০৭:৩০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সহকর্মীকে ধর্ষণচেষ্টার মামলায় ভেড়ামারা পৌরসভার সচিবের পাঁচ বছরের কারাদন্ড

###    সহকর্মীকে ধর্ষণচেষ্টা মামলায় কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা পৌরসভার বর্তমান সচিব ও চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার সাবেক সচিব কাজী শরিফুল ইসলামকে পাঁচ বছরের কারাদন্ড দিয়েছেন চুয়াডাঙ্গা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল। এছাড়াও তাঁকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও চার মাসের কারাদন্ডাদেশ দিয়েছে আদালত। বুধবার (২২ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে চুয়াডাঙ্গা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মুসরাত জেরীন আসামির উপস্থিতিতে এ রায় দেন। চুয়াডাঙ্গা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতের স্পেশাল পিপি অ্যাডভোকেট আবু তালেব বিশ্বাস বলেন, রাষ্ট্রপক্ষ থেকে ১২ জনের সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে অভিযোগ প্রমাণিত করতে সক্ষম হওয়ায় বিজ্ঞ আদালতের বিচারক আসামি কাজী শরিফুল ইসলামকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদ- দিয়েছেন। মামলা সূত্রে জানা যায়, চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার টিকাদান সুপার ভাইজারকে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন তৎকালীন পৌরসভার সচিব ও বর্তমান ভেড়ামারা পৌরসভার সচিব কাজী শরিফুল ইসলাম। ২০১৬ সালে ১২ জুলাই ওই নারী তার কক্ষে কাজ করছিলেন। এ সময় সচিব কাজী শরিফুল ইসলাম তাকে একা পেয়ে জাপটে ধরেন এবং ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ সময় উভয়ের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। একপর্যায়ে সচিব কিলঘুষি মেরে ইপিআই সুপারভাইজারকে আহত করেন। পরে অন্যান্য সহকর্মীরা ঘটনাস্থল থেকে তাকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেন। ২০১৬ সালের ১ আগস্ট বিজ্ঞ আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন ওই নারী। আসামিপক্ষের আইনজীবী সৈয়দ হেদায়েত হোসেন আসলাম বলেন, রায়ে আমরা সংক্ষুদ্ধ হয়েছি। ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছে। উচ্চ আদালতে আসামির পক্ষে আপিল করা হবে।##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

জনপ্রিয়

মোল্লাহাটে বিয়ের জন্য মেয়েকে পছন্দ না করায় ছেলের ভগ্নিপতিকে হত্যা, আহত ১০

সহকর্মীকে ধর্ষণচেষ্টার মামলায় ভেড়ামারা পৌরসভার সচিবের পাঁচ বছরের কারাদন্ড

প্রকাশিত সময় : ০৫:৩৫:৪৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

###    সহকর্মীকে ধর্ষণচেষ্টা মামলায় কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা পৌরসভার বর্তমান সচিব ও চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার সাবেক সচিব কাজী শরিফুল ইসলামকে পাঁচ বছরের কারাদন্ড দিয়েছেন চুয়াডাঙ্গা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল। এছাড়াও তাঁকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও চার মাসের কারাদন্ডাদেশ দিয়েছে আদালত। বুধবার (২২ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে চুয়াডাঙ্গা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মুসরাত জেরীন আসামির উপস্থিতিতে এ রায় দেন। চুয়াডাঙ্গা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতের স্পেশাল পিপি অ্যাডভোকেট আবু তালেব বিশ্বাস বলেন, রাষ্ট্রপক্ষ থেকে ১২ জনের সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে অভিযোগ প্রমাণিত করতে সক্ষম হওয়ায় বিজ্ঞ আদালতের বিচারক আসামি কাজী শরিফুল ইসলামকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদ- দিয়েছেন। মামলা সূত্রে জানা যায়, চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার টিকাদান সুপার ভাইজারকে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন তৎকালীন পৌরসভার সচিব ও বর্তমান ভেড়ামারা পৌরসভার সচিব কাজী শরিফুল ইসলাম। ২০১৬ সালে ১২ জুলাই ওই নারী তার কক্ষে কাজ করছিলেন। এ সময় সচিব কাজী শরিফুল ইসলাম তাকে একা পেয়ে জাপটে ধরেন এবং ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ সময় উভয়ের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। একপর্যায়ে সচিব কিলঘুষি মেরে ইপিআই সুপারভাইজারকে আহত করেন। পরে অন্যান্য সহকর্মীরা ঘটনাস্থল থেকে তাকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেন। ২০১৬ সালের ১ আগস্ট বিজ্ঞ আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন ওই নারী। আসামিপক্ষের আইনজীবী সৈয়দ হেদায়েত হোসেন আসলাম বলেন, রায়ে আমরা সংক্ষুদ্ধ হয়েছি। ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছে। উচ্চ আদালতে আসামির পক্ষে আপিল করা হবে।##