০৯:৫৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সাতক্ষীরায় আনুষ্ঠানিকভাবে গাছ থেকে আম সংগ্রহ শুরু

###   গুণগত মান ও নিরাপদ আম বাজারজাত করণের লক্ষ্যে সাতক্ষীরায়  শুরু হয়েছে পাকা আম সংগ্রহ অভিযান। শুক্রবার (৫ মে) সকাল ৯টায় সাতক্ষীরা সদরের কুখরালী এলাকায় জেলা প্রশাসন ও কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের আয়োজনে আমবাগান থেকে গোবিন্দভোগ, গোপালভোগ, বোম্বাইসহ বেশ কয়েকটি স্থানীয় জাতের আম সংগ্রহ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়। সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাতেমা তুজ জোহরা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এই আম সংগ্রহ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মনির হোসেন, উপসহকারী কর্মকর্তা মো: আরাফাত হোসেন ছাড়াও জেলা প্রশাসন ও কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা।

সাতক্ষীরার আমের কদর রয়েছে বিশ্বজুড়ে। আবহাওয়া আর মাটির গুণাগুণের কারণে দেশের অন্য জেলার তুলনায় আগেভাগেই পাকে সাতক্ষীরার আম। এখানের আম চাষিরা বলছেন, এ বছর আম সংগ্রহের সময় নির্ধারণে কিছুটা বিলম্বিত হওয়ায় জেলার বাইরে থেকে আমের ব্যাপারি না আসায় আমের দাম কম। ফলে আর্থিক ক্ষতির আশঙ্কা করছেন তারা। জেলা প্রশাসন বলছে, অসাধু ব্যবসায়ীরা যাতে অধিক লাভের আশায় অপরিপক্ক আম রাসায়নিক মিশিয়ে আগেভাগে বাজারে বিক্রি না করতে পারে সে জন্য আমের জাত ভেদে গাছ থেকে আম সংগ্রহের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। তাই গুণগত মানের আম সরবরাহের লক্ষ্যে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন আম সংগ্রহের নির্ধারিত সময় বেঁধে আম সংগ্রহ ও বাজারজাতকরণ ক্যালেন্ডার তৈরি করে দিয়েছিলো। ক্যালেন্ডার অনুযায়ী এক সপ্তাহ এগিয়ে ১২ মে এর পরিবর্তে ৫ মে গোপালভোগ, গোবিন্দভোগ, বোম্বাই, গোপালখাস, বৈশাখীসহ স্থানীয় জাতের আম সংগ্রহের নতুন তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। আর দিন অপরিবর্তিত রেখে ২৫ মে হিমসাগর, ল্যাংড়া ১ জুন এবং আম্রপালি আম সংগ্রহের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে ১৫ জুন। এদিকে আমচাষিরা বলছেন, মৌসুম শুরুর পূর্বে বাজারে আম উঠায় সাতক্ষীরার আমের চাহিদাও একটু বেশি। তবে জেলা প্রশাসন কর্তৃক ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ২৫ মে এর পরে হিমসাগরসহ অন্যান্য আম সংগ্রহ করলে বাজারে সাতক্ষীরার আমের চাহিদা কমবে অন্যদিকে বৈরি আবহাওয়ায় আর্থিক ক্ষতির সম্ভাবনাও দেখছেন সাতক্ষীরার আমচাষিরা। সাতক্ষীরা সুলতানপুর বড় বাজারের কাঁচা ও পাকা মাল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুর রহিম বাবু বলেন, এবছর সাতক্ষীরায় আমের বাম্পার ফলন হলেও আমের ন্যায্যমূল্য না পাওয়ার শঙ্কায় চাষিরা। তাই লোকসান এড়াতে আম সংগ্রহের দিন এগিয়ে নিয়ে আসার অনুরোধ করেন তারা। সাতক্ষীরা সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. মনির হোসেন জানান, আম উৎপাদন লক্ষমাত্রা ছাড়িয়ে আমের বাম্পার ফলন হয়েছে এবং সাতক্ষীরার আম বিদেশে রপ্তানির ক্ষেত্রে এবছর ২০০ মেট্রিকটন লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।সাতক্ষীরার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শেখ মঈনুল ইসলাম মঈন জানান, বিষমুক্ত ও গুণগত মানের আম বাজারজাত করার লক্ষ্যে কৃষিবিভাগ ও জেলা প্রশাসনের যৌথ সিদ্ধান্তে আম সংগ্রহের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে প্রয়োজনে আলোচনা করে আম সংগ্রহের দিন এগিয়ে আনা যাবে বলে জানালেন জেলা প্রশাসনের এই কর্মকর্তা। চলতি মৌসুমে সাতক্ষীরায় ৪ হাজার ১১৫ হেক্টর জমিতে আমের চাষ করেছেন ১৩ হাজার ১০০ চাষি। আর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৪৫ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন।##

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

Dainik adhumati

জনপ্রিয়

কেইউজের নির্বাচন ২৯ জুন :  ভুয়া কমিটি নিয়ে বিভ্রান্ত না হতে সদস্যদের প্রতি নেতৃবৃন্দের আহ্বান

সাতক্ষীরায় আনুষ্ঠানিকভাবে গাছ থেকে আম সংগ্রহ শুরু

প্রকাশিত সময় : ০৭:০৩:৩৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৫ মে ২০২৩

###   গুণগত মান ও নিরাপদ আম বাজারজাত করণের লক্ষ্যে সাতক্ষীরায়  শুরু হয়েছে পাকা আম সংগ্রহ অভিযান। শুক্রবার (৫ মে) সকাল ৯টায় সাতক্ষীরা সদরের কুখরালী এলাকায় জেলা প্রশাসন ও কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের আয়োজনে আমবাগান থেকে গোবিন্দভোগ, গোপালভোগ, বোম্বাইসহ বেশ কয়েকটি স্থানীয় জাতের আম সংগ্রহ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়। সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাতেমা তুজ জোহরা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এই আম সংগ্রহ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মনির হোসেন, উপসহকারী কর্মকর্তা মো: আরাফাত হোসেন ছাড়াও জেলা প্রশাসন ও কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা।

সাতক্ষীরার আমের কদর রয়েছে বিশ্বজুড়ে। আবহাওয়া আর মাটির গুণাগুণের কারণে দেশের অন্য জেলার তুলনায় আগেভাগেই পাকে সাতক্ষীরার আম। এখানের আম চাষিরা বলছেন, এ বছর আম সংগ্রহের সময় নির্ধারণে কিছুটা বিলম্বিত হওয়ায় জেলার বাইরে থেকে আমের ব্যাপারি না আসায় আমের দাম কম। ফলে আর্থিক ক্ষতির আশঙ্কা করছেন তারা। জেলা প্রশাসন বলছে, অসাধু ব্যবসায়ীরা যাতে অধিক লাভের আশায় অপরিপক্ক আম রাসায়নিক মিশিয়ে আগেভাগে বাজারে বিক্রি না করতে পারে সে জন্য আমের জাত ভেদে গাছ থেকে আম সংগ্রহের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। তাই গুণগত মানের আম সরবরাহের লক্ষ্যে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন আম সংগ্রহের নির্ধারিত সময় বেঁধে আম সংগ্রহ ও বাজারজাতকরণ ক্যালেন্ডার তৈরি করে দিয়েছিলো। ক্যালেন্ডার অনুযায়ী এক সপ্তাহ এগিয়ে ১২ মে এর পরিবর্তে ৫ মে গোপালভোগ, গোবিন্দভোগ, বোম্বাই, গোপালখাস, বৈশাখীসহ স্থানীয় জাতের আম সংগ্রহের নতুন তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। আর দিন অপরিবর্তিত রেখে ২৫ মে হিমসাগর, ল্যাংড়া ১ জুন এবং আম্রপালি আম সংগ্রহের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে ১৫ জুন। এদিকে আমচাষিরা বলছেন, মৌসুম শুরুর পূর্বে বাজারে আম উঠায় সাতক্ষীরার আমের চাহিদাও একটু বেশি। তবে জেলা প্রশাসন কর্তৃক ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ২৫ মে এর পরে হিমসাগরসহ অন্যান্য আম সংগ্রহ করলে বাজারে সাতক্ষীরার আমের চাহিদা কমবে অন্যদিকে বৈরি আবহাওয়ায় আর্থিক ক্ষতির সম্ভাবনাও দেখছেন সাতক্ষীরার আমচাষিরা। সাতক্ষীরা সুলতানপুর বড় বাজারের কাঁচা ও পাকা মাল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুর রহিম বাবু বলেন, এবছর সাতক্ষীরায় আমের বাম্পার ফলন হলেও আমের ন্যায্যমূল্য না পাওয়ার শঙ্কায় চাষিরা। তাই লোকসান এড়াতে আম সংগ্রহের দিন এগিয়ে নিয়ে আসার অনুরোধ করেন তারা। সাতক্ষীরা সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. মনির হোসেন জানান, আম উৎপাদন লক্ষমাত্রা ছাড়িয়ে আমের বাম্পার ফলন হয়েছে এবং সাতক্ষীরার আম বিদেশে রপ্তানির ক্ষেত্রে এবছর ২০০ মেট্রিকটন লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।সাতক্ষীরার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শেখ মঈনুল ইসলাম মঈন জানান, বিষমুক্ত ও গুণগত মানের আম বাজারজাত করার লক্ষ্যে কৃষিবিভাগ ও জেলা প্রশাসনের যৌথ সিদ্ধান্তে আম সংগ্রহের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে প্রয়োজনে আলোচনা করে আম সংগ্রহের দিন এগিয়ে আনা যাবে বলে জানালেন জেলা প্রশাসনের এই কর্মকর্তা। চলতি মৌসুমে সাতক্ষীরায় ৪ হাজার ১১৫ হেক্টর জমিতে আমের চাষ করেছেন ১৩ হাজার ১০০ চাষি। আর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৪৫ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন।##