১১:১৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

২৮ প্রবাসীর মধ্যে ২৫ জনের করোনা নেগেটিভ

  • সংবাদদাতা
  • প্রকাশিত সময় : ০২:৩৩:৪৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ জুলাই ২০২২
  • ১০৮ পড়েছেন

দ্বিতীয় দফা টেস্টে সেই ২৮ যুক্তরাজ্য প্রবাসীর মধ্যে ২৫ জনের করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট এসেছে। পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে তিনজনের। গতকাল মঙ্গলবার রাতে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের আরটি পিসিআর ল্যাব থেকে তাদের করোনা পরীক্ষার এমন রিপোর্ট এসেছে বলে সিলেট স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে। এদিকে, যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসের যে নতুন ধরনটি শনাক্ত হয়েছে, এই যাত্রীদের ভেতর সেটা রয়েছে কিনা, তা পরীক্ষা করে দেখতে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের(আইইডিসিআর) সাত সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ টিম সিলেটে এসেছেন। স্বাস্থ্য বিভাগ, সিলেট-এর সহকারী পরিচালক ডা. আনিসুর রহমান জানান, করোনা পজিটিভ আসা ২৮ যুক্তরাজ্য প্রবাসীর স্যাম্পল সোমবার বিকালেই সংগ্রহ করা হয়। এর মধ্যে খাদিম ৩১ শয্যা হাসপাতাল থেকে ১৩ জনের এবং হোটেল নুরজাহান থেকে বাকি ১৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। তাদের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট গতকাল মঙ্গলবার রাতে এসেছে। প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, ৩ জনের পজিটিভ এবং ২৫ জনের নেগেটিভ রিপোর্ট এসেছে। আগের রিপোর্ট ভুল আসার সম্ভাবনা এড়িয়ে দিয়ে তিনি বলেন, আগের রিপোর্ট ‘ফলস নেগেটিভ’ হতে পারে। আগের স্যাম্পল অ্যারর কিংবা টেস্ট অ্যারর হতে পারে অথবা এরই মধ্যে রোগীর কিউর (আরোগ্য)ও হয়ে যেতে পারেন। তবে, এ বিষয়ে আরো বিস্তারিত পর্যবেক্ষণ করতে আইইডিসিআর-এর টিম মঙ্গলবার রাতে এসব প্রবাসীর স্যাম্পল কালেকশন করেছে। স্যাম্পল কালেকশনের পর তারা সীমান্তিকের আরটিপিসিআর ল্যাব পরিদর্শন করেন বলে জানান এ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা। ডা: আনিস বলেন, যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসের যে নতুন ধরনটি শনাক্ত হয়েছে, আক্রান্তদের মধ্যে সেটা আছে কিনা এখন বলা যাচ্ছে না। তবে, যুক্তরাজ্য থেকে যেসব প্রবাসী সিলেট আসছেন তাদের কঠোরভাবে কোয়ারেন্টিন পালন করতে হবে।
সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. প্রেমানন্দ মন্ডল বলেছেন, যুক্তরাজ্য থেকে আসা যাত্রীদের পজিটিভ রিপোর্ট পাওয়ার পর স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং আইইডিসিআরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। ইতোমধ্যেই আইইডিসিআর সাত জনের একটি টিম পাঠিয়েছে। তারা চার পাঁচদিন থাকবেন। যুক্তরাজ্য থেকে আসা পজিটিভ যাত্রীদের রোগের ধরন নিয়ে তারা পরীক্ষা নিরীক্ষা করবেন বলে জানান সিভিল সার্জন।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গত ২১ জানুয়ারি লন্ডনের হিথ্রো বিমানবন্দর থেকে বিমান বাংলাদেশের একটি ফ্লাইটে (বিজি-২০২) ১৫৭ জন যাত্রী নিয়ে সিলেট আসে। যাত্রীদেরকে সিলেট নগরীর ৭টি হোটেলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়। সেখানে থাকার ৪ দিনের মাথায় সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী ২৪ জানুয়ারি রোববার তাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরদিন সোমবার বেসরকারিভাবে প্রতিষ্ঠিত সীমান্তিক পিসিআর ল্যাবে তাদের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে।
যুক্তরাজ্যে মহামারি করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে। ফলে বিশ্বের সঙ্গে দেশটির যোগাযোগ প্রায় বিচ্ছিন্ন। কিন্তু বাংলাদেশের সঙ্গে লন্ডনের আকাশপথে যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে। সপ্তাহে দুদিন যুক্তরোজ্যর লন্ডন থেকে সিলেটে আসে বিমানের দুটি ফ্লাইট। গত সোমবারও ১৪৩ যাত্রী নিয়ে একটি ফ্লাইট সিলেটে এসেছে।
সিলেট আন্তর্জাতিক ওসমানী বিমানবন্দর সূত্র জানায়, গত ৪ জানুয়ারি থেকে ২৫ জানুয়ারি পর্যন্ত এই ২০ দিনে যুক্তরাজ্য থেকে সিলেটে এসেছেন ৫৪৪ জন প্রবাসী। যাদের মধ্যে সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী নিজ খরচে কোয়ারেন্টিন পালন শেষে করোনাভাইরাস শনাক্তকরণ পরীক্ষার নেগেটিভ সনদ নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩৭২ জন প্রবাসী। আর বর্তমানে সরকার নির্ধারিত সিলেটের বিভিন্ন হোটেলে কোয়ারেন্টিনরত অবস্থায় রয়েছে ১৪৩ জন।
বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, গত সেপ্টেম্বর মাসে যুক্তরাজ্যে শনাক্ত হওয়া ভাইরাসের ধরনটি অন্তত ৭০ শতাংশ বেশি হারে বিস্তার ঘটাতে পারে। বেশ কয়েকটি দেশে দ্রুত হারে ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাসের নতুন ধরনটি। ধারণা করা হয়, করোনাভাইরাসের এই নতুন ধরনটি আগেরটির তুলনায় দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে। তবে সেটি আগের চেয়ে বেশি বিপজ্জনক নয় বলেই মনে করা হচ্ছে।
সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (গণমাধ্যম) বিএম আশরাফ উল্যাহ তাহের জানান, প্রবাসীদের যথাযথ নিরাপদ কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করতে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করছেন সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের ৪৬ জন সদস্য। যেসব হোটেলে প্রবাসীরা অবস্থান করছেন সেসব হোটেল এবং খাদিমপাড়াস্থ করোনা আইসোলেশন সেন্টারে থাকা করোনা আক্রান্ত ২৮ যাত্রীর নিরাপত্তায়ও কাজ করছেন তারা। প্রবাসীরা যাতে কোয়ারেন্টিন ছেড়ে বাইরে বের হতে না পারেন-সেসব বিষয়ে দায়িত্ব পালন করছেন তারা।

