীদের দিয়ে একটি সক্রিয় কার্যকর উপজেলা কৃষক দল গঠন করা হোক।
এদিকে ঘোষিত এই কমিটির সাধারণ সম্পাদক শাহিনুর রহমান শাহিনকে অবাঞ্চিত ঘোষনা করে তাকে অবিলম্বে কমিটি থেকে বাদ দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন নেতাকর্মীরা। এদিকে দলের মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের এসব দাবির বিষয়ে জানার জন্য যশোর জেলা কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ মকবুল হোসেনের সাথে তার ব্যক্তিগত মোবাইল ( ০১৭১৮-৭৭৭১৫৫ ) নম্বরে বহু বার রিং দিলেও তিনি ফোনটি রিসিভ করেননি। ফলে এই বিষয়ে তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

dainik madhumati

দশমিনায় অসহায় ও দরিদ্রদের মাঝে চেক বিতরণ

সম্মেলন নিয়ে তেলেসমাতি

প্রকাশিত সময় : ১২:৫৬:০৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ জুন ২০২২

যশোরের চৌগাছা উপজেলা কৃষক দলের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে দলের মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদেও মধ্যে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। দীর্ঘ দিন পরে ঘোষিত এই কমিটিতে যাকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে তিনি উপজেলা আওয়ামীলীগের একজন সক্রিয় সদস্য। তিনি বিএনপি দলের প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করে বিগত দিনে চৌগাছা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা এস এম হাবিবের হাতে ফুল তুলে দিয়ে আওয়ামীলীগে যোগদান করেন। সে সময় এই যোগদানের ছবিসহ খবর পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছিল। কিন্তু সেই আওয়ামীলীগ নেতাকে জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করায় বিএনপিসহ এর সকল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। দলের নব গঠিত এই কমিটিকে অবাঞ্চিত ঘোষনা করে অবিলম্বে তা সংশোধন করার দাবি জানান নেতাকর্মীরা।
কোন প্রকার সম্মেলন ছাড়াই ঘরে বসে জেলা কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ মকবুল হোসেন উপজেলা কৃষক দলের প্যাডে স্বাক্ষরিত চৌগাছা উপজেলা জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের একটি কমিটি গত ১১ ই ফেব্রুয়ারি অনুমোদন করে দেন। ঘোষিত ওই পকেট কমিটিতে মো: আজগার আলীকে সভাপতি ও মো: শাহিনুর রহমান শাহিনকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। ২৩ সদস্য বিশিষ্ট ওই আংশিক কমিটিতের ৬জনকে সহ সভাপতি করা হয়েছে। এরা হচ্ছেন হারুনর অর রশীদ রিপন, এস এম শাহিন,মানিক মিয়া , সিরাজুল ইসলাম, মধু মিয়া ও সামনুর রহমান। ৩ জনকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। এরা হচ্ছেন আব্দুস সাত্তার, মোঃ স্বাধীন ও ফারুক হোসেন ।মোঃ মনিরুল ইসলামকে সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে। সহ সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে মোঃ মশিয়ার রহমানকে। এছাড়া কমিটির নির্বাহী সদস্য করা হয়েছে ফুল মিয়া, আবু সাঈদ ও আব্দুস সালাম, আলমগীর হোসেন,নাজমুল হোসেন, রুবেল হোসেন , বিল্লাল হোসেন,বাবুল আক্তার মকলেছুর রহমান মকলেছ ও ওসমান গণিকে। কমিটি অনুমোদনের ৯০ দিনের মধ্যে ঘোষিত কমিটির সভাপতি সম্পাদককে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। কিন্তু মজার বিষয় হচ্ছে এই সম্মেলন কবে হলো এবং এই সম্মেলনের নামে যাদেরকে উপজেলা কৃষক দলের কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ পদে স্থান দেওয়া হয়েছে তারা কেহই রাজনীতিতে সক্রিয় নয়। এমন কি যে শাহিনুর রহমান শাহিনকে উপজেলা কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে তিনি বহু আগেই দল ত্যাগ কওে উপজেলা আওয়ামীলীগের যোগদান করেছেন। যে যোগদানের ছবি স্থানীয় বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় সে সময় ছাপা হয়েছিল। এছাড়া জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ মকবুল হোসেন স্বাক্ষরিত একটি সংগঠনের উপজেলা কমিটির গঠন ও অনুমোদন হবে ওই সংগঠনের জেলা কমিটির প্যাডে। কিন্তু তা না হয়ে জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সহি করছেন উপজেলা কৃষক দলের প্যাডে । যা কেবল হাস্য করই নয়, রীতিমত সংগঠনের গঠনতন্ত্র এবং সাধারণ শিষ্ঠাচার বর্হিভূত বলছেন মুল দলের নেতাকর্মীরা। মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের দাবি এই পকেট কমিটি বাতিল করে সম্মেলনের মাধ্যমে দলের ত্যাগী পৌঢ় খাওয়া নেতাকর্মীদের দিয়ে একটি সক্রিয় কার্যকর উপজেলা কৃষক দল গঠন করা হোক।
এদিকে ঘোষিত এই কমিটির সাধারণ সম্পাদক শাহিনুর রহমান শাহিনকে অবাঞ্চিত ঘোষনা করে তাকে অবিলম্বে কমিটি থেকে বাদ দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন নেতাকর্মীরা। এদিকে দলের মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের এসব দাবির বিষয়ে জানার জন্য যশোর জেলা কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ মকবুল হোসেনের সাথে তার ব্যক্তিগত মোবাইল ( ০১৭১৮-৭৭৭১৫৫ ) নম্বরে বহু বার রিং দিলেও তিনি ফোনটি রিসিভ করেননি। ফলে এই বিষয়ে তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।