০৪:৪৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সাংবাদিক তরিকুল ইসলাম ডালিমকে প্রাণনাশের হুমকি

  • সংবাদদাতা
  • প্রকাশিত সময় : ০২:৪০:০৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৬ মার্চ ২০২৩
  • ২৩৯ পড়েছেন

রূপসা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, দৈনিক মধুমতির বার্তা সম্পাদক, বাংলা টিভি ও দৈনিক আজকের সংবাদ পত্রিকার খুলনা প্রতিনিধি তরিকুল ইসলাম ডালিমকে প্রাণনাশের হুমকি ও মারতে উদ্যত হওয়ার ঘটনায় সংশ্লিষ্ট থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে ভুক্তভোগী গতকাল রবিবার রাতে এ অভিযোগ করেন।

অভিযোগে বলা হয়েছে, গত ৫ মার্চ খুলনা থেকে পেশাগত দায়িত্ব পালন শেষে ট্রলারযোগে রূপসা নদী পার হয়ে বাড়ি ফেরার সময় পূর্ব রূপসা ঘাট এলাকায় আসলে সাংবাদিক তরিকুল ইসলাম ডালিমের মোবাইলে একটা অফিসিয়াল কল আসে। তখন তিনি রাস্তার একপাশে দাঁড়িয়ে ফোনটি রিসিভ করে কথা বলতে লাগলে পেছন থেকে মোটরসাইকেলে আসা আমিরুল ইসলাম তারেক তাকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। এ সময় প্রতিবাদ করলে তাকে মারতে উদ্যত হয়। ওই স্থানে থাকা বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল ওহাব বিষয়টি নিষ্পত্তির চেষ্টা করলে তাকেও মারতে উদ্যত হন। পরিস্থিতি খারাপ দেখে ডালিম পেশাগত পরিচয় দিলে সে আরো মারমুখী আচরণ করতে থাকে। একপর্যায়ে তাকে দেখে নেওয়ার হুমকি-ধামকি দেয়া হয়। তার গালিগালাজ ও চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এলে তারেক গালিগালাজ করতে করতে চলে যায়। তারেকের মারমুখি আচরণ ও হুমকিতে ভুক্তভোগী ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়ে। বর্তমানে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন তিনি।

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

dainik madhumati

জনপ্রিয়

গলাচিপায় অবৈধ দোকান উচ্ছেদের মাধ্যমে রাস্তা উন্মুক্ত করায় প্রসংশিত মেয়র

সাংবাদিক তরিকুল ইসলাম ডালিমকে প্রাণনাশের হুমকি

প্রকাশিত সময় : ০২:৪০:০৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৬ মার্চ ২০২৩

রূপসা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, দৈনিক মধুমতির বার্তা সম্পাদক, বাংলা টিভি ও দৈনিক আজকের সংবাদ পত্রিকার খুলনা প্রতিনিধি তরিকুল ইসলাম ডালিমকে প্রাণনাশের হুমকি ও মারতে উদ্যত হওয়ার ঘটনায় সংশ্লিষ্ট থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে ভুক্তভোগী গতকাল রবিবার রাতে এ অভিযোগ করেন।

অভিযোগে বলা হয়েছে, গত ৫ মার্চ খুলনা থেকে পেশাগত দায়িত্ব পালন শেষে ট্রলারযোগে রূপসা নদী পার হয়ে বাড়ি ফেরার সময় পূর্ব রূপসা ঘাট এলাকায় আসলে সাংবাদিক তরিকুল ইসলাম ডালিমের মোবাইলে একটা অফিসিয়াল কল আসে। তখন তিনি রাস্তার একপাশে দাঁড়িয়ে ফোনটি রিসিভ করে কথা বলতে লাগলে পেছন থেকে মোটরসাইকেলে আসা আমিরুল ইসলাম তারেক তাকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। এ সময় প্রতিবাদ করলে তাকে মারতে উদ্যত হয়। ওই স্থানে থাকা বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল ওহাব বিষয়টি নিষ্পত্তির চেষ্টা করলে তাকেও মারতে উদ্যত হন। পরিস্থিতি খারাপ দেখে ডালিম পেশাগত পরিচয় দিলে সে আরো মারমুখী আচরণ করতে থাকে। একপর্যায়ে তাকে দেখে নেওয়ার হুমকি-ধামকি দেয়া হয়। তার গালিগালাজ ও চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এলে তারেক গালিগালাজ করতে করতে চলে যায়। তারেকের মারমুখি আচরণ ও হুমকিতে ভুক্তভোগী ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়ে। বর্তমানে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন তিনি।