Tag :
লেখক তথ্য সম্পর্কে

dainik madhumati

জনপ্রিয়

কুয়েটে পবিত্র ঈদ-উল-আযহার জামাত সকাল ৭ টায় 

২৮ প্রবাসীর মধ্যে ২৫ জনের করোনা নেগেটিভ

প্রকাশিত সময় : ০২:৩৩:৪৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ জুলাই ২০২২

দ্বিতীয় দফা টেস্টে সেই ২৮ যুক্তরাজ্য প্রবাসীর মধ্যে ২৫ জনের করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট এসেছে। পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে তিনজনের। গতকাল মঙ্গলবার রাতে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের আরটি পিসিআর ল্যাব থেকে তাদের করোনা পরীক্ষার এমন রিপোর্ট এসেছে বলে সিলেট স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে। এদিকে, যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসের যে নতুন ধরনটি শনাক্ত হয়েছে, এই যাত্রীদের ভেতর সেটা রয়েছে কিনা, তা পরীক্ষা করে দেখতে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের(আইইডিসিআর) সাত সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ টিম সিলেটে এসেছেন। স্বাস্থ্য বিভাগ, সিলেট-এর সহকারী পরিচালক ডা. আনিসুর রহমান জানান, করোনা পজিটিভ আসা ২৮ যুক্তরাজ্য প্রবাসীর স্যাম্পল সোমবার বিকালেই সংগ্রহ করা হয়। এর মধ্যে খাদিম ৩১ শয্যা হাসপাতাল থেকে ১৩ জনের এবং হোটেল নুরজাহান থেকে বাকি ১৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। তাদের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট গতকাল মঙ্গলবার রাতে এসেছে। প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, ৩ জনের পজিটিভ এবং ২৫ জনের নেগেটিভ রিপোর্ট এসেছে। আগের রিপোর্ট ভুল আসার সম্ভাবনা এড়িয়ে দিয়ে তিনি বলেন, আগের রিপোর্ট ‘ফলস নেগেটিভ’ হতে পারে। আগের স্যাম্পল অ্যারর কিংবা টেস্ট অ্যারর হতে পারে অথবা এরই মধ্যে রোগীর কিউর (আরোগ্য)ও হয়ে যেতে পারেন। তবে, এ বিষয়ে আরো বিস্তারিত পর্যবেক্ষণ করতে আইইডিসিআর-এর টিম মঙ্গলবার রাতে এসব প্রবাসীর স্যাম্পল কালেকশন করেছে। স্যাম্পল কালেকশনের পর তারা সীমান্তিকের আরটিপিসিআর ল্যাব পরিদর্শন করেন বলে জানান এ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা। ডা: আনিস বলেন, যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসের যে নতুন ধরনটি শনাক্ত হয়েছে, আক্রান্তদের মধ্যে সেটা আছে কিনা এখন বলা যাচ্ছে না। তবে, যুক্তরাজ্য থেকে যেসব প্রবাসী সিলেট আসছেন তাদের কঠোরভাবে কোয়ারেন্টিন পালন করতে হবে।
সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. প্রেমানন্দ মন্ডল বলেছেন, যুক্তরাজ্য থেকে আসা যাত্রীদের পজিটিভ রিপোর্ট পাওয়ার পর স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং আইইডিসিআরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। ইতোমধ্যেই আইইডিসিআর সাত জনের একটি টিম পাঠিয়েছে। তারা চার পাঁচদিন থাকবেন। যুক্তরাজ্য থেকে আসা পজিটিভ যাত্রীদের রোগের ধরন নিয়ে তারা পরীক্ষা নিরীক্ষা করবেন বলে জানান সিভিল সার্জন।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গত ২১ জানুয়ারি লন্ডনের হিথ্রো বিমানবন্দর থেকে বিমান বাংলাদেশের একটি ফ্লাইটে (বিজি-২০২) ১৫৭ জন যাত্রী নিয়ে সিলেট আসে। যাত্রীদেরকে সিলেট নগরীর ৭টি হোটেলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়। সেখানে থাকার ৪ দিনের মাথায় সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী ২৪ জানুয়ারি রোববার তাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরদিন সোমবার বেসরকারিভাবে প্রতিষ্ঠিত সীমান্তিক পিসিআর ল্যাবে তাদের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে।
যুক্তরাজ্যে মহামারি করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে। ফলে বিশ্বের সঙ্গে দেশটির যোগাযোগ প্রায় বিচ্ছিন্ন। কিন্তু বাংলাদেশের সঙ্গে লন্ডনের আকাশপথে যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে। সপ্তাহে দুদিন যুক্তরোজ্যর লন্ডন থেকে সিলেটে আসে বিমানের দুটি ফ্লাইট। গত সোমবারও ১৪৩ যাত্রী নিয়ে একটি ফ্লাইট সিলেটে এসেছে।
সিলেট আন্তর্জাতিক ওসমানী বিমানবন্দর সূত্র জানায়, গত ৪ জানুয়ারি থেকে ২৫ জানুয়ারি পর্যন্ত এই ২০ দিনে যুক্তরাজ্য থেকে সিলেটে এসেছেন ৫৪৪ জন প্রবাসী। যাদের মধ্যে সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী নিজ খরচে কোয়ারেন্টিন পালন শেষে করোনাভাইরাস শনাক্তকরণ পরীক্ষার নেগেটিভ সনদ নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩৭২ জন প্রবাসী। আর বর্তমানে সরকার নির্ধারিত সিলেটের বিভিন্ন হোটেলে কোয়ারেন্টিনরত অবস্থায় রয়েছে ১৪৩ জন।
বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, গত সেপ্টেম্বর মাসে যুক্তরাজ্যে শনাক্ত হওয়া ভাইরাসের ধরনটি অন্তত ৭০ শতাংশ বেশি হারে বিস্তার ঘটাতে পারে। বেশ কয়েকটি দেশে দ্রুত হারে ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাসের নতুন ধরনটি। ধারণা করা হয়, করোনাভাইরাসের এই নতুন ধরনটি আগেরটির তুলনায় দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে। তবে সেটি আগের চেয়ে বেশি বিপজ্জনক নয় বলেই মনে করা হচ্ছে।
সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (গণমাধ্যম) বিএম আশরাফ উল্যাহ তাহের জানান, প্রবাসীদের যথাযথ নিরাপদ কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করতে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করছেন সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের ৪৬ জন সদস্য। যেসব হোটেলে প্রবাসীরা অবস্থান করছেন সেসব হোটেল এবং খাদিমপাড়াস্থ করোনা আইসোলেশন সেন্টারে থাকা করোনা আক্রান্ত ২৮ যাত্রীর নিরাপত্তায়ও কাজ করছেন তারা। প্রবাসীরা যাতে কোয়ারেন্টিন ছেড়ে বাইরে বের হতে না পারেন-সেসব বিষয়ে দায়িত্ব পালন করছেন তারা